ভোট দিতে এলে হাত কেটে নেবো, নানুরে সিপিএম প্রার্থীকে হুমকি তৃণমূল নেতার

ভোট দিতে এলে হাত কেটে নেবো, নানুরে সিপিএম প্রার্থীকে হুমকি তৃণমূল নেতার

সিপিএম প্রার্থী শ্যামলী প্রধানের সঙ্গে বাকবিতণ্ডার সেই মুহূর্ত। ছবি ভিডিও থেকে নেওয়া।

ইতিমধ্যেই ভাইরাল হয়েছে এই ঘটনার ভিডিও।

  • Share this:

    #নানুর: "এখানে সিপিএম-এর কোনও ভোট নেই। ভোট দিতে এলে হাত কেটে নেবো।" প্রচারে বেরিয়ে  এমনই হুমকির মুখে পড়লেন নানুরের সিপিআইএম বিধায়ক তথা প্রার্থী শ্যামলী প্রধান। কাস্তে হাতুড়িতে ভোট দিলে হাত কেটে নেওয়া হবে-এই হুমকি দিয়েছেন নানুর পঞ্চায়েতের আগাত্তর গ্রামের  তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য জুলি বিবির স্বামী নূরমান শেখ। যদিও  হুমকি-বাধা প্রতিহত করে সেই গ্রামেই বাড়ি বাড়ি প্রচার সেরেছেন  শ্যামলী প্রধান, নানুরের বিদায়ী সিপিআইএম বিধায়ক।  চোখে চোখ রেখে  হুমকির জবাব দেওয়ার রণকৌশলে উজ্জীবীত তাঁর দলের কর্মী সমর্থকরা। ইতিমধ্যেই ভাইরাল হয়েছে এই ঘটনার ভিডিও।

    সূত্রের খবর সংযুক্ত মোর্চা প্রার্থী প্রতিদিনের মতোই প্রচারে বেরিয়েছিলেন বুধবার। আগাত্তর গ্রামে ঢুকতেই স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্যর স্বামী তাঁর সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন। যে রাস্তা দিয়ে তিনি প্রচার সারছেন, তা তৃণমূলের করা বলে তাঁকে বলা হয়।   শ্যামলী পাল্টা বলেন, পঞ্চায়েতে তাদের মনোনয়ন জমা দেওয়ার সুযোগও দেওয়া হয়নি। এমনকি বিধায়ক তহবিলের টাকা খরতেও বাধা দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

    তৃণমূলের ওই কর্মী অবশ্য কিছু শুনতে চাননি। বরং অভিযোগ করতে থাকেন,  ভোট পাবেন না জেনেও শ্যামলী সাধারণ মানুষকে উস্কাচ্ছেন। কথায় কথায় জুলি বিবির স্বামী হুঙ্কার দেন, ভোট দিতে এলে হাত কেটে নেওয়া হবে। এই কথাতেই গোটা এলাকায় তীব্র উত্তেজনা ছড়ায়।

    প্রসঙ্গত নানুরে নির্বাচনী হিংসা নতুন ঘটনা নয়। দিন কয়েক আগে এখান থেকে বোমা উদ্ধার হওয়ার ঘটনাও  সামনে এসেছিল। ২০১১ সালে এখানে গদাধর হাজরার কাছে হেরেছিলেন শ্যামলী প্রধান। তবে ২০১৬ সালে আবার তিনি এই আসনটি ফিরে পান। ২০২১ এ কি হাওয়া তার পক্ষে থাকেবে, জানতে অপেক্ষা আর এক পক্ষকাল।

    Published by:Arka Deb
    First published:

    লেটেস্ট খবর