শিক্ষক পদে চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সুখবর, ১ বছর পর উচ্চ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার কোর্টের

শিক্ষক পদে চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সুখবর, ১ বছর পর উচ্চ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার কোর্টের
Photo - File

৮০৩ জন চাকরিপ্রার্থীকে নিয়োগপত্র দিতে নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজের।

  • Share this:

ARNAB HAZRA

#কলকাতা: এক বছর পর আইনি জটমুক্ত উচ্চ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ। কর্মশিক্ষা এবং শারীরশিক্ষায় শিক্ষক নিয়োগে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করল হাইকোর্ট। রাজ্যের স্কুলগুলোতে পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত কর্মশিক্ষা ও শারীরশিক্ষা বিষয়ে শিক্ষক নিয়োগ করতে স্কুল সার্ভিস কমিশনকে নির্দেশ দিল আদালত। ৮০৩ জন চাকরিপ্রার্থীকে নিয়োগপত্র দিতে নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজের।

২০১৬সালে কর্মশিক্ষা ও শারীর শিক্ষা বিভাগে শূন্যপদে নিয়োগ প্রার্থীর বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। ১৬৯৩ পদে পরীক্ষায় বসে হাজার হাজার পরীক্ষার্থী।পরীক্ষার দু'বছর পর ২০১৮-তে মেধা তালিকা চূড়ান্ত হয়। ১৬৯৩ শিক্ষকের জন্য তালিকা তৈরি হয়। ২০১৯-এ শুরুতেই শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু হয়। প্রথম পর্যায়ে ৮৯৩ জন শিক্ষক নিয়োগও সম্পূর্ণ হয়ে যায়। বাকি ৮০৩ জনের নিয়োগ তালিকা প্রকাশ করে স্কুল সার্ভিস কমিশন।

জানুয়ারি, ২০১৯ কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন দিলরুবা আফরোজ সহ বেশ কয়েকজন চাকরি প্রার্থী। এরা  নিয়োগের ওপর অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ জারির আর্জি নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করে। অস্বচ্ছতার অভিযোগে প্রাথমিক মান্যতা দিয়ে জানুয়ারির শেষে ২০১৯ নিয়োগ প্রক্রিয়ার ওপর স্থগিতাদেশ জারি করে হাইকোর্ট।

১ নভেম্বর স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে মেধাতালিকা প্রকাশ করার নির্দেশ দেন বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্য। যদিও ১৩ই ডিসেম্বর পর্যন্ত নিয়োগ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন বিচারপতি ভট্টাচার্য। ১৩ই ডিসেম্বর ফের নিয়োগপ্রক্রিয়ার ওপর স্থগিতাদেশ চেয়ে মামলা হয় হাইকোর্টে।  ১৬ই ডিসেম্বর পর্যন্ত দেওয়া হয়  অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ। আজ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার সেই স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে নেয় বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজের। ৮০৩ জনের নিয়োগে আর কোনও আইনি বাধা রইল না।

নিয়োগ তালিকায় জায়গা পেয়েও এক বছর অপেক্ষা করা বিবেক মাইতির আইনজীবী আশীষ কুমার চৌধুরী জানান, " অস্বচ্ছতার অভিযোগ বারবার থমকে গেছে নিয়োগ প্রক্রিয়া। বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের নির্দেশে পুরোপুরি জটমুক্ত হল কর্মশিক্ষা ও শারীর শিক্ষার নিয়োগ।" যদিও দিলরুবা আফরোজ এর মামলা এখনও খারিজ করেনি হাইকোর্ট। জানুয়ারি মাসের শেষে ফের তাদের মামলার শুনানির সম্ভাবনা।

First published: 04:22:21 PM Dec 19, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर