লাট্টু পাহাড়ে উঠবেন নাকি? নতুন বছরে পর্যটকদের গন্তব্য হতেই পারে মধুপুর

লাট্টু পাহাড়ে উঠবেন নাকি? নতুন বছরে পর্যটকদের গন্তব্য হতেই পারে মধুপুর
Photo- File

তাদের মন সবসময়ই বেড়াই বেড়াই করে, আর বেড়াতে যাওয়ার জায়গাটা যদি হয় কাছেপিঠে তবে তো কথাই নেই।

  • Share this:

Venkateswar Lahiri

#কলকাতা: বাঙালির পশ্চিম মানে কিন্ত মূলত শিমুলতলা, মধুপুর, গিরিডি এবং দেওঘর। আদি অনন্তকাল ধরে বাঙালি এইসব জায়গায় বেড়াতে যান। তবে শুধু বাঙালিরাই নয়, পর্যটকদের গন্তব্য হতেই পারে  নতুন বছরে মধুপুর। আর বাঙালি তো ভ্রমণপিপাসু, তাঁরা সারা বছরই ছুটির ফাঁদে পা গলিয়ে আছে। তাদের মন সবসময়ই বেড়াই বেড়াই করে, আর বেড়াতে যাওয়ার জায়গাটা যদি হয় কাছেপিঠে তবে তো কথাই নেই।

কয়েকদিনের ছুটি। নতুন বছর । হয়ত আগের মতো সারি সারি শিমুল গাছ আর নেই। তবে ছোটখাটো জঙ্গল, ইউক্যালিপ্টাসের সারি, চারিদিকে ছোট ছোট পাহাড় আর সবুজের সমারোহ এখনও একইরকম আছে। আর সঙ্গে রয়েছে অজস্র কুঠি বাড়ি বা ভিলা। যেগুলির বেশিরভাগেরই মালিক ছিলেন বাঙালি। তবে মালিকানা এখন বদল হয়েছে। সত্যজিৎ রায়ের ‘মহাপুরুষ’ ছবির মনোরম সূর্যাস্তের দৃশ্যের সাক্ষীও কিন্ত এই জায়গাই। রেলস্টেশন থেকে বেরিয়ে পড়তেই ডাইনে বাঁয়ে স্টেশন রোডে অতীতে গড়ে উঠেছিল স্বাস্থ্য গড়ার আনন্দ নিকেতন। টিলা টিলা শিমুলতলায়, ভিলা ভিলা বাড়ি। যদিও ঐতিহ্য থাকলেও ভেঙে পড়েছে বেশিরভাগভিলাই। কারণ বাড়ির দেখাশুনা করবে কে? নতুন প্রজন্মের সকলেই যে দেশের বাইরে। আর যে কয়েকটা ভিলা বা কুঠিবাড়ি অবশিষ্ট। তা সারিয়েই চলছে ‘হোম স্টে’। অবশ্য এখন থাকার জন্য অনেক রিসর্টও হয়েছে ওখানে।

বাঁদিকে সে কালের হাউজ অফ লর্ডস আর ডানদিকে হাউজ অফ কমন্‌স। খুবই শান্ত, স্নিগ্ধ, নির্জন পরিবেশে স্বাস্থ্যকর স্থান শিমুলতলা। নিসর্গের রূপকথা, মনোরম প্রকৃতি, আবহাওয়া স্বাস্থ্যপ্রদ। স্বাস্থ্যান্বেষীদের অবকাশ যাপনের মনোরম জায়গা অধুনা মুঙ্গের জেলার এই শিমুলতলা।

পাহাড়, টিলা, শাল, মহুয়ার অরণ্যে ঘেরা গ্রাম দেখতে দেখতে হারিয়ে যান ভোরের শিশির ভেজা লাল মোরামের পথে পথে। ওখানে ট্রেন থেকে নামলেই দেখতে পাবেন পাহাড়ি ম্যালের মতো ওখানকার রেল স্টেশন। আর রেল স্টেশনের মুখোমুখি মাত্র দেড় কিলোমিটার দূরে শিমুলতলার মূল আকর্ষণ লাট্টুপাহাড়। দুর্গের মতো পাটনা লজ, নলডাঙার রাজবাড়ি, সেন সাহেবদের লন টেনিস কোর্টকে পাশে রেখে মাঠ পেরিয়ে উঠে পড়ুন হাজারখানেক ফুট উঁচু লাট্টু পাহাড়ে।

 

First published: 01:55:21 PM Dec 31, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर