Home /News /kolkata /
Bansdroni shootout Update: বাঁশদ্রোণী কাণ্ডে ধৃত ৮, উদ্ধার একটি পিস্তল, খোঁজ চলছে আরও একটির

Bansdroni shootout Update: বাঁশদ্রোণী কাণ্ডে ধৃত ৮, উদ্ধার একটি পিস্তল, খোঁজ চলছে আরও একটির

বাঁশদ্রোণীর ঘটনাস্থলে পুলিশ৷

বাঁশদ্রোণীর ঘটনাস্থলে পুলিশ৷

  • Share this:

    বাঁশদ্রোণী শ্যুট আউটে অন্যতম মূল অভিযুক্ত শম্ভু সর্দার ও তার দুই শাগরেদকে গ্রেফতার করল পুলিশ৷ ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে একটি সাত এমএম দেশি পিস্তল৷ এই পিস্তল থেকেই ঘটনায় অন্যতম আহত ব্যবসায়ী বিশ্বনাথ সিং ওরফে বাচ্চাকে গুলি করা হয়েছিল৷ তবে অন্য আহত ব্যবসায়ীকে অভিযুক্ত বাচ্চা যে আগ্নয়াস্ত্র থেকে গুলি চালিয়েছিল, সেটির খোঁজ এখনও পায়নি পুলিশ৷

    প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, মঙ্গলবার প্রথমে মলয়কে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছিল বিশ্বনাথ ওরফে বাচ্চাই৷ ঘটনাস্থলে উপস্থিত মলয়ের তিন সঙ্গীর মধ্যে শম্ভু পাল্টা বাচ্চাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়৷ যদিও প্রথমে এমআর বাঙুর হাসপাতালের চিকিৎসকদের কাছে শম্ভুর গুলি চালানোর বিষয়টি চেপে যায় মলয়৷

    আরও পড়ুন: জঙ্গলমহলে জাঁকিয়ে বসছে মাও আতঙ্ক, নিরাপত্তা চেয়ে পুলিশের দ্বারস্থ পাঁচ তৃণমূল নেতা

    দুই প্রমোটারের ব্যবসায়িক বিবাদের জেরে গতকাল দিনেদুপুরে গুলি চালানোর ঘটনা ঘটে বাঁশদ্রোণীর ব্রহ্মপুরে এলাকায়৷ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ দুই ব্যবসায়ী মলয় দত্ত এবং বিশ্বনাথ সিং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন৷ তদন্তে নেমে গতকালই এসএসকেএম হাসপাতাল থেকে বেশ কয়েকজনকে আটক করে পুলিশ৷ এই ঘটনায় মোট আট জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷

    বাঁশদ্রোণীর যে অফিসে মঙ্গলবার গুলি চালানোর ঘটনা ঘটে, সেটি রয়েছে প্রিয়াজিৎ গ্রুপের নামে৷ যার মালিক উত্তম মণ্ডল৷ এই উত্তমের সঙ্গেই মলয় ও বিশ্বনাথ এক সময় কাজ করতেন।

    আরও পড়ুন: বাড়ি থেকে হাঁটতে বেরিয়ে নিখোঁজ হলেন অধ্যাপক, তারপর কী ঘটল? মারাত্মক...

    ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে বিশ্বনাথ এই গ্রুপ থেকে বেরিয়ে যায়। তখন থেকে একা মলয়ই উত্তমের হয়েই এলাকায় কাজ করতেন। জমি দেখা, জমির মালিকের সঙ্গে কথা বলা, সবই করতেন মলয়৷ ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে কোন িববাদের জেরে বিশ্বনাথ উত্তম ও মলয়ের সঙ্গ ত্যাগ করেছিল, তাও জানার চেষ্টা করছেন তদন্তকারীরা৷ খোঁজ চলছে উত্তম মণ্ডলেরও৷

    গুলিকাণ্ডে আহত মলয় দত্ত এসএসকেএম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন৷ অস্ত্রোপচারের পর তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল বলেই খবর৷ অন্যদিকে বিশ্বনাথ সিং ওরফে বাচ্চা গড়িয়ার কাছে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি৷ তাঁর পিঠে লাগা গুলি শিরদাঁড়ার কাছে আটকে ছিল৷ অস্ত্রোপচার করে সেই গুলি বের করেছেন চিকিৎসকরা৷ ৭২ ঘণ্টা তাঁকে চিকিৎসকরা পর্যবেক্ষণে রাখবেন বলে জানিয়েছেন বিশ্বনাথ সিং-এর পরিবারের সদস্যরা৷

    Amit Sarkar

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    Tags: Crime News, Kolkata Police

    পরবর্তী খবর