কাশ্মীরের পর এবার উত্তর-পূর্ব ভারত, পর্যটনের কপাল পুড়ল বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা

কাশ্মীরের পর এবার উত্তর-পূর্ব ভারত, পর্যটনের কপাল পুড়ল বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা
  • Share this:

Abir Ghoshal

#দিঘা: দিঘায় শিল্প সন্মেলন শেষে হোটেলে ফিরে পর্যটন নিয়ে একটা আলোচনায় বসেছিলেন রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের ট্যুর অপারেটররা। যদিও শুক্রবার সকালের সেই আলোচনা শেষ করে উঠতে পারলেন না কেউই। কারণ কয়েক মিনিট অন্তর অন্তর যেভাবে প্রত্যেকের ফোন বাজতে শুরু করেছে তাতে সেই আলোচনা আর চালানো যায়নি। কিন্তু কিসের ফোন? নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে অসমের বিভিন্ন প্রান্তে আগুন জ্বলতে শুরু করেছে। আর সেই অশান্তির আঁচে আটকে পড়েছেন বহু পর্যটক।

একাধিক জায়গায় বাস, রেল স্টেশনে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। ফলে অসম ও মেঘালয়ের একাধিক জায়গায় আটকে আছেন বহু মানুষ। তারাই সাহায্য চেয়ে বারবার ফোন করে চলেছেন ট্যুর অপারেটরদের। “গৌহাটিতে আমার অফিস বন্ধ রাখতে হয়েছে। আমার সংস্থার যে কর্মীরা রয়েছেন তারা অবধি বেরোতে পারছেন না।” জানাচ্ছেন ইন্ডিয়ান ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন চেয়ারম্যান দেবজিৎ দত্ত। ইতিমধ্যেই বহু ভিন রাজ্যের পর্যটক ও বিদেশি পর্যটকরা তাঁদের নিউ ইয়ারের বুকিং বাতিল করে দিয়েছেন। ট্যুর অপারেটরদের কেউ কেউ বলছেন, জানুয়ারি মাস পর্যন্ত ব্যবসা করা যায় ৷ সেটা পুরোটাই নষ্ট হয়ে গেল।

মোবাইল পরিষেবায় সংযোগ পেতে অসুবিধা হচ্ছে বহু পর্যটকের। কাজিরাঙা থেকে গৌহাটি পর্যন্ত আসার গাড়ি নেই। অনেক ট্যুর অপারেটররা চেষ্টা করেছিলেন কোনওভাবে গাড়ি ব্যবস্থা করে যদি কোচবিহার বা নিউ আলিপুরদুয়ার পর্যন্ত পর্যটকদের আনতে পারা যায়। সেই ব্যবস্থাও করে উঠতে পারছেন তারা। কারণ চুক্তি থাকলেও অসমের রাস্তায় গাড়ি বার করার সাহস দেখাতে পারছেন না কোনও মালিক। এমনকি গাড়ি চালাতে রাজি নয় কোনও চালকও। ফলে বৈঠক ছেড়ে পর্যটক ফেরানো নিয়েই চিন্তিত হয়ে পড়েন ট্যুর অপারেটররা। অন্যদিকে শুক্রবারও বাতিল করা হয়েছে একাধিক দূরপাল্লার ট্রেন। যাত্রা সংক্ষিপ্ত করে দেওয়া হয়েছে বহু ট্রেনের। ফলে আটকে পড়া পর্যটকরা ফিরতে পারছেন না।

শুক্রবার রেলের যা অবস্থা -

শিয়ালদহ-আগরতলা কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস নিউ আলিপুরদুয়ার পর্যন্ত যাবে।

শিলচর-শিয়ালদহ কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস শিলচরের বদলে আজ নিউ আলিপুরদুয়ার থেকে আসবে।

হাওড়া-গুয়াহাটি সরাইঘাট এক্সপ্রেস যা গতকাল হাওড়া ছেড়েছিল তা রঙ্গিয়া অবধি যাবে।

গুয়াহাটি-হাওড়া সরাইঘাট এক্সপ্রেস রঙ্গিয়া থেকে আজ হাওড়ার জন্য ছাড়বে।

বেঙ্গালুরু-হাওড়া-আগরতলা হামসফর এক্সপ্রেস আজ বাতিল।

দিল্লি-ডিবরুগড ব্রহ্মপুত্র মেল আজ বাতিল।

হাওড়া ডিবরুগড় কামরুপ এক্সপ্রেস আজ বাতিল।

শিয়ালদহ-আগরতলা কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস আজ বাতিল করা হল।

এছাড়া বাগডোগরা ও কলকাতা থেকে ছেড়ে যাওয়া বিভিন্ন সংস্থার বিমানও বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। এক নামী পর্যটন সংস্থার কর্ণধার অর্পণ মিত্রের কথায়, “নিজেকেই অসহায় লাগছে। না পারছি গাড়ি জোগাড় করতে না পারছি ট্রেন বা ফ্লাইটের ব্যবস্থা করতে। ক্ষতি যা হওয়ার তো হয়ে গিয়েছে। কিন্তু মানুষগুলিকে তো ফেরাতে হবে। সেই রাস্তা বার করতে হবে।”

ELl-XfzWkAAh9Zg

আগামী ১৫ তারিখ থেকে ট্যুর শুরু হওয়ার কথা আছে আইআরসিটিসি-র। বহু লোকের বুকিং ইতিমধ্যেই সেরে ফেলেছেন তারা। উত্তর-পূর্ব ভারতে তারা পর্যটকদের নিয়ে যান মুলত বিমানে। কিন্তু একাধিক সংস্থা বিমান বাতিল করে দেওয়ায় ট্যুর করানো আদৌ সম্ভব হবে কিনা তা নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন আইআরসিটিসি’র গ্রুপ জেনারেল ম্যানেজার দেবাশিষ চন্দ্র।

চলতি বছরেই অসমে বন্যার জন্য বাতিল হয়েছে একাধিক ট্যুর। কাশ্মীর পরিস্থিতির জেরে ট্যুর করানো যাচ্ছে না। ফলে পর্যটকদের আগ্রহ ছিল উত্তর-পূর্ব ভারত নিয়ে। সেখানেও এই পরিস্থিতি তৈরি হওয়ায় চিন্তিত প্রত্যেকেই।

First published: 11:34:35 AM Dec 13, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर