‘দিদিকে বলো'র নকল করতে গিয়ে ধাক্কা খেল বিজেপি, কাজে এল না দিলীপের টোটকা

‘দিদিকে বলো'র নকল করতে গিয়ে ধাক্কা খেল বিজেপি, কাজে এল না দিলীপের টোটকা

অচিরেই ভুল ভাঙে নেতাদের। বিজেপি নেতারা বুঝতে পারেন, চালে ভুল হয়ে গিয়েছে ৷

  • Share this:

ARUP DUTTA

#কলকাতা: মুখ ফস্কে বলে ফেলে, এখন ''সামাল সামাল" অবস্থা বিজেপির। গত শনিবার, পুরভোট নিয়ে দলের সাংগঠনিক বৈঠকে পুরভোটে মানুষের প্রত্যাশার হদিশ পেতে টোল ফ্রি নম্বর চালু করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। ঘটা করে সাংবাদিকদের কাছে সে কথা জানান দিলীপ। এরপরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় রাজ্য বিজেপির এই পরিকল্পনা নিয়ে রীতিমত শোরগোল পড়ে যায়।

দলের একাংশের মতে, অত্যুৎসাহী বিজেপি মনোভাবাপন্ন কিছু ব্যক্তি সোশ্যাল মিডিয়ায়, মমতার ''দিদিকে বলো"র সঙ্গে মিল রেখে রাজ্য বৈঠকের এই পরিকল্পনার পোশাকী নামও ঠিক করে ফেলে। একাধিক সোশ্যাল মিডিয়ায় কার্যত ভাইরাল হয়ে ঘুরে বেড়াতে শুরু করে পুরভোটের আগে মানুষের মন বুঝতে দিলীপের এই নতুন টোটকা, "বিজেপিকে বলো"।  কিন্তু, অচিরেই  ভুল ভাঙে নেতাদের।  বিজেপি নেতারা বুঝতে পারেন, চালে ভুল হয়ে গিয়েছে।

আসলে, ফোন ট্যাপিং ও প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে, এই টোল ফ্রি নম্বরের মাধ্যমে বিজেপি মনোভাবাপন্ন অংশের মনের কথা আর সব তথ্য হাতিয়ে নিতেই তৃণমূলের ভোট কুশলী পিকের এই নয়া কৌশল। যদিও,  দলের আর একটি অংশের দাবি, বৈঠকে কেউ কেউ এই প্রস্তাব দিলেও, সেটি নিয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়নি। এটা দিলীপ ঘোষের নিজের মত হতে পারে। এলাকার মানুষ তাঁদের সমস্যা ফোন করে বিজেপিকে জানাবে আর তার ভিত্তিতে ইস্যু ভিত্তিক আন্দোলন করে পুরভোটে মানুষের আস্থা অর্জন করা রীতিমত আকাশ কুসুম ভাবনা। এতে, সস্তা প্রচার পাওয়া যেতে পারে, কিন্তু মানুষের আস্থা অর্জন সম্ভব নয়। এটা বুঝেই এখন রণেভঙ্গ দিয়েছেন দিলীপ ঘোষরা।

তবে, ঘটনা যাইহোক না কেন, রাজ্য বিজেপিকে এখন কার্যত বিজ্ঞাপন দিয়ে দল ও সমর্থকদের কাছে বার্তা পাঠাতে হচ্ছে, এটা জাল। এ ধরনের কোন পরিকল্পনা করেনি রাজ্য বিজেপি। সবটাই তৃণমূলের চাল বলেও দায় ঝেড়ে ফেলতেও সেই দিলীপকেই ঢাল করেছে বিজেপি।

First published: February 20, 2020, 8:09 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर