'সেই' সময়ের ভিডিও প্রকাশ্যে আনুক কমিশন, পালটা চাপের পথে বিজেপি

'সেই' সময়ের ভিডিও প্রকাশ্যে আনুক কমিশন, পালটা চাপের পথে বিজেপি

মমতার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বেশ কয়েকজনকে প্রত্যক্ষদর্শী দাবি করে তাঁদের বক্তব্য সোশ্যাল মিডিয়াতে তুলেও দেয় গেরুয়া শিবির।

মমতার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বেশ কয়েকজনকে প্রত্যক্ষদর্শী দাবি করে তাঁদের বক্তব্য সোশ্যাল মিডিয়াতে তুলেও দেয় গেরুয়া শিবির।

  • Share this:

    #কলকাতা: নন্দীগ্রামের বিরুলিয়া বাজারে চোট পাওয়ার পরই চক্রান্তের অভিযোগ তুলেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু মমতার সেই অভিযোগ শুরুতেই খণ্ডন করে দিয়েছিলেন বিজেপির এ রাজ্যের পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়। দাবি তুলেছিলেন সিবিআই তদন্তের। শুধু তাই নয়, মমতার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বেশ কয়েকজনকে প্রত্যক্ষদর্শী দাবি করে তাঁদের বক্তব্য সোশ্যাল মিডিয়াতে তুলেও দেয় গেরুয়া শিবির। যেখানে কারও ধাক্কা মারার অভিযোগ খণ্ডন করা হয়। কিন্তু তৃণমূল তা মানতে নারাজ। বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানানোর পর মমতার উপর আঘাতের পূর্বাভাস ছিল বলে দাবি করেছেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। শাসক দলের পাল্টা এবার কমিশনে গেল গেরুয়া শিবিরও। আর ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্তের দাবি তোলে তাঁরা।

    এদিন কমিশনে যান বিজেপি নেতা সব্যসাচী দত্ত ও শিশির বাজোরিয়া। কমিশনের অফিসের বাইরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে সব্যসাচী অভিযোগ করেন, 'ঘটনার ভিডিও প্রকাশ্যে আনুক নির্বাচন কমিশন। নির্বাচন কমিশনকে কালিমালিপ্ত করার চেষ্টা চলছে। ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত হোক।' গতকালের ঘটনার পরপরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেছিলেন, কোনও পুলিশ ছিল না। এসপি, ডিএম-রা ছিলেন না। যদিও মমতার এই অভিযোগ নিয়ে পালটা প্রশ্ন তুলেছে বিজেপি। সব্যসাচীর কথায়, 'মুখ্যমন্ত্রী কীভাবে বলছেন, এসপি ছিল না? প্রার্থীর সঙ্গে ডিএম, এসপি থাকে না, সেটা কি মুখ্যমন্ত্রী জানেন না?মুখ্যমন্ত্রী যে এখন প্রার্থী, সেটা ভুলে গেলে চলবে না।' অপরদিকে, শিশির বাজোরিয়ার দাবি, 'মুখ্যমন্ত্রীর কনভয়ে অ্যাম্বুল্য়ান্স, চিকিৎসক থাকার কথা। কেন তা ছিল না? আমরা অনুরোধ করব, মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা নিন। বাংলার মানুষের নিরাপত্তা নেই, কিন্তু ওনার থাকা উচিৎ।'

    বস্তুত বুধবারের ঘটনার পর থেকেই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে বঙ্গ রাজনীতি। দিকে-দিকে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। হাইভোল্টেজ নন্দীগ্রামে এরই মাঝে তৃণমূল-বিজেপির মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে। শুধু তাই নয়, গতকাল মুখ্যমন্ত্রীকে দেখতে এসএসকেএম হাসপাতালে এলে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কেও 'গো ব্যাক' স্লোগান শুনতে হয়েছে।

    এই পরিস্থিতিতে এদিন নির্বাচন কমিশনে গিয়ে পার্থ চট্টোপাধ্যায়, ডেরেক ও ব্রায়েনরা অভিযোগ করেন, 'নির্বাচনী নির্ঘণ্ট প্রকাশের পরই রাজ্য প্রশাসনের দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের সরিয়ে দিয়েছে কমিশন। রাজ্য পুলিশের ডিজি'কে সরানোর পরদিনই এই হামলা হল। ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত হোক।' এমনকী এক বিজেপি সাংসদ ফেসবুকে আগে থেকেই মমতার উপর হামলার পূর্বাভাস দিয়েছিলেন বলেও অভিযোগ করেন ডেরেক।

    প্রসঙ্গত বুধবার সন্ধ্যায় নন্দীগ্রামের বিরুলিয়া বাজারে গাড়ির দরজা খুলে দাঁড়িয়ে স্থানীয় মানুষজনের সঙ্গে কথা বলছিলেন মমতা। তাঁর অভিযোগ, সেই সময় অতর্কিতেই চার পাঁচজন তাঁর পায়ের ওপর দরজার ধাক্কা দেন। তাতেই আহত হন তিনি। তাঁকে গ্রিন করিডোর করে কলকাতায় নিয়ে আসা হয়। বর্তমানে পায়ের পাতায় চিড় নিয়ে এসএসকেএম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি। যদিও এদিন সকালেই বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, মমতা নাটক করছে। এদিন কমিশনে গিয়ে কার্যত সেই দাবিই করলেন সব্যসাচী দত্ত, শিশির বাজোরিয়ারা।

    Published by:Suman Biswas
    First published:
    0

    লেটেস্ট খবর