Home /News /kolkata /
Calcutta High Court: দান কি জোর করে নেওয়া যায়? বিশ্বভারতীকে ভর্ৎসনা করে ঐতিহাসিক রায় আদালতের!

Calcutta High Court: দান কি জোর করে নেওয়া যায়? বিশ্বভারতীকে ভর্ৎসনা করে ঐতিহাসিক রায় আদালতের!

উল্লেখযোগ্য রায়

উল্লেখযোগ্য রায়

Calcutta High Court: কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অমৃতা সিনহা নির্দেশে জানান, দান বা অনুদান কখনই কারোও ইচ্ছা-অনিচ্ছার মতা ছাড়া হতে পারে না।

  • Share this:

#কলকাতা: ১ দিনের বেতন কেটে "অনুদান" আদায়ে হাইকোর্টে ভৎর্সিত বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কারোও ইচ্ছার বিরুদ্ধে দান বা অনুদান নয়। দান গ্রহণ করা উচিত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির ইচ্ছা অনুসারেই। মঙ্গলবার বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে হওয়া এক মামলার রায়ে এমনটাই জানাল কলকাতা হাইকোর্ট। বিচারপতি অমৃতা সিনহা নির্দেশে জানান, দান বা অনুদান কখনই কারোও ইচ্ছা-অনিচ্ছার মত ছাড়া হতে পারে না। উদ্দেশ্য ভাল হলেও লক্ষ্যে পৌঁছতে একতরফা ভাবে এই নিয়ে কখনই জোর করা যায় না। তা ছাড়া অনুদানের নামে কারোও আইনি অধিকারও কেড়ে নেওয়া উচিত নয়।

ঘূর্ণিঝড় আমফানের কারণে মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলে অর্থ দানের জন্য  গত বছর একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাধ্যতামূলক ভাবে সমস্ত অধ্যাপক, কর্মচারীদের এক দিনের বেতন ত্রাণ তহবিলে জমা দিতে হবে। ২০২০ সালের মে মাসের বেতন থেকে সেই টাকা কেটেও নেওয়া হয়। কর্তৃপক্ষের ওই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেন অর্থনীতির অধ্যাপক সুদীপ্ত ভট্টাচার্য। তাঁর আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য জানান, ইচ্ছা-অনিচ্ছার তোয়াক্কা না করেই জোর করে বেতন কেটে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ত্রাণের নামে আদতে একটা বার্তা দিতে চেয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। যা ইচ্ছে করতে পারবে তাঁরা। এই মনোভাবের তীব্র সমালোচনা করেছে হাইকোর্ট।

বিচারপতি অমৃতা সিনহা নির্দেশনামায় জানিয়েছেন, একতরফা ভাবে এই সিদ্ধান্ত বিশ্বভারতীর রাবিন্দ্রীক সংস্কৃতি ও কবিগুরুর ঐতিহ্যের পরিপন্থী। মামলাকারী ২০২১ সালে বিষয়টি আদালতের নজরে এনেছেন, তাই ওই অনুদানের নামে কাটা টাকা মামলাকারীকে ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেয়নি আদালত। আদালতের যুক্তি, যে হেতু টাকা তহবিলে জমা পড়ে গিয়েছে। ফলে বেআইনি হলেও গ্রহীতা এই টাকা ফেরত পাবেন না।  রায় দিতে গিয়ে দান ও অনুদানের মধ্যে পার্থক্য করতে গিয়ে বেজায় বিড়ম্বনায় পড়েন বিচারপতি সিনহা। তিনি রায়ে জানান, আদালত নির্ধারণ করতে চেয়েছে দান বা অনুদানের মধ্যে কোনওটি কি স্বেচ্ছায় হয়?

বিচারপতি অক্সফোর্ড এবং ব্ল্যাক'স ল নামের দুটি অভিধানের সাহায্য নেন। খোঁজা হয় বেতন এবং দান দুটি শব্দের সঠিক মানে। আর তাতে স্পষ্ট হয় বিশ্বভারতীর একচোখা সিদ্ধান্ত। মামলাকারীর আর এক আইনজীবী শামিম আহমেদ জানান,  "বিশ্ববিদ্যালয় কতৃর্পক্ষের যুক্তি ছিল কোনও কিছু নিয়ে উপাচার্য সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত, হাইকোর্ট তা খারিজ করেছে। আদালতের ব্যখা আইনি কোনও কিছুর ওপর উপাচার্য সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত, বেআইনি কিছুতে নয়।" ঘনিষ্ঠ মহলে মামলাকারী অধ্যাপক সুদীপ্ত ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, একদিনের বেতনের টাকা তিনিও চান মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলে তুলে দিতে। তবে সেই টাকা বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষকে আগে ফিরিয়ে দিতে হবে। পরে আইন মেনে তা তিনি তুলে দেবেন। তবে কী বেতনের টাকা ফেরত চেয়ে হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চে যাবেন মামলাকারী? উত্তরে হ্যাঁ বলেছেন মামলাকারীর ঘনিষ্ঠরা।

Published by:Suman Biswas
First published:

Tags: Calcutta High Court, Visva-Bharati University