EC bans Mamata Banerjee: মমতার প্রচারে নিষেধাজ্ঞার পরেই সোশ্যালে প্রতিবাদের ঝড়! কমিশনের নিন্দায় টুইটারে ট্রেন্ডিং #BlackDayForDemocracy

EC bans Mamata Banerjee: মমতার প্রচারে নিষেধাজ্ঞার পরেই সোশ্যালে প্রতিবাদের ঝড়! কমিশনের নিন্দায় টুইটারে ট্রেন্ডিং #BlackDayForDemocracy

কমিশনের নিন্দায় টুইটারে ট্রেন্ডিং #BlackDayForDemocracy

তৃণমূলের কর্মী সমর্থকরা কমিশনের সিদ্ধান্তের জন্য ১২ এপ্রিল দিনটিকে গণতন্ত্রের কালো দিন হিসেবে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিন্দা করেছেন। #BlackDayForDemocracy ব্যবহার করে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছেন অনেকেই। এই মুহূর্তে এই হ্যাশট্যাগ টুইটারে ট্রেন্ডিং।

  • Share this:

    #কলকাতা: তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের (Mamata Banerjee) প্রচারে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (Election Commission)। অভিযোগ, ভোট প্রচারে আপত্তিকর মন্তব্য় করে আদর্শ আচরণ বিধি ভাঙছেন মমতা। ১২ এপ্রিল রাত ৮টা থেকে ১৩ এপ্রিল রাত ৮টা পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা জারি থাকবে। কমিশনের সিদ্ধান্তে প্রতিবাদ জানাতে আজ ধর্নায় বসেছেন মমতা। পাশাপাশি তৃণমূলের কর্মী সমর্থকরা কমিশনের সিদ্ধান্তের জন্য ১২ এপ্রিল দিনটিকে গণতন্ত্রের কালো দিন হিসেবে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিন্দা করেছেন। #BlackDayForDemocracy ব্যবহার করে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছেন অনেকেই। এই মুহূর্তে এই হ্যাশট্যাগ টুইটারে ট্রেন্ডিং।

    শুধু টুইটারেই #BlackDayForDemocracy ব্যবহার করে ২৩ হাজারের বেশি পোস্ট হয়েছে। তৃণমূলের তারকা প্রার্থী তীব্র নিন্দা জানিয়ে টুইট করেছেন, "যখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য আর কোনও উত্তর নেই। তখন বিজেপি এটাই করতে পারবে। নির্বাচন কমিশনকেও লজ্জা এমন অগণতান্ত্রিক পদক্ষেপ করার জন্য।"

    ডেরেক ও ব্রায়েন ভিডিওর মাধ্যমে বলেছেন, "এটি ভারতের গণতন্ত্রের জন্য কালো দিন। আমাদের হারাতে পারছেন না বলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হচ্ছে।" তারকা প্রার্থী সোহম চক্রবর্তী বলছেন, "নির্বাচন কমিশন আমাদের কাজটাকে আরও সহজ করে দিল। আমাদের আর ওদের এই পক্ষপাতিত্ব প্রমাণ করতে হবে না।"

    শীতলকুচি ঘটনা নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন বিজেপির তিন নেতা দিলীপ ঘোষ, রাহুল সিনহা এবং সায়ন্তন বসু। দিলীপ ঘোষ হুমকির সুরে বলেছেন আরও জায়গায় শীতলকুচির মতো ঘটনা ঘটবে। এই মন্তব্যের বিরোধিতা করে তৃণমূল ও সংযুক্ত মোর্চা কমিশনে অভিযোগ জানালেও দিলীপ ঘোষ ও অন্যান্য দুই নেতার বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ করেনি কমিশন। এই কারণগুলিকে সামনে রেখেই তৃণমূল নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলছে।

    এই ট্রেন্ডিং হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে তৃণমূলের নুসরত জাহান, মনোজ তিওয়ারি, ব্রাত্য বসু, সুজিত বসু, ফিরহাদ হাকিম সহ আরও অনেকে পোস্ট করেছেন। তবে শুধু তাঁরাই নয়। সাধারণ মানুষেরও অনেকে এই হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করেছেন। প্রসঙ্গত কমিশনের এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আজ একাই ধর্নায় বসছেন মমতা। দলের অন্য নেতা মন্ত্রীরা কেউ থাকছেন না।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: