• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • শিক্ষাদফতরের বড়সড় গাফিলতি, আটকে রয়েছে ১২০টি বিএড কলেজের অনুমোদন !

শিক্ষাদফতরের বড়সড় গাফিলতি, আটকে রয়েছে ১২০টি বিএড কলেজের অনুমোদন !

শিক্ষা দফতরের বড়সড় গাফিলতি। একশ কুড়িটি নতুন বিএড কলেজের অনুমোদন আটকে। কেন্দ্রীয় সংস্থার কাছ থেকে অনুমোদন পেলেও যোগ্যতা মানের শংসাপত্র দিতে পারেনি কলকাতার বিএড বিশ্ববিদ্যালয়।

শিক্ষা দফতরের বড়সড় গাফিলতি। একশ কুড়িটি নতুন বিএড কলেজের অনুমোদন আটকে। কেন্দ্রীয় সংস্থার কাছ থেকে অনুমোদন পেলেও যোগ্যতা মানের শংসাপত্র দিতে পারেনি কলকাতার বিএড বিশ্ববিদ্যালয়।

শিক্ষা দফতরের বড়সড় গাফিলতি। একশ কুড়িটি নতুন বিএড কলেজের অনুমোদন আটকে। কেন্দ্রীয় সংস্থার কাছ থেকে অনুমোদন পেলেও যোগ্যতা মানের শংসাপত্র দিতে পারেনি কলকাতার বিএড বিশ্ববিদ্যালয়।

  • Share this:

    #কলকাতা: শিক্ষা দফতরের বড়সড় গাফিলতি। একশ কুড়িটি নতুন বিএড কলেজের অনুমোদন আটকে। কেন্দ্রীয় সংস্থার কাছ থেকে অনুমোদন পেলেও যোগ্যতা মানের শংসাপত্র দিতে পারেনি কলকাতার বিএড বিশ্ববিদ্যালয়। তাই ক্লাস শুরু করতে পারছে না ছ’টি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে থাকা অনেক নতুন বিএড কলেজই। কী কারণে অনুমোদন দেওয়া যায়নি, তার উত্তর অবশ্য দিতে পারেনি বিএড বিশ্ববিদ্যালয়। দ্রুত রিপোর্ট পেশ করতে বলেছে রাজ্য সরকার।

    কেন্দ্রীয় সংস্থার কাছে অনুমোদন মিলেছে। যোগ্যতা মানের ছাড়পত্রও মিলেছে। কিন্তু কলকাতার বিএড বিশ্ববিদ্যালয়ে আটকে গিয়েছে অনুমোদন। একশ কুড়িটি নতুন বিএড কলেজের অনুমোদন দিতে পারেনি বিএড বিশ্ববিদ্যালয়। ক্লাস নিতে তৈরি থাকলেও অনুমোদন জটে আটকে বিএড কলেজগুলির ভবিষ্যৎ। কিন্তু কেন দেওয়া যায়নি অনুমোদন? তার সদুত্তর দিতে পারেননি বিএড কলেজের উপাচার্য।

    মোট ছ’টি বিশ্ববিদ্যালয়ের আওতায় থাকা নতুন কলেজগুলিই সমস্যায় পড়ছে। বর্ধমান বা সিধু কানহো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনেক নতুন বিএড কলেজই অনুমোদন পেয়েছে। কিন্তু কলকাতার বিএড কলেজ থেকে অনুমোদন দেওয়া যায়নি। মানছেন বিএড কলেজের উপাচার্য।

    সেকেন্ড জুন নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরুর বিজ্ঞপ্তি জারি হওয়ার কথা। কিন্তু অনুমোদন না পেলে ওই কলেজগুলির বিএড ছাত্রছাত্রীদের ভবিষ্যৎ বিশবাঁও জলে।

    বিএড কলেজগুলির এই অচলাবস্থা কাটাতে দ্রুত রিপোর্ট চেয়েছে রাজ্য সরকার । চাপে পড়ে এক সপ্তাহের মধ্যে রিপোর্ট দিতে চলেছে বিএড বিশ্ববিদ্যালয়। কিন্তু একশ কুড়িটি বিএড কলেজ পরিদর্শন করে এত দ্রুত রিপোর্ট দেওয়া সম্ভব কী না তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। সব মিলিয়ে নতুন বিএড কলেজগুলির ভবিষ্যৎ নিয়ে শিক্ষা দফতরের বড়সড় গাফিলিতিই নজরে আসছে।

    First published: