মিষ্টিতেও এবার থেকে লিখে দিতে হবে 'Expiry' ডেট!

মিষ্টিতেও এবার থেকে লিখে দিতে হবে 'Expiry' ডেট!

এতদিন কৌটোজাত মিষ্টিতে তৈরির দিন এবং সেই মিষ্টি কতদিন পর্যন্ত ব্যবহার করা যাবে তার উল্লেখ থাকত। এবার থেকে একই নিয়ম খুচরো মিষ্টি বিক্রির ক্ষেত্রেও।

  • Share this:

#কলকাতা: মিষ্টি বিক্রির ক্ষেত্রে নয়া নির্দেশিকা। এতদিন কৌটোজাত মিষ্টিতে  তৈরির দিন এবং সেই মিষ্টি কতদিন পর্যন্ত ব্যবহার করা যাবে তার উল্লেখ থাকত। এবার থেকে একই নিয়ম খুচরো মিষ্টি বিক্রির ক্ষেত্রেও। আগামী পয়লা জুন থেকে কার্যকর হতে চলেছে এই নয়া নির্দেশিকা। খুচরা বিক্রির ক্ষেত্রে মিষ্টির গুণগত মান ঠিক রাখতেই এই নয়া নির্দেশিকা  FSSAI  বা  ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ডস অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার। এর প্রভাবে বাড়তে চলেছে মিষ্টির দাম, এমনই মনে করছেন বিক্রেতারা৷

মিষ্টি কবে তৈরি হচ্ছে ? কতদিন পর্যন্ত তা খাওয়া যেতে পারে ? খুচরো মিষ্টি বিক্রির ক্ষেত্রেও এবার থেকে ক্রেতাদের জানাতে হবে সমস্ত তথ্য । ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তরফে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে আগামী পয়লা জুন থেকেই ক্রেতাদের এই সব তথ্য জানাতে হবে সমস্ত মিষ্টি ব্যবসায়ীদের। ক্রেতাদের স্বার্থে এই নয়া নির্দেশিকায় খুশি ক্রেতারা। তবে বিক্রেতাদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে। তারা স্পষ্ট জানাচ্ছেন , "নয়া নির্দেশিকা মানতে গেলে বাড়াতেই হবে মিষ্টির দাম" ।

এই নয়া নির্দেশিকাকে স্বাগত জানিয়ে বেহালার এক ক্রেতা  অভীক রায় বললেন, "অবিলম্বে নিয়ম লাগু হোক । এই নির্দেশ কার্যকর হলে পুরনো মিষ্টিকে আবার ব্যবহারের উপযোগী করে তোলার প্রবণতা কমবে বলে আমি মনে করি "। অন্যদিকে তারা যে পুরনো মিষ্টি ব্যবহারের উপযোগী করে তোলেন না তা জানিয়ে মিষ্টি ব্যবসায়ীরা সাফ জানিয়েছেন , নতুন নিয়ম মানতে গেলে মিষ্টির দাম বাড়ানো ছাড়া কোন উপায় নেই। ব্যবসায়ীদের যুক্তি," যদি খুচরো মিষ্টি বিক্রির ক্ষেত্রেও কবে সেই মিষ্টি তৈরি এবং কতদিন পর্যন্ত ব্যবহার করা যাবে সেই সংক্রান্ত তথ্য ক্রেতাদের জানালে বাড়তি স্টিকারের ব্যবস্থা করতে হবে। এই স্টিকার তৈরি  খরচ সাপেক্ষ। কেউ যদি পাঁচটা বা দশটা মিষ্টি নেন সে ক্ষেত্রে ওই স্টিকারের দাম মিষ্টির মধ্যে যুক্ত হবে তাই স্বাভাবিকভাবেই মিষ্টির দাম তো বাড়বেই "।

শহরের এক নামজাদা মিষ্টি ব্যবসায়ী বললেন, একটি স্টিকারের  দাম নূন্যতম তিন টাকা থেকে আট টাকা পযর্ন্ত  পড়ে। তাই খুচরো মিষ্টির ক্ষেত্রে মিষ্টি  তৈরি এবং  কতদিন পর্যন্ত তা ব্যবহার করা যাবে  সেই তথ্য যদি ক্রেতাদের জানাতে হয়  তাহলে প্রতি মিষ্টিতে দাম বাড়ানো ছাড়া কোনও  উপায় নেই। ২০০৬-এর কেন্দ্রীয় খাদ্য সুরক্ষা আইন অনুযায়ী বিজ্ঞপ্তি জারি করে  FSSAI  জানিয়েছে , ক্রেতাদের যে মিষ্টি বিক্রি করা হচ্ছে তা কবে তৈরি এবং কত দিন পর্যন্ত তা খাওয়া যেতে পারে তা বিক্রেতাদের জানানো বাধ্যতামূলক।

আগামী পয়লা জুন থেকে সমস্ত দোকানে খুচরো মিষ্টি বিক্রির ক্ষেত্রে মানতে হবে এই নির্দেশিকা। যদিও কোনও কোনও  মিষ্টি ব্যবসায়ী সংগঠন  এই নয়া নির্দেশিকা নিয়ে  বিভ্রান্ত। আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহেই এই নয়া নির্দেশিকা নিয়ে দিল্লিতে বৈঠকে বসার কথা রয়েছে এ রাজ্যের মিষ্টি ব্যবসায়ীদের । তবে বিক্রেতারা যাই বলুক না কেন ,  ক্রেতাদের স্বার্থের কথা ভেবে নয়া নির্দেশিকা লাগু করার ব্যাপারে বদ্ধপরিকর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তাই  একথা বলাই যায় যে , আগামী পয়লা জুন থেকে বাড়ার সম্ভাবনা খুচরো মিষ্টির দাম।

First published: February 27, 2020, 2:01 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर