বে"হাত"সরকারি চিকিৎসা, শিশুসাথী স্ক্যামে রিপোর্ট তলব ক্ষুব্ধ হাইকোর্টের

বে

জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের অন্তর্গত শিশুসাথী প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ।

  • Share this:

ARNAB HAZRA

#কলকাতা: বে"হাত"সরকারি চিকিৎসা,  ক্ষুব্ধ হাইকোর্ট। রিপোর্ট তলব প্রধান বিচারপতির। জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের অন্তর্গত শিশুসাথী প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ। দুর্নীতি আটকাতে, হাইকোর্টের হস্তক্ষেপ চেয়ে জনস্বার্থ মামলা।  পাশাপাশি সিবিআই তদন্ত চেয়ে আবেদন জনস্বার্থ মামলায়। দুর্নীতির অভিযোগ পেয়ে এক সপ্তাহের মধ্যে আলিপুরদুয়ার জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের রিপোর্ট তলব করেছে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ।

জনস্বার্থ মামলায় অভিযোগ শিশু সাথী প্রকল্পের রোগীদের,

১) সরকারি জায়গায় চিকিৎসা না করিয়ে বেসরকারি হাসপাতালে পাঠাচ্ছে স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা।

২) নিম্নমানের বেসরকারি হাসপাতালের কাছে পাঠাচ্ছে সরকারি আধিকারিকরা।

৪) ২০১৫-২০১৮ সালের মধ্যে পাহাড় লাগোয়া  ৪ জেলায় মৃত্যু হয়েছে অন্তত ১৪জন নাবালক-নাবালিকার।

২০১৫ সালে আলিপুরদুয়ারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে হার্টের অস্ত্রোপচারের জন্য ভর্তি করা হয় সদ্য মাধ্যমিক দেওয়া ছাত্রী জান্নাতুন ফিরদৌসীকে। সম্পূর্ণ স্বাভাবিক কিশোরী কিভাবে শিশু সাথী প্রকল্পের চিকিৎসার জেরে ১০০ শতাংশ বিকলাঙ্গ হয়ে যায় জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিকের কাছে জানতে চায় আদালত । জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের অধীনে শিশু সাথী প্রকল্প অনুযায়ী যেসব শিশুরা হৃদরোগে আক্রান্ত হবে তাদের চিকিৎসা করা হবে বিনামূল্যে।  সরকারের এই নিখরচায় চিকিৎসার সুযোগ নেয় কিছু বেসরকারি হাসপাতাল। ব্লক মেডিকেল অফিসাররা যেসব শিশুদের সনাক্ত করে আনেন তাদের সকলকে অস্ত্রোপচার করিয়ে দেওয়ার নাম করে শিলিগুড়ির একটি বেসরকারি  হাসপাতলের বিরুদ্ধে সরকারি টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ ওঠে । অভিযোগ ২০১৫-২০১৮ সালের মধ্যে রাজ্যের চার জেলা আলিপুরদুয়ার, দার্জিলিং, কালিম্পং ও জলপাইগুড়িতে মোট ১৪ জন শিশু মারা যায়। এরা প্রত্যেকেই শিশু সাথী প্রকল্পের আওতায় অস্ত্রোপচার করিয়েছিল।

বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন মাদারীহাটের বাসিন্দা আমজাদ আলি। তার অভিযোগ আপত্তি সত্তেও তার মেয়ে জনাতন ফিরদৌসির অস্ত্রোপচার করা হয় ওই নার্সিংহোমে। তারপর তার মেয়ে অন্ধ ও বিকলাঙ্গ হয়ে যায়। পরে এসএসকেএমে এসে পরীক্ষার পর তিনি জানতে পারেন অস্ত্রোপচারের সময় এনাস্থেশিয়ার প্রভাব বেশি হয়ে যাওয়ায় মেয়ের মস্তিষ্ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে । বর্তমানে মেয়েটি বীরপাড়া হাসপাতালে আছে। কিন্তু তার চিকিৎসা হচ্ছে না বলেও অভিযোগ। অবিলম্বে তাঁর চিকিৎসা শুরু করার নির্দেশও দিয়েছে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ।

First published: 09:18:49 PM Dec 12, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर