মঙ্গলবার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেনেট ও সিন্ডিকেট বৈঠক, রাজ্যপাল যাবেন কি? জল্পনা অন্দরে

মঙ্গলবার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেনেট ও সিন্ডিকেট বৈঠক, রাজ্যপাল যাবেন কি? জল্পনা অন্দরে
বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন নিয়ে আলোচনা বৈঠকে

মঙ্গলবার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেনেট ও সিন্ডিকেট বৈঠক। আলোচনা হবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৮ জানুয়ারির সমাবর্তন নিয়ে।

  • Share this:

SOMRAJ BANDOPADHYAY

#কলকাতা: অবশেষে মঙ্গলবার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেনেট এবং সিন্ডিকেট বৈঠক করার সিদ্ধান্ত। মূলত বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন নিয়েই আলোচনা হবে দুই বৈঠকে। সময় না পাওয়ায় একই দিনে দুটি বৈঠক করার সিদ্ধান্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের। সম্প্রতি রাজ্যপাল সেনেট বৈঠকে যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করায় স্থগিত করে দিয়েছিল সেই বৈঠক। তা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সংঘাতও শুরু হয়েছিল রাজ্যপালের সঙ্গে। আগামী কালকের বৈঠকে রাজ্যপাল যাবেন কি? শুরু হয়েছে জল্পনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্দরেই।

আগামী ২৮শে ডিসেম্বর কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন হবার কথা। ওই সমাবর্তনে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সাম্মানিক ডিলিট দেওয়ার কথা বিশ্ববিদ্যালয়ের। ইতিমধ্যেই অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতা আসবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। সমাবর্তনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়কে ও প্রধান অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানানোর কথা বিশ্ববিদ্যালয়ের। গত ৫ই ডিসেম্বর শ্রেণীর বৈঠক না হওয়ার জেরে এবার সেই বৈঠক মঙ্গলবার করার সিদ্ধান্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের। এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রার দেবাশীষ দাস জানিয়েছেন "আমরা আর সময় পাচ্ছিনা। তাই মঙ্গলবার সেনেট ও সিন্ডিকেট একইসঙ্গে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।"

এদিকে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠান নিয়েও জটিলতা শুরু হয়েছিল। গত ৫ই ডিসেম্বর সমাবর্তন নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য সেনেট বৈঠক ডাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কর্তৃপক্ষ। সেনেট বৈঠকে আসার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন রাজ্যপাল জাগদীপ ধনকার। কিন্তু বৈঠকের কয়েক ঘণ্টা আগেই বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে সেনেট বৈঠক স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সিদ্ধান্তের কথা জানানোর পরপরই রাজ্যপাল ও রাজ্য সংঘাত আবারও শুরু হয়। শুধু তাই নয় কেন সেনেট বৈঠক স্থগিত করা হচ্ছে তা নিয়ে জানতে উপাচার্য কে ডেকে পাঠানো হয়। উপাচার্য না আসায় সেনেট বৈঠকের দিনই ক্যাম্পাসেই চলে যান রাজ্যপাল। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস এবং লাইব্রেরী ঘুরে দেখার আগ্রহ প্রকাশ করলেও ক্যাম্পাসে ছিলেন না উপাচার্য সহ কোন আধিকারিকরা। বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে উপাচার্যের ঘর তালাবন্ধধ দেখেছিলেন রাজ্যপাল। তা নিয়ে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। তারপর থেকে দুবার রাজভবনে উপাচার্য কে ডেকে পাঠালেও সোনালী চক্রবর্তী বন্দোপাধ্যায় রাজভবনে যাননি। ইতিমধ্যেই রাজ্য আচার্যের ক্ষমতা নিয়ে নয়া বিধি জারি করেছে। সেই বিধিমোতাবেক সেনেট বৈঠকের কথা উচ্চশিক্ষা দপ্তরই জানাবে আচার্য কে। তবে বৈঠকের সিদ্ধান্ত্ত নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই জল্পনা শুরু হয়েছে ক্যাম্পাসে সেনেট বৈঠকে যোগ দিতে আসবেন না তো রাজ্যপাল? কেননা তিনি তো সেনেটের চেয়ারম্যান।

First published: 11:32:35 AM Dec 23, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर