Home /News /kolkata /
ফের লক্ষ-লক্ষ টাকা উদ্ধার কলকাতায়! এ বার হেয়ার স্ট্রিটে সিআইডির অভিযানে বিস্ফোরক তথ্য

ফের লক্ষ-লক্ষ টাকা উদ্ধার কলকাতায়! এ বার হেয়ার স্ট্রিটে সিআইডির অভিযানে বিস্ফোরক তথ্য

নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব চিত্র

প্রায় ঘন্টা খানেক পর দুপুর দু'টো নাগাদ লক ভেঙ্গে সিআইডি ঢোকে শেয়ার ট্রেডিং সংস্থায়। তালা খোলার লোক নিয়ে আসে।  ভিতরে ঘণ্টা দেড়েক ধরে চলে তল্লাশি।

  • Share this:

#কলকাতা: কলকাতার হেয়ারস্ট্রিট এলাকা থেকে উদ্ধার হল বিপুল পরিমাণ অর্থ। সিআইডির অভিযানে বিপুল পরিমাণ অর্থ উদ্ধার হল এই ভবন থেকে। কয়েকদিন আগেই কংগ্রেস বিধায়কের গাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ উদ্ধার করা হয। আর সেই ঘটনার তদন্তের জন্যই বিকানির বিল্ডিংয়ে আসেন আধিকারিকরা। সেখানেই উদ্ধার করা হয়েছে ২ লক্ষ টাকা, তবে টাকার অঙ্ক আরও বাড়তে পারে, চলছে টাকা গণনার কাজ।

মঙ্গলবার ঝাড়খন্ডের তিন কংগ্রেস বিধায়ককে গ্রেফতারির ঘটনার তদন্তে একটি সিআইডি টিম আসে হেয়ারস্ট্রিট এলাকায় এক ব্যাবসায়ীর অফিসে । এই তিন এমএলএ ঘটনার দিন সদর স্ট্রিটে হোটেলে আসার পর তাঁদের কাছে ঘনিষ্ঠ এক ব্যক্তি আসে। তিনি স্কুটার নিয়ে লালবাজারে আসেন এই ব্যাবসায়ীর কাছে। এখান থেকে টাকা নিয়ে স্কুটারে আসা ব্যক্তি পৌঁছে দেয় তিন বিধায়কের কাছে, এমনই ঘটনাবলীর কথা জানতে পেরেছে সিআইডি। সেই কারণেই সিআইডি তল্লাশি চালায়। সিআইডি সূত্রে খবর, এই ব্যাবসায়ীর সঙ্গে অসম-গুয়াহাটি যোগ আছে কিনা দেখছে সিআইডি। এর আগেও একাধিক বার টাকা লেনদেন হয়েছিল বলে  অনুমান সিআইডির।

আরও পড়ুন: মন্ত্রিসভার রদবদলের আগেই দশ দফতরকে নিয়ে জরুরি বৈঠকে মুখ্যসচিব, জোর চর্চা নবান্নে

প্রায় ঘন্টা খানেক পর দুপুর দু'টো নাগাদ লক ভেঙ্গে সিআইডি ঢোকে শেয়ার ট্রেডিং সংস্থায়। তালা খোলার লোক নিয়ে আসে।  ভিতরে ঘণ্টা দেড়েক ধরে চলে তল্লাশি। তারপরেই টাকার সন্ধান পাওয়া যায়। এই ব্যাবসায়ী শেয়ার  ট্রেডিং ব্যবসা করতেন। তিনি এখনও পলাতক।  আরফান আনসারী , রাজেশ কাচাপ , নামান বিক্সল  এই তিন কংগ্রেস বিধায়কের অসম যোগ ও এই ব্যাবসায়ীর আগেও পরিচয় ছিল কিনা সিআইডি খতিয়ে দেখছে। ঝাড়খন্ডতে রাঁচির আরগোডা থানায় এই তিন বিধায়কের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়।

আরও পড়ুন: টাকা আমার নয়, অনুপস্থিতিতে- অজান্তে ঘরে টাকা ঢোকানো হয়েছে: বিস্ফোরক অর্পিতা

অভিযোগ, তিন কংগ্রেস বিধায়কের কাছে ১০ কোটি টাকা নিয়ে সরকার ভাঙার চেষ্টা চলছে। সেই বিষয়ে এফআইআরে হাওড়া পাঁচলা থানায় অভিযোগ দায়ের হয়। তার প্রেক্ষিতে সিআইডি তদন্ত ভার হাতে নেয়।সিআইডি সূত্রে খবর, শনিবার দুপুর তিনটে আট মিনিটে সদর স্ট্রিটে হোটেলে ঢোকেন তিন কংগ্রেস বিধায়ক। ১০৬ নম্বরে ঘরে ঢোকেন তাঁরা কিছুক্ষনের জন্য। ৩.১৪ মিনিটে বেরিয়ে যান। হোটেলে এসে সেই সিসি ক্যামেরা ফুটেজ নেন তদন্তকারীরা। হোটেলে পানশালাতেও তাঁরা আসেন। সে সময় বিধায়কদের এক সঙ্গী স্কুটার নিয়ে বেরিয়ে যান। তিনি স্কুটার নিয়ে লালবাজারে উল্টোদিকে এক ব্যাবসায়ীর কাছে যান। তাঁর কাছ থেকে টাকা নেন। হোটেলের রেজিস্টারে নাম না থাকলেও হোটেলের পার্কিংযের রেজিস্টারে উল্লেখ রয়েছে, শনিবার দুপুরে ৩ টে  ১০-এ ঢুকেছিল ঝাড়খন্ডর বিধায়কদের বোর্ড লাগানো গাড়ি। বিকেলে ৩টে ৫০- এ হোটেল থেকে বেরিয়ে যান তাঁরা।

Arpita Hazra
Published by:Uddalak B
First published:

Tags: CID

পরবর্তী খবর