নজরে পুরভোট, তৃণমূলের "প্রাক্তন"দের কাছে বিজেপির ফোন 

নজরে পুরভোট, তৃণমূলের

লক্ষ্য শাসক দলের বিক্ষুব্ধ, অন্য দলের প্রাক্তন নেতারা ৷ পুর ভোট যত এগোচ্ছে উত্তর থেকে দক্ষিণ এভাবেই বিজেপির তরফে নানা ফোন আসছে ।

  • Share this:

#কলকাতা: শাসক দলের বিক্ষুব্ধ ,  আর অন্য দলের "পোটেনশিয়াল " লোকজনদের প্রার্থী করতে ময়দানে নেমেছে বিজেপি। দক্ষিণ কলকাতার এক প্রয়াত তৃণমূল কংগ্রেস নেতার মেয়েক দিন পনেরো আগে ফোনে এক অচেনা গলা বলে "আপনার বাবা এই ওয়ার্ডে একটা নাম, ওনার কাজ সম্পূর্ণ করতে আমাদের দলে আসুন। বাকী আমরা সব সামলে নেব। "

দক্ষিণ শহরতলীর এক প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলর গতবার টিকিট পাননি,  এবছর তার কাছে ফোন "আর কত দিন ঘরে বসে থাকবেন,  মানুষ এখনও আপনাকে চায় । আমাদের হয়ে দাঁড়ান "।  এতো গেল তৃণমূল। দক্ষিণ কলকাতার এক সিপিআইএম কাউন্সিলরের স্বামী সদ্য বিজেপিতে নাম লিখিয়েছেন। তার ফোনে অচেনা এক গলা," আপনার স্ত্রীকে বোঝান যে দলের ভবিষ্যৎ নেই সেই দল কেন,  আমাদের দল করতে বলুন। বিরাট জায়গায় পৌছে দেব। "

পুর ভোট যত এগোচ্ছে উত্তর থেকে দক্ষিণ এভাবেই বিজেপির তরফে নানা ফোন আসছে ।  ফোন পেয়েছেন,  এমন এক তৃণমূল নেতার কথায়, "অসামান্য  হোমওয়ার্ক,  ঠিকুজি জেনে বসে আছে "। যদিও এতকিছুর পরেও কলকাতায় আপাতত ৫ থেকে ৫০ হওয়াটাই বিজেপির লক্ষ্য।

বিজেপির দাবি,  প্রথম দফায় একবার ৫০ ছুঁলেই কলকাতা  তৃণমূলে ভাঙ্গন ধরবে। ২০২১ র বিজেপির  টার্গেট বাংলার লক্ষ্যে কলকাতা পুর ভোটকে পাখির চোখ করেছে গেরুয়া শিবির। ইতিমধ্যেই কলকাতা পুরভোটকে মাথায় রেখে ১৪ জনের একটি কমিটি ও তৈরী করেছে বিজেপি। তবে অলীক স্বপ্নে না ভেসে আপাতত ধাপে ধাপে এগোতে চাইছে গেরুয়া শিবির। ২০১৯ র লোকসভা নির্বাচনে যে ৪৭ ওয়ার্ড ইতিমধ্যেই জিতেছিলো বিজেপি,  পুর ভোটে সেই ওয়ার্ডগুলো জেতা বিজেপি র লক্ষ্য। যদিও লোকসভা নির্বাচনের ফল কে গুরূর্ত্ব দিতে নারাজ রাজ্যের শাসক দল। তাদের মতে কলকাতা পুরসভা অনেক নাগরিক পরিষেবা দিয়েছে। সেখানে বিজেপি বা নরেন্দ্র মোদীর মুখ অচল,  রাজ্য ভোটে একটাই অস্ত্র মমতার মুখ।

শুধু কথার কথা নয়,  বিজেপি রুখতে, নিবিড় জনসংযোগ, কি কি পরিষেবা দেওয়া হল তার প্রচার, আর মমতার মুখ কে সম্বল করেই ২০২০ র ভোট বৈতরণী পেড়োতে চাইছে রাজ্য শাসক দল।। দলের বিক্ষুব্ধদের কাছে বিজেপির ফোন নিয়ে মেয়র ফিরহাদ হাকিমের প্রতিক্রিয়া " একটা দেউলিয়া দল,  এখানে চলবে না।  এখানে আমরাই থাকব ৷"

SOURAV GUHA

First published: March 8, 2020, 2:36 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर