ভালবাসার বারান্দায় নবনীতা চিরকাল

ভালবাসার বারান্দায় নবনীতা চিরকাল

তাঁর জীবনজুড়ে ছিল জীবনের জয়গান। তাঁর লেখায় ছিল জীবনের উদযাপন। তাঁর লেখা ছিল বাঙালির ভালবাসা।

  • Share this:

#কলকাতা: প্রয়াত বিশিষ্ট কবি- সাহিত্যিক নবনীতা দেবসেন ৷ বৃহস্পতিবার সন্ধে সাড়ে ৭টা নাগাদ কলকাতায় হিন্দুস্থান পার্কের নিজের বাড়িতেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি ৷ বয়স হয়েছিল ৮১ বছর ৷

তাঁর জীবনজুড়ে ছিল জীবনের জয়গান। তাঁর লেখায় ছিল জীবনের উদযাপন। তাঁর লেখা ছিল বাঙালির ভালবাসা। তাঁর ভালো-বাসা বাড়িটি আজ ফাঁকা। কিন্তু, বাঙালির ভালবাসার বারান্দায় তিনি থাকবেন চিরকাল।

তিনি ছিলেন জীবনমুখী.....

ক্যান্সারে আক্রান্ত...কিন্তু কোনও দিন পাত্তা দেননি....মারণরোগকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে লিখেছিলেন

আমার কি তালা-ভাঙা দরজার অভাব আছে? আমার তো হৃৎকমল থেকে শ্বাসকমল- সব দরজাই আধখোলা। তো এই কর্কটকমলের এত মাতব্বরি কীসের? লাঠিসোঁটা একটু বেশি আছে বলে?

চিরদিন তাঁর লেখায় সমকালের গন্ধ। জীবনের উদযাপন। কবিতার হাত ধরেই তাঁর সাহিত্যিক জীবন শুরু....

১৯৫৯ সালে প্রথম কবিতার বই ‘প্রথম প্রত্যয়’ ৷ প্রথম বইয়েই কবিতা যেন ছবি এঁকেছিল। হাসতে হাসতেই তৈরি করেছিলেন প্রণয়ের পাহাড়।

কেউ বলুক, না বলুক, তুমি সব জানো।

তবু কোথাও পাহাড় আছে

ছোট কথা, বড় কথা, ছোট দুঃখ, বড় বেদনা

সব ছাড়িয়ে

মস্ত এক হাসির পাহাড়

একদিন সেই পাহাড়ে ঘর বাঁধবো তোমার সঙ্গেই

লোকে বলুক না বলুক; তুমি জানো।

নামী কবি দম্পতি নরেন্দ্র দেব ও রাধারানি দেবীর কবিতা ছিলেন নবনীতা। নবনীতা কবি হতে চেয়েছিলেন। বলতেন, কোনও দিন কোনও লেখা লিখে মনে হয় না যথেষ্ট ভাল হল। আমি তো পণ্ডিত নই। নিজেকে আমার কবি মনে হয়। কবি হওয়ার চেষ্টা আমি করব। যতদিন পারি চেষ্টা করব। কবিতা তাঁর হাত ধরেছিল। কবিতার পথে তিনি হেঁটেছেন দশকের পর দশক। কিন্তু, কবি যখন গদ্যের সভায় গেছেন, তখনও পা টলেনি। সাতের দশকে নকশাল আন্দোলনে উত্তাল বাংলা, নাড়িয়ে দিয়েছিল কবি মনকে। সেই পটভূমিতেই নবনীতার প্রথম উপন্যাস ‘আমি, অনুপম’। কবিতার নরম কলম সরিয়ে, তখন যেন গদ্যের ধারাল তলোয়ার। বয়স হলেও প্রতিবাদ করে গেছেন। কয়েক বছর আগে যখন মুক্তমনা সাহিত্যিকদের উপর হামলা হয়েছে, তখনও তিনি গর্জে উঠেছিলেন। যতদিন ছিলেন, লিখে গেছেন। লেখাকে কখনও না বলেননি।

কিন্তু, বারবারই নতুন লেখার পরে পাঠকের সামনে তাঁর আত্মনিবেদন....

এই নাও। আমি তোমার। তুমি রাখলে, আছি। না রাখলে, নেই।গড়িয়াহাটের ভালো-বাসা হয়ত আজ খালি। কিন্তু, বাঙালির ভালবাসার বারান্দায় তিনি চিরদিন হাসি মুখে দাঁড়িয়ে থাকবেন।

First published: 08:28:39 AM Nov 08, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर