Post Poll Violence: কাঁকুড়গাছির নিহত বিজেপি কর্মীর দেহের ডিএনএ পরীক্ষা, নির্দেশ হাইকোর্টের

কলকাতা হাইকোর্ট৷

কলকাতা হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চের শুনানির বড় অংশ জুড়ে এদিন ছিল কাঁকুড়গাছির নিহত বিজেপি কর্মী অভিজিৎ সরকারের দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত ও সেই সংক্রান্ত জটিলতা (Post Poll Violence)।

  • Share this:

#কলকাতা: রাজ্যে ভোট পরবর্তী 'হিংসায়' চূড়ান্ত রিপোর্ট কমিশনের। জাতীয় মানবাধিকার কমিশন নিযুক্ত ৭ সদস্যের কমিটি মঙ্গলবার হাইকোর্টে ৫ বিচারপতির বেঞ্চে অশান্তির অভিযোগের রিপোর্ট পেশ করে। মুখবন্ধ দিস্তা দিস্তা পাতার বান্ডিলে দেওয়া হয় রিপোর্ট। ৫ বিচারপতির জন্য আলাদা বান্ডিলে দেওয়া হয় রিপোর্ট।

কলকাতা হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চের শুনানির বড় অংশ জুড়ে এদিন  ছিল কাঁকুড়গাছির নিহত বিজেপি কর্মী অভিজিৎ সরকারের দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত ও সেই সংক্রান্ত জটিলতা। অভিজিৎ পরিবারের অভিযোগ, এনআরএস হাসপাতালে সঠিক ভাবে সংরক্ষণ করা হয়নি দেহ। হাসপাতালে যে দেহ অভিজিৎ সরকারের বলে দেওয়া হয় তা পরিবারের সদস্যরা সনাক্ত করতে পারেনি। দেহ সনাক্তকরণ না হওয়ায় দেহ সৎকারে অনিচ্ছুক পরিবার।

পরিবারের আবেদন মেনে বৃহত্তর বেঞ্চ অভিজিৎ সরকারের দেহের ডিএনএ টেস্ট করার নির্দেশ জারি করেছে। আলিপুর কমান্ড হাসপাতালে ইতিমধ্যেই অভিজিৎ সরকারের দেহের নমুনা ডিএনএ পরীক্ষার জন্য নেওয়া সম্পূর্ণ হয়েছে বলে আদালতে জানান কেন্দ্রের আইনজীবী অতিরিক্ত সলিসিটর জেনারেল ওয়াই জে দস্তুর। কমান্ড হাসপাতালেই ডিএনএ পরীক্ষার জন্য পরিবারের সদস্যদের নমুনা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।নমুনা পাওয়ার পর কমান্ড হাসপাতাল তা পাঠাবে  সেন্ট্রাল ফরেন্সিক সায়েন্স ল্যাবরেটরি বা সিএফএসএল ডিরেক্টর কাছে। নমুনা পাওয়ার ৭ দিনের মধ্যে ডিএনএ পরীক্ষার রিপোর্ট মুখবন্ধ খামে হাইকোর্টে পাঠাবেন সিএফএসএল ডিরেক্টর।

এর আগে ভোট পরবর্তী অশান্তি নিয়ে প্রাথমিক অনুসন্ধান রিপোর্ট হাইকোর্টে জমা দেয় জাতীয় মানবাধিকার কমিশন নিযুক্ত কমিটি। সেই রিপোর্ট খতিয়ে দেখার পর ৭ দফা নির্দেশিকা জারি করে আদালত। এই নির্দেশের পুনর্বিবেচনা চায় রাজ্য সরকার। সেই পুনর্বিবেচনা আবেদনের শুনানি মঙ্গলবার করেনি বৃহত্তর বেঞ্চ। যাদবপুরে কমিশন নিযুক্ত কমিটির কাজে বাধাদানের অভিযোগ করা হয় ২ জুলাই। তার প্রেক্ষিতে শো-কজ করা হয় যাদবপুরের দায়িত্বপ্রাপ্ত আইপিএস রশিদ মুনির খানকে। সেই মোতাবেক শো-কজের  উত্তর দিলেন যাদবপুর অঞ্চলের দায়িত্বপ্রাপ্ত ডেপুটি কমিশনার। কমিশন নিযুক্ত কমিটির চূড়ান্ত রিপোর্ট রাজ্য, কেন্দ্র, নির্বাচন কমিশন ও সবপক্ষকে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে বৃহত্তর বেঞ্চ। ই-মেইল করে রিপোর্ট পাঠাতে নির্দেশ দিয়েছে আদালত। রিপোর্ট সবপক্ষ পাওয়ার পর রাজ্যের ভোট পরবর্তী অশান্তি মামলার পূর্ণাঙ্গ শুনানির দিন নির্দিষ্ট হয়েছে ২২ জুলাই।

Published by:Debamoy Ghosh
First published: