• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • মার্কিন মুলুকের নিমন্ত্রণ পেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

মার্কিন মুলুকের নিমন্ত্রণ পেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

মার্কিন মুলুকে যাওয়ার আমন্ত্রণ পেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বৃহস্পতিবার মার্কিন বিদেশ মন্ত্রকের আন্ডার সেক্রেটারি থমাস শ্যানন নবান্নে এসে মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান। ঘণ্টাখানেকের বৈঠকে পশ্চিমবঙ্গে মার্কিন বিনিয়োগ নিয়ে দুজনের কথা হয়।

মার্কিন মুলুকে যাওয়ার আমন্ত্রণ পেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বৃহস্পতিবার মার্কিন বিদেশ মন্ত্রকের আন্ডার সেক্রেটারি থমাস শ্যানন নবান্নে এসে মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান। ঘণ্টাখানেকের বৈঠকে পশ্চিমবঙ্গে মার্কিন বিনিয়োগ নিয়ে দুজনের কথা হয়।

মার্কিন মুলুকে যাওয়ার আমন্ত্রণ পেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বৃহস্পতিবার মার্কিন বিদেশ মন্ত্রকের আন্ডার সেক্রেটারি থমাস শ্যানন নবান্নে এসে মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান। ঘণ্টাখানেকের বৈঠকে পশ্চিমবঙ্গে মার্কিন বিনিয়োগ নিয়ে দুজনের কথা হয়।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: মার্কিন মুলুকে যাওয়ার আমন্ত্রণ পেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বৃহস্পতিবার মার্কিন বিদেশ মন্ত্রকের আন্ডার সেক্রেটারি থমাস শ্যানন নবান্নে এসে মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান। ঘণ্টাখানেকের বৈঠকে পশ্চিমবঙ্গে মার্কিন বিনিয়োগ নিয়ে দুজনের কথা হয়।

    রাজ্যে বিনিয়োগের লক্ষ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিশ্ব বঙ্গ সম্মেলনের আয়োজন করেছেন। বিদেশি বিনিয়োগ টানতে এই কর্মসূচি সফল হয়েছে বলে দাবি রাজ্য সরকারের। এবার মার্কিন দূতের সঙ্গে সরাসরি বিনিয়োগ নিয়ে আলোচনায় বসলেন মুখ্যমন্ত্রী। মার্কিন বিদেশ মন্ত্রকের আন্ডার সেক্রেটারি থমাস শ্যানন বৃহস্পতিবার নবান্নে আসেন। সন্ধে পৌনে সাতটা থেকে ঘণ্টা দু’য়েক বৈঠক হয়।

    নবান্ন সূত্রে খবর,  শিক্ষা, প্রযুক্তি ও সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে আলোচনা হয়। শ্যানন বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর আতিথেয়তায় তিনি মুগ্ধ। তাঁরা পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে সম্পর্ক মজবুত করতে চান। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাকে রাজ্যে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নবান্নের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্র ও মুখ্য সচিব বাসুদেব বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর আতিথেয়তায় মুগ্ধ মার্কিন কর্তা।

    বছর দুয়েক আগে মহাকরণে এসেছিলেন মার্কিন বিদেশ সচিব হিলারি ক্লিন্টন। ফের মার্কিন সরকারের দূত মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করায় বোঝা যাচ্ছে, বাংলার সঙ্গে সুসম্পর্ক চায় ওয়াশিংটন।

    First published: