কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ফের শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে জোর ধাক্কা রাজ্যের, বাম আমলে স্বজনপোষণের অভিযোগ ওড়াল হাইকোর্ট

ফের শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে জোর ধাক্কা রাজ্যের, বাম আমলে স্বজনপোষণের অভিযোগ ওড়াল হাইকোর্ট

এদিন বাম আমলের নিয়োগকে স্বীকৃতি দিয়ে ৩০ দিনের মধ্যে সফল প্রার্থীদের নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছে আদালত ৷

  • Share this:

#কলকাতা: আরও এক শিক্ষক নিয়োগ মামলায় জোর ধাক্কা খেল রাজ্য সরকার ৷ ২০০৯ সালের প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ মামলায় স্বজনপোষনের অভিযোগ ওড়াল হাইকোর্ট ৷ ৩০ দিনের মধ্যে সফল প্রার্থীদের নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছে আদালত ৷

এদিন বাম আমলের নিয়োগকে স্বীকৃতি দিয়ে ২০০৯ সালে মালদহ ও উত্তর ২৪ পরগণার সফল কর্মপ্রার্থীদের তালিকা ১৫ দিনের মধ্যে প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী ৷ তালিকা প্রকাশের পরের ১৫ দিনের মধ্যেই নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করতেই হবে বলে জানিয়ে দিয়েছে আদালত ৷  কিন্তু শূন্যপদ কই?

কয়েক মাসের মধ্যে নির্বাচন ৷ তার আগে একের পর এক শিক্ষক নিয়োগ মামলায় ধাক্কা খাচ্ছে রাজ্য সরকার ৷ ২০১৪ সালের টেট মামলার পর ২০০৯ সালের  প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ মামলাতেও মুখ পুড়ল সংসদের ৷

২০০৯ সালে তৎকালীন বাম সরকার প্রাথমিকের নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি জারি করে। ২০১০-এ বিভিন্ন জেলায় প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের মাধ্যমে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে পরীক্ষাও সম্পূর্ণ হয়। ২০১১ সালে তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসার পরেই বাম আমলের প্রাথমিকে নিয়োগ প্রক্রিয়া বাতিল করে দেয়। তৃণমূল সরকারের যুক্তি ছিল,মালদা,উত্তর ও দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা এবং হাওড়া এই চার জেলায় নিয়োগ প্রক্রিয়ায় স্বজনপোষণ হয়েছে। এরপর ২০১৪ সালে নতুন করে পরীক্ষা নেওয়া হয়, যে পরীক্ষার মেধা তালিকা এখনও দিনের আলো দেখতে পায়নি। তার মধ্যেই ২০০৯ সালের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী মেধা তালিকা প্রকাশ এবং প্রাথমিকে নিয়োগের জন্য তিরিশ দিনের সময়সীমা দিল কলকাতা হাইকোর্ট। এদিন বাম আমলের নিয়োগকে ক্লিনচিট দেন বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী ৷ আগামী ১৫ দিনের মধ্যে মালদা,উত্তর চব্বিশ পরগনার মেধা তালিকা প্রকাশ করতে হবে ৷ পরের ১৫ দিনের মধ্যে প্রাথমিকে নিয়োগ সম্পূর্ণ করতে হবে ৷ এখন শূন্যপদ না থাকলে নতুন করে শূন্যপদ তৈরি করতে হবে বলে নির্দেশ বিচারপতির ৷ এই মুহূর্তে হাওড়ায় নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন। দক্ষিণ চব্বিশ পরগনায় নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে মামলা চলছে আদালতে। উত্তর চব্বিশ পরগনায় ২হাজার ৬০০ পদ ও মালদাতেও এক হাজার ৩৩১ পদে নিয়োগের নির্দেশ আদালতের ৷ একেই ২০১৪ সালের পরীক্ষার পর ছ’বছরেও প্রাথমিকে নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ করতে পারেনি রাজ্য। তার উপর হাইকোর্টের শুক্রবারের এই নির্দেশ ভোটের আগে রাজ্যের কাছে বড়সড় ধাক্কা বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

অর্ণব হাজরা

Published by: Elina Datta
First published: January 8, 2021, 5:26 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर