corona virus btn
corona virus btn
Loading

বাড়ি বসে অনলাইনে বই দেখে স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের পরীক্ষা, ঘোষণা কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের

বাড়ি বসে অনলাইনে বই দেখে স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের পরীক্ষা, ঘোষণা কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের

প্রত্যেকটি বিষয়ের এই ভাবেই পরীক্ষা নেওয়া হবে এবং এর জন্য বিষয়ভিত্তিক ২৪ ঘন্টা করে সময় থাকবে ।

  • Share this:

#কলকাতা: অনলাইনে বাড়িতে বসেই কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইনাল ইয়ারের ছাত্র ছাত্রীরা পরীক্ষা দিতে পারবেন। বুধবার এমনটাই সিদ্ধান্ত নিল কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। যা কার্যত বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসেই নজিরবিহীন। বুধবার একাধিক বৈঠক করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে অনলাইনে নেওয়া হবে পরীক্ষা। অর্থাৎ স্নাতক স্তরের ফাইনাল ইয়ারের ছাত্র ছাত্রীদের কলেজ মারফত প্রশ্ন পাঠানো হবে। সেই প্রশ্ন পাওয়ার পর প্রিন্ট আউট নিয়ে ছাত্রছাত্রীরা উত্তর লিখবেন। উত্তর লিখে স্ক্যান করে কলেজের অধ্যাপক অধ্যাপিকাদের সেই উত্তর পত্র পাঠিয়ে দেবেন।

পয়লা অক্টোবর থেকে ১৮ অক্টোবর পর্যন্ত হবে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর স্তরের ফাইনাল ইয়ারের পরীক্ষা। প্রত্যেকটি বিষয়ের এই ভাবেই পরীক্ষা নেওয়া হবে এবং এর জন্য বিষয়ভিত্তিক ২৪ ঘন্টা করে সময় থাকবে । স্নাতক স্তরের কোন বিষয়ের পরীক্ষা কোন দিন হবে তা নিয়ে বিস্তারিত সূচি ও বিশ্ববিদ্যালয় তরফে দেওয়া হবে। এবছর যেহেতু দ্রুত ফল প্রকাশ করতে হবে  যে কলেজে যে ছাত্র পড়েন সেই কলেজের অধ্যাপক অধ্যাপিকা রাই এবার উত্তরপত্রের মূল্যায়ন করবেন। অর্থাৎ স্নাতক স্তরে এতদিন যে রীতি ছিল অন্যান্য কলেজের অধ্যাপক অধ্যাপিকা উত্তরপত্র মূল্যায়ন করতেন এবছর তা হবে না। বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য সোনালী চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন " বর্তমান পরিস্থিতিতে কোনও ছাত্রছাত্রী কলেজে এসে পরীক্ষা দেওয়া সম্ভব নয়। তাই এই পদ্ধতিতেই পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কবে কোন বিষয়ের পরীক্ষা হবে তা নিয়ে বিস্তারিত সূচি দেওয়া হবে বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফেই।"

সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর গত সোমবার শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় উপাচার্য নিয়ে ভার্চুয়ালি বৈঠক করেন। সেই বৈঠকেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলি কে যে ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষা নিতে হবে সে বিষয়ে এক প্রকার স্পষ্ট করে দেওয়া হয়। তবে সেপ্টেম্বরে নয় নিতে হবে অক্টোবর মাসেই পরীক্ষা এবং ফল প্রকাশ করতে হবে অক্টোবর মাসের মধ্যেই। উপাচার্যদের সঙ্গে ভার্চুয়ালি বৈঠকে এমনটাই জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। তারপরই রাজ্যজুড়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলি তৎপরতা শুরু হয় পরীক্ষা নেওয়া নিয়ে। সোমবার এরপর থেকেই কিভাবে পরীক্ষা নেওয়া হবে তা নিয়ে একাধিক আলোচনা শুরু করে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হল। এদিন সাংবাদিক সম্মেলন করে পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্তের কথা জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সোনালী চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে মূল্যায়নের ক্ষেত্রে ইন্টারনাল অ্যাসেসমেন্ট এর উপর কোন নম্বর থাকছে না। পুরোটাই হবে প্রশ্ন পত্রের মাধ্যমে দেওয়া পরীক্ষার উপর।

স্নাতক স্তরের বিএ বিএসসি এবং বিকম এর ক্ষেত্রে ইতিমধ্যেই প্রশ্নপত্র তৈরি হয়েছিল। সেই প্রশ্নপত্রেই বিশ্ববিদ্যালয় স্নাতক স্তরের ফাইনাল ইয়ারের ছাত্র ছাত্রীদের পরীক্ষা নেবে বলে জানিয়েছেন উপাচার্য সোনালী চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায়। সিলেবাস প্রসঙ্গে উপাচার্য জানান " স্নাতক স্তরের বিএ বিএসসি বিকম এর সিলেবাস শেষ হয়ে গেছে।ফলতো পুরনো প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নিলে ছাত্র-ছাত্রীদের কোন সমস্যা হবে না। স্নাতকোত্তর স্তরের ক্ষেত্রে যতটুকু সিলেবাস শেষ হয়েছে ততটুকু সিলেবাসের ওপরেই পরীক্ষা নেওয়া হবে ছাত্র-ছাত্রীদের।" কিভাবে গোটা পরীক্ষা প্রক্রিয়াটি করা হবে?

বিশ্ববিদ্যালয় জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় যে প্রশ্নপত্র তৈরি করেছে সেই প্রশ্নপত্র বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষ দের পাঠিয়ে দেবে। অধ্যক্ষরা সেই প্রশ্নপত্র বিভিন্ন বিষয়ের অধ্যাপক দের কাছে পাঠাবেন। তারপর বিভিন্ন অধ্যাপকরা বা বিভাগীয় প্রধান রা সেই প্রশ্নপত্র ছাত্র-ছাত্রীদের ইমেইল বা হোয়াটসঅ্যাপ মারফত পাঠিয়ে দেবেন। ছাত্র-ছাত্রীরা সেই প্রশ্ন পাওয়ার পর দেওয়া হবে ২৪ ঘন্টা সময় সীমা। সেই সময়সীমার মধ্যে উত্তর লিখে তারপর স্ক্যান করে কলেজের অধ্যাপক অধ্যাপিকা দের কাছে পাঠিয়ে দেবেন। কেউ যদি ইমেইল বা হোয়াটসঅ্যাপ মারফত বা অনলাইনের মাধ্যমে পাঠাতে না পারেন তাহলে কলেজে গিয়েও অফলাইনে জমা দিতে পারবেন তাদের উত্তরপত্র। বিশ্ববিদ্যালয় জানিয়েছে গোটা প্রক্রিয়াটি ঠিক এই ভাবেই পরিচালনা হবে বিভিন্ন বিষয়ের পরীক্ষা নেওয়ার ক্ষেত্রে।

যেহেতু বাড়িতে বসেই ছাত্রছাত্রীরা পরীক্ষা দেবেন তাই এই পদ্ধতিকে ওপেন বুক পদ্ধতি হিসেবে মেনে নিতে চাইছেন উপাচার্য সোনালী চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন " ছাত্র-ছাত্রীরা বর্তমান পরিস্থিতিতে বাড়িতে বসে পরীক্ষা দেবেন। অনলাইনে প্রশ্নপত্র গেলেও তারা যেহেতু বাড়িতে বসেই পরীক্ষা দিচ্ছেন তাই একে ওপেন বুক পদ্ধতিতে পরীক্ষা বললে ভুল হবে না।" তবে ৩১ অক্টোবরের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রকাশ করবে বলেই এদিন জানিয়েছেন উপাচার্য সোনালী চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায়।

 সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by: Elina Datta
First published: September 2, 2020, 6:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर