ফের মদ্যপ অবস্থায় ড্রাইভিং, আহত চালক

ফের মদ্যপ অবস্থায় ড্রাইভিং, আহত চালক
দুর্ঘটনাগ্রস্থ গাড়িটি

আজ ভোরে একটি চার চাকা ছোট গাড়ি ইএম বাইপাসে সায়েন্স সিটি-র দিক থেকে সল্টলেকের দিকে যাওয়ার সময়, মেট্রোপলিটন সিটির কাছে গার্ড রেলে ধাক্কা মারে একটি গাড়ি।

  • Share this:

SANKU SANTRA

#কলকাতা: আবার মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালাতে গিয়ে ধাক্কা। আহত চালক। পথ নিরাপত্তা নিয়ে সরকারি বিজ্ঞাপন সচেতনতা, আদৌ যে কাজে আসছে না, সেটা দৈনন্দিন পথ দুর্ঘটনাতে অনেকটা পরিষ্কার।

আজ ভোরে একটি চার চাকা ছোট গাড়ি ইএম বাইপাসে সায়েন্স সিটি-র দিক থেকে সল্টলেকের দিকে যাওয়ার সময়, মেট্রোপলিটন সিটির কাছে গার্ড রেলে ধাক্কা মারে একটি গাড়ি। দুর্ঘটনায় আহত হন গাড়ির চালক। চালকের বক্তব্য অনুযায়ী, গাড়ি চালাতে গিয়ে, ঘুমে চোখটা বুজে গিয়ে ছিল। খুব দ্রুত এসে গার্ড রেলে ধাক্কা মারাতে গাড়িটির সামনের অংশ সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্থ হয়। স্থানীয় ট্রাফিক সার্জেন্ট গাড়িটিকে ধরে ফেলে। চালকের মুখের সামনের অংশে আঘাত লাগে, রক্তপাত হয়। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করার পর ডাক্তাররা ছেড়ে দেন। চালককে আটক করেছে প্রগতী ময়দান থানার পুলিশ।

কলকাতা শহরে মদ্যপান করে গাড়ি চালানো আইনত নিষিদ্ধ। পুলিশ সন্ধ্যার পরে প্রায়ই বিভিন্ন জায়গায় দাঁড়িয় 'ব্রেথ অ্যানালাইজার' নিয়ে প্রত্যেকের শরীরের অ্যালকোহলের পরিমাণ মাপে। সেটা সব থেকে বেশি, রাত্রি ১২টা পর্যন্ত পুলিশ করে থাকে। কিন্তু রাত ১২টার পর মদ খেয়ে ফেরার পথে দু চাকা কিংবা চারচাকা গাড়ির দুর্ঘটনা প্রায়ই ঘটে। তাতে বেশিরভাগই মারা যাওয়ার খবর পাওয়া যায়। তবে পুলিশের ধরপাকড় কিংবা নাকা চেকিং এর থেকে সব থেকে, আরো বেশি প্রয়োজন মানুষের মধ্যে সচেতনতা।

ওই গাড়ির মধ্যে একটি বোতল পাওয়া গেছে। সেই বোতলে জলের সঙ্গে মদ মেশানো ছিল বলে পুলিশের অনুমান। পথ নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে আরো বেশি করে পুলিশের সচেতন করার পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত। প্রতিটি গাড়ি এবং তার চালককে অন্যায় দেখলেই ,তার বিরুদ্ধে সঠিক আইনত পদক্ষেপ নেওয়া দরকার বলে মনে করেন বিদ্য জনেরা। ২০১৭ তে ভারতে পথদুর্ঘটনা সংখ্যা ছিল দেড় লক্ষ। আস্তে আস্তে সেই সংখ্যাটা কমছে। তবুও যে কোনও মৃত্যু কোনও সরকারের কাছে কাম্য নয়।

First published: 02:48:20 PM Dec 12, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर