'বাংলার গর্ব মমতা', রাজ্যের ৪ হেভিওয়েট মন্ত্রীকে দুটি করে বিধানসভার দায়িত্ব

'বাংলার গর্ব মমতা', রাজ্যের ৪ হেভিওয়েট মন্ত্রীকে দুটি করে বিধানসভার দায়িত্ব
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-- ফাইল ছবি

৭৫ দিনের অভিযান শুরু হবে বিধানসভাওয়াড়ি সম্মেলনের মধ্যে দিয়ে। বিধানসভা কেন্দ্রিক ওই সম্মেলনগুলির দায়িত্ব স্থানীয় বিধায়কদের ওপর পড়লেও রাজ্যের চার হেভিওয়েট মন্ত্রীর ঘাড়ে চেপেছে দুই বিধানসভার গুরুদায়িত্ব।

  • Share this:

#কলকাতা: এক নিয়ে রক্ষে নেই তায় আবার দুইয়ের বোঝা। রাজ্যের চার হেভিওয়েট  মন্ত্রীর এখন এমনই দশা। আগামী  ৭ মার্চ রাজ্যের ২৯৪ টি বিধানসভা কেন্দ্রে শুরু হচ্ছে রাজনৈতিক প্রচার অভিযান  "বাংলার গর্ব মমতা "।

৭৫ দিনের অভিযান শুরু হবে বিধানসভাওয়াড়ি সম্মেলনের মধ্যে দিয়ে। বিধানসভা কেন্দ্রিক ওই সম্মেলনগুলির দায়িত্ব  স্থানীয় বিধায়কদের ওপর পড়লেও রাজ্যের চার হেভিওয়েট মন্ত্রীর ঘাড়ে চেপেছে দুই বিধানসভার গুরুদায়িত্ব। মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যকে দলের তরফে বলা হয়েছে,  তাঁর আগের বারের হেরে য়াওয়া আসন দমদম ও এখনকার আসন কাঁথি, দুই কেন্দ্রেই তাঁকে সম্মেলন আয়োজনের দায়িত্ব পালন করতে হবে। ৬  মার্চই কাঁথি যাচ্ছেন এই মন্ত্রী। পরদিন সকালে ৭ মার্চ কাঁথির সম্মেলন করে বিকেল ৪টেয় দমদমের সম্মেলন করবেন চন্দ্রিমা।

একই অবস্থা মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের। শোভন চট্টোপাধ্যায় দলে না থাকায় তার বিধানসভার সাংগঠনিক দায়িত্ব ও এখন শিক্ষামন্ত্রীর। ৭  মার্চ বেহালা শরত সদনে দুই বেহালারই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের অবস্থাও খানিকটা সেই রকম। নিজের কেন্দ্র টালিগঞ্জ তো আছেই,  এবার তার সঙ্গে অরূপের দায়িত্ব পড়েছে যাদবপুর বিধানসভা কেন্দ্রের। ওই কেন্দ্রে তৃণমূলের বিধায়ক নেই,  অতএব দায়িত্ব  অরূপের। ব্যস্ত মন্ত্রী গোটা দায়িত্বই ঠেলে দিয়েছেন যাদবপুরের দলের কাউন্সিলরদের ওপর।

মেয়র ফিরহাদ হাকিম যেমন মুখ্যমন্ত্রীর কেন্দ্র ভবানীপুরের দায়িত্ব ভাগ করে নিয়েছেন দলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সির সঙ্গে। নিজের মেটিয়াবুরুজ বিধানসভার সম্মেলন তো করবেনই,  ৭ তারিখ ভবানীপুরের সদস্য সম্মেলন নিয়েও ভীষণ ব্যস্ত মেয়র৷

First published: March 4, 2020, 8:16 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर