• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • CENTRAL DETECTIVE DEPARTMENT IS IN WORRY AFTER RECEIVING INFORMATION FROM ARRESTED LASHKAR E TAIBA TERRORIST RM

লস্কর জঙ্গি তানিয়ার থেকে পাওয়া তথ্য উদ্বেগ বাড়াল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের

রাজ্য পুলিশের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্স (এসটিএফ)-এর হাতে ধৃত তানিয়া পারভিনকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জেরা করে এনআইএর গোয়েন্দাদের সামনে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য

রাজ্য পুলিশের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্স (এসটিএফ)-এর হাতে ধৃত তানিয়া পারভিনকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জেরা করে এনআইএর গোয়েন্দাদের সামনে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য

  • Share this:

#কলকাতা: রাজ্য পুলিশের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্স (এসটিএফ)-এর হাতে ধৃত তানিয়া পারভিনকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জেরা করে এনআইএর গোয়েন্দাদের সামনে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য। গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন, এদেশে নতুন মডিউল তৈরির কাজ শুরু করেছিল লস্কর-ই-তৈবা। তানিয়াকে জেরা করে গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন, লস্করের নয়া এই মডিউল সম্পূর্ণ আলাদা এবং অভিনব পদ্ধতিতে তৈরি করা হচ্ছিল। এই বিষয়ে এখনও বিস্তারিত তথ্য না হাতে আসায় উদ্বিগ্ন গোয়েন্দারা।

গোয়েন্দারা জেনেছেন, নয়া এই মডিউলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে ছিল মহিলা জঙ্গি তানিয়া। উত্তর ভারতের এক লস্কর জঙ্গির মাধ্যমে এই সংগঠনে যুক্ত হয় সে। এনআইএ জানতে পেরেছে, ভারতে তানিয়ার মতোই আরও একাধিক লস্কর জঙ্গি লুকিয়ে রয়েছে। যারা স্লিপার সেল হিসেবে কাজ করছে। জাতীয় নিরাপত্তায় আঘাত হানতে এমন পরিকল্পনা করছে, যা আগে কখনও হয়নি। তানিয়াকে জেরা করে গোয়েন্দারা সেই মডিউলের বিষয়ে সামান্যই তথ্য হাতে পেয়েছেন যা আরও উদ্বেগ বাড়িয়েছে গোয়েন্দাদের। কারণ, যতক্ষণ না পর্যন্ত এই মডিউলের প্রত্যেককে গ্রেফতার করা হচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত এই চক্রের জাল কতদূর বিস্তারিত তা জানা সম্ভব হচ্ছে না। এনআইএ-র এক অফিসার বলেন, "এই মডিউলে প্রত্যেকের আলাদা দায়িত্ব রয়েছে। একজনের কাজ অন্যজন সঠিকভাবে জানে না। তাই তাদের প্রত্যেককে গ্রেফতার করতে না পারলে গোটা পরিকল্পনাটা জানা সম্ভব নয়। তবে এরাজ্যে তানিয়াকে সংগঠন বিস্তারের কাজ জোরদার করতে বলা হয়েছিল।"

গোয়েন্দারা উদ্বিগ্ন কারণ, তানিয়া জানিয়েছে, এই মডিউল আগের থেকে আরও ভয়ঙ্কর এবং 'বড় কাজে' নেমেছে। মুম্বই হামলার সঙ্গে যুক্ত এই জঙ্গি সংগঠনটির কী সেই 'বড় কাজ'? এই মডিউল কতটা ভয়ঙ্কর? তাদের পরিকল্পনা ঠিক কি? যতদিন পর্যন্ত না সব তথ্য সামনে আসছে,  উদ্বেগ থেকেই যাচ্ছে।

এনআইএ সূত্রে খবর, নতুন এই মডিউলে সাধারণ যে কেউ নয়, শুধুমাত্র শিক্ষিত যুবক-যুবতীদেরই টার্গেট করা হয়েছিল। তাদের ব্রেনওয়াশ করা শুরু করেছিল তানিয়া। উত্তর ২৪ পরগনা ছাড়াও বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া মুর্শিদাবাদ জেলাতেও সংগঠন বিস্তারে জোর দিয়েছিল। সংগঠন বিস্তারের কাজও জোরকদমে চলছিল।

তানিয়াকে জেরা করে গোয়েন্দারা জানতে পেরেছে, পাক সীমান্ত লাগোয়া কাশ্মীর, রাজস্থানের একাধিক ব্যক্তি লস্করের হয়ে এখন কাজ করছে। তাদের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল তানিয়ারও। সেই জঙ্গিদের খোঁজে ওই রাজ্যে যাবে এনআইএ।

১০ দিনের পুলিশি হেফাজতের শেষে তানিয়া পারভিনকে এদিন বিশেষ এনআইএ আদালতে তোলা হয়। আদালত ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে। আপাতত তাকে আলিপুর মহিলা সংশোধনাগারে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সংশোধনাগার সূত্রে খবর, সেখানে তানিয়াকে বিশেষ নজরদারিতে রাখা হবে।

SUJOY PAL

Published by:Rukmini Mazumder
First published: