corona virus btn
corona virus btn
Loading

কেন্দ্রের আইন সংশোধন! রবীন্দ্রভারতী-বর্ধমান-কল্যাণী-উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে দূরশিক্ষার অনুমোদন!

কেন্দ্রের আইন সংশোধন! রবীন্দ্রভারতী-বর্ধমান-কল্যাণী-উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে দূরশিক্ষার অনুমোদন!
প্রতীকী ছবি (সংগৃহীত)

রাজ্যের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য সাময়িক স্বস্তি। করোনা আবহে চলতি বছরে কেন্দ্রের আইন সংশোধনের জেরে রবীন্দ্রভারতী, বর্ধমান, কল্যাণী ও উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় দূরশিক্ষা অনুমোদন পেতে চলেছে।

  • Share this:

#কলকাতা: রাজ্যের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য সাময়িক স্বস্তি। করোনা আবহে চলতি বছরে কেন্দ্রের আইন সংশোধনের জেরে রবীন্দ্রভারতী, বর্ধমান, কল্যাণী ও উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় দূরশিক্ষা অনুমোদন পেতে চলেছে। মূলত বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন বা ইউজিসি গত বছরই আইন করে NAC-র দ্বারা বিশ্ববিদ্যালয় মূল্যায়নের ক্ষেত্রে যদি নম্বর ৩.২৫ এর বেশি পায় তবেই দূরশিক্ষা পড়ানোর সুযোগ পাবে ওই বিশ্ববিদ্যালয়।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের এই আইনের পরপরই রাজ্যের তরফে আপত্তি জানানো হয় ইউজিসি ও কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রককে। রাজ্য তরফের আপত্তি জানানোর পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়গুলিও নিজেদের তরফ হয় তাদের আপত্তির কথা জানায়। চলতি সপ্তাহেই বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন সেই আইন সংশোধন করে গেজেট নোটিফিকেশন জারি করেছে। নোটিফিকেশন করে তারা জানিয়েছে, NAC-র মূল্যায়নে ৩.০১ এর বেশি নম্বর পেলে চলতি শিক্ষাবর্ষ এর জন্য দূরশিক্ষার অনুমোদন পাবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলি। ফলে এ রাজ্যের রবীন্দ্রভারতী, কল্যাণী, বর্ধমান এবং উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো বিশ্ববিদ্যালয়গুলি দূরশিক্ষা পড়ানোর সুযোগ পাবে। তবে সেক্ষেত্রে দূরশিক্ষা অনুমোদন পাওয়ার জন্য ইউজিসির কাছে আবার নতুন করে আবেদন করতে হবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে।

এ রাজ্যে প্রত্যেক বছরেই প্রায় এক লক্ষ ছাত্র-ছাত্রী দূরশিক্ষা বা ডিসট্যান্স এডুকেশনের মাধ্যমে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। বিশেষত বর্ধমান, উত্তরবঙ্গ, কল্যাণী, বিদ্যাসাগরের মতো বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে দূরশিক্ষা জনপ্রিয়তা ব্যাপক। কারণ বহু ছাত্র-ছাত্রী তারা জেনারেল ডিগ্রী পড়ার সুযোগ না পেয়ে এই ডিসট্যান্স এডুকেশনের মাধ্যমেই স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি সাধারণত নিয়ে থাকে। ফলে চলতি বছরের জন্য ইউজিসির এই আইন সংশোধনের ফলে অন্তত রাজ্যের সামরিক স্বস্তি হল বলেই মনে করছেন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সব্যসাচী বসু রায় চৌধুরী। তিনি বলেন " করোনা আবহে এটা একটা সাময়িক স্বস্তি এ রাজ্যের জন্য। চলতি বছরের জন্য UGC এই আইন সংশোধন করলেও তারা জানিয়ে দিয়েছে পরবর্তী শিক্ষাবর্ষ অর্থাৎ আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে তাদের পূর্ব নির্ধারিত যে নম্বর পাওয়ার কথা বলা হয়েছে সেই নম্বর পেতে হবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে তবেই ডিসট্যান্স এডুকেশন পড়ানোর অনুমোদন পাবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলি। তবে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন বা কেন্দ্র আছে আবার আবেদন জানাতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় দূরশিক্ষা পড়ানোর জন্য।"

রাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ গুলিতে এখন স্নাতক স্তরের প্রথম বর্ষের ছাত্রছাত্রীদের ভর্তির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। করোনা আবহে পুরো ভর্তি প্রক্রিয়ায় অনলাইনে করছে বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলি। বর্তমান পরিস্থিতির নিরিখে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় এসে পঠন-পাঠনকে অনেকেই অবশ্য সুরক্ষিত নয় বলেই দাবি করছেন। সেক্ষেত্রে চলতি বছরে দূরশিক্ষার চাহিদা আরও বাড়তে পারে বলেই মত শিক্ষাবিদদের একাংশের। যদিও কেন্দ্রের তরফ এবিসিডি, কবে থেকে দূরশিক্ষা চালু করতে পারবে সে বিষয়ে কোনও নির্দিষ্ট সিদ্ধান্ত না জানায়নি। ফলে কবে থেকে দূরশিক্ষার মাধ্যমে পঠন-পাঠন শুরু হবে সে বিষয়ে এখনই নিশ্চিত হতে পারছেন না রাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়গুলির উপাচার্যরা।

SOMRAJ BANDOPADHYAY

Published by: Shubhagata Dey
First published: September 12, 2020, 2:16 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर