মাহালি দম্পতির তৃণমূলে যোগদানের পর সাবধানী বিজেপি

অমিত শাহের কৌশল তারই দেখানো পথে হাইজ্যাক করে নিল তৃণমূল কংগ্রেস। বিজেপি সভাপতিকে ভোজ খাইয়ে রাতারাতি তৃণমূলে যোগ মাহালি দস্পতির।

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:May 03, 2017 07:44 PM IST
মাহালি দম্পতির তৃণমূলে যোগদানের পর সাবধানী বিজেপি
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:May 03, 2017 07:44 PM IST

#কলকাতা: অমিত শাহের কৌশল তারই দেখানো পথে হাইজ্যাক করে নিল তৃণমূল কংগ্রেস। বিজেপি সভাপতিকে ভোজ খাইয়ে রাতারাতি তৃণমূলে যোগ মাহালি দস্পতির। অস্বস্তি এড়াতে অমিত শাহের কাছেই দরবার রাজ্য বিজেপির। নালিশ জানানো হল রাজ্যপালের কাছেও। সর্বভারতীয় সভাপতির ব্যর্থতার অভিযোগ উঠতে পারে। তাই মাঠে নামানো হল কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকেও।

প্রধানমন্ত্রী নিজে নির্দেশ দিয়েছিলেন। বাংলায় বিজেপি সরকার গড়তে সংগঠন মজবুত করতে নামেন স্বয়ং সর্বভারতীয় সভাপতি। নকশালবাড়িতে দলিতমাহালি পরিবারের বাড়িতে দুপুরের খাওয়া সেরে সেই কাজটাই শুরু করতে চেয়েছিলেন অমিত শাহ-দিলীপ ঘোষরা।

বিজেপির নাকের ডগায় তৃণমূল হাইজ্যাক করে নিল মাহালি তাস। বাধ্য হয়ে অভিযোগ জানাতে সেই অমিত শাহেরই দ্বারস্থ রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব ৷ রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানালেন, ‘বিজেপি-র সঙ্গে সম্পর্ক রাখলে তৃণমূল শক্র ভাবছে ৷ রাজ্যে ৩০টি পরিবারের সঙ্গে এটা হয়েছে ৷ অমিত শাহ যাঁদের বাড়িতে গিয়েছেন ৷ তাঁদেরই ভয় দেখিয়েছে তৃণমূল ৷ ভয় দেখিয়ে দম্পতিকে দলে টানা হয়েছে ৷ নকশালবাড়ির দম্পতিকে দলে টেনেছে তৃণমূল ৷’

রাজ্য নেতাদের অস্বস্তি বুঝে সক্রিয় হয় বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বও। জাতীয় স্তরে এনিয়ে সরব হওয়ার দায়িত্ব দেওয়া হয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে। বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা জানালেন, কেন্দ্রের এসটি-এসসি সেলের কাছে আদিবাসী মহিলাকে অপহরণের অভিযোগ জানানো হবে ৷ মহিলা কমিশনেও দরবার করতে চলেছে বিজেপি ৷ তিনি আরও বলেন, ‘কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে বিষয়টি জানানো হয়েছে ৷ আগে জনপ্রতিনিধিদের অপহরণ করত তৃণমূল ৷ এখন সাধারণ গরীব আদিবাসীদেরও অপহরণ ৷ সংকীর্ণ রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করতে অপহরণ ৷ এই ইস্যুকে হাতিয়ার করে পথে নামছে বিজেপি ৷

রাজ্যে দলিতদের মশীহা হিসাবে তুলে ধরতে মাহালি দম্পতিই হয়ে উঠেছিল বিজেপির তুরুপের তাস। তৃণমূল সেই তাস হাইজ্যাক করলেও দলের স্থানীয় নেতৃত্ব টেরটুকুও পেলেন না কেন? মুখ বাঁচাতে বিজেপিতে শুরু হয়েছে দায় এড়ানোর পালা।

Loading...

সর্বভারতীয় সভাপতির পাশাপাশি বিকেলে রাজভবনে গিয়েও অভিযোগ জানান বিজেপি নেতারা। রাজ্যপালের কাছেও মাহালি দম্পতিকে অরহরণ ও ভয় দেখানোর অভিযোগই জানিয়েছেন তাঁরা। এফআইআরের কপি ও ভিডিও রেকর্ডিংও নথি হিসাবে জমা দেওয়া হয়েছে। ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমোর বিবৃতির দাবিতেও সরব বিজেপি নেতৃত্ব।

মাহালি ধাক্কায় কাবু বিজেপি এখন মুখরক্ষায় মরিয়া। দলিত ভোটের পাশাপাশি অমিত শাহের মুখরক্ষার উপায় খুঁজতে হচ্ছে রাজ্য নেতাদের। নকশালবাড়ি থেকেই ব্লকে ব্লকে বিক্ষোভে সামিল হওয়ারও সিদ্ধান্ত নেয় বিজেপি নেতৃত্ব।

সূত্রের খবর, মাহালি দম্পতিকে অপহরণ ও ভয় দেখানোর অভিযোগে হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলার সম্ভাবনাও খতিয়ে দেখছে বিজেপি। প্রাথমিক ধাক্কা সামলে তৃণমূলকে কড়া জবাবের জন্য তৈরি হচ্ছে বিজেপি।

First published: 07:43:38 PM May 03, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर