ATM জালিয়াতিতে ধৃতদের মধ্যে ৩ 'গুরু' দিত অন্যদের শিক্ষা! চোরাই টাকা কি ডলারে পরিণত হত?

ATM loot

গোয়েন্দা সূত্রে খবর , ঘটনার মাস ছয় আগেই রেইকি করে গিয়েছিল অভিযুক্তরা |

  • Share this:

#কলকাতা: ATM কাণ্ডে নয়া তথ্য | এতো টাকা কীভাবে নিয়ে যেত জালিয়াতরা? গোয়েন্দা  সূত্রে খবর, কোটি কোটি টাকা  ডলারে পরিণত করে নিয়ে যেত দুষ্কৃতীরা | কিছু ক্ষেত্রে ব্যাঙ্ক  ট্রানসাকশন  হত  কিন্তু সেক্ষত্রে  অন্য ভুয়ো   ডকুমেন্টস  দিয়ে অ্যাকাউন্ট খুলত অভিযুক্তরা | এই গ্যাংয়ে ট্রেনার কারা ছিল? গোয়েন্দা সূত্রে চাঞ্চল্যকর তথ্য,  এই গ্যাংয়ে ধৃতদের মধ্যে তিন জন এক্সপার্ট ছিল যারা ATM খোলা, ডিভাইস লাগানো, টাকা লুঠ এসব করত |  এরাই টিমের  অন্য দের ট্রেনিং  দিত বলে জানা গিয়েছে |  ধৃত আব্দুল সাইফুল মণ্ডল, বিশ্বদীপ রাউত সহ বাকিরা ঠিক করতো কে কোথায়  কোন  হোটেলে  থাকবে, কোন এটিএমে যাবে, টাকা লেনদেনের বিষয়গুলি দেখতো |

কীভাবে  ওই  জালিয়াতদের গ্যাং প্ল্যান করেছিল জালিয়াতির জন্য?গোয়েন্দা সূত্রে খবর, কলকাতাতে অপারেশন চালানোর আগে পূর্ব  পরিকল্পনা  ও রেইকি  করে গিয়েছিল এই জালিয়াত গ্যাং| গোয়েন্দা  সূত্রে খবর, কলকাতার মতো বড়  বড় মেট্রো  শহরে এটিএম  জালিয়াতির  পরিকল্পনা করেছিল জালিয়াতরা |  তদন্তকারীদের দাবি ধৃতদের জেরা করে জানা গিয়েছে, এটিএম জালিয়াতদের  একটাই বড়  গ্যাং | যারা দু’ভাগে  বিভক্ত  হয়েছিল |  একটা গ্যাং কলকাতায় এটিএম জালিয়াতি করে ভিন রাজ্যে চলে যায় | অপর গ্যাংটি বিধান নগরে নারায়ণপুরে জালিয়াতি করে ধরে পড়ে  | বিধাননগরে  ওই গ্যাংয়ের তিন অভিযুক্ত সন্দীপ সিং, অমিত গুপ্তা ও মোহাম্মদ  ভাকেলকে  গ্রেফতারের  পরে  মোহাম্মদ  নাসিম পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে এয়ারপোর্ট থেকে| তখন নাসিমকে গ্রেফতার করে কলকাতা  পুলিসের গোয়েন্দারা |  এদের  প্ল্যান  ছিল কলকাতার অপারেশন  শেষ হলেই তারা অন্য মেট্রো  শহরে একই মোডাস  অপারেন্ডিতে এটিএম  জালিয়াতির ছক কষবে |

কোথা থেকে এই জালিয়াতির সরঞ্জাম  নিয়ে  এসেছিল অভিযুক্তরা?এটিএম জালিয়াতি জন্য সরঞ্জাম অনলাইনে কিনতো  অভিযুক্তরা৷ গোয়েন্দা সূত্রে খবর, কোনও  দোকান থেকে কেনার তুলনায় অনলাইনে কেনা অনেক বেশি নিরাপদ  |  তাই যাতে কারও সন্দেহ না হয় অনলাইনে আসত সরঞ্জাম | বিদেশে এই গ্যাং-র কোনও মাথা রয়েছে কিনা, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

কীভাবে দিল্লির অভিযুক্ত গ্যাংয়ের সঙ্গে পরিচয়  হল কলকাতার কসবার বাসিন্দা বিশ্বদীপ ও আব্দুলের? গোয়েন্দা সূত্রে খবর , ঘটনার মাস ছয় আগেই রেইকি করে গিয়েছিল অভিযুক্তরা | ধৃত  সাইফুলের সঙ্গে পুরোনো পরিচয় ছিল মনোজ ও নবীন গুপ্তার  গ্যাংয়ের | কোথায় কে থাকবে সেই দায়িত্ব পালন করত, ধৃত  বিশ্বদীপ  |ধৃত মহাম্মদ নাসিমকে ব্যাঙ্কশাল আদালতে পেশ করা হলে ১৯ তারিখ পর্যন্ত পুলিশ হেপাজতের নির্দেশ দেয় আদালত | এর আগে কলকাতা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছিল দিল্লির বাসিন্দা মনোজ গুপ্তা, নবীন গুপ্তা এবং কলকাতার বাসিন্দা বিশ্বদীপ  রাউথ  ও আব্দুল সাইফুল মণ্ডল | এই ঘটনায়  বিধাননগর থেকেও তিন জন গ্রেফতার হয় |  সব মিলিয়ে বলা যায় এই বিশাল গ্যাংয়ে আর কারা জড়িত  তা  খতিয়ে  দেখছে তদন্তকারীরা |

Published by:Pooja Basu
First published: