Strand Road Fire: 'রেলের কাছে বহুতলের ম্যাপ চাওয়া হয়েছিল, দেয়নি', ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পরে ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী

Strand Road Fire: 'রেলের কাছে বহুতলের ম্যাপ চাওয়া হয়েছিল, দেয়নি', ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পরে ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী

যে বহুতলে আগুন লেগেছে তার ১৩ তলায় পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্ব রেলের মূল কার্যালয়। অগ্নিকাণ্ডের জেরে রেলের অনলাইন টিকিট বুকিং সম্পূর্ণভাবে বন্ধ। পাশাপাশি উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের অনলাইন টিকিট বুকিংও বন্ধ।

যে বহুতলে আগুন লেগেছে তার ১৩ তলায় পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্ব রেলের মূল কার্যালয়। অগ্নিকাণ্ডের জেরে রেলের অনলাইন টিকিট বুকিং সম্পূর্ণভাবে বন্ধ। পাশাপাশি উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের অনলাইন টিকিট বুকিংও বন্ধ।

  • Share this:

    #কলকাতা: স্ট্রান্ড রোডের বহুতলে ভয়াবহ আগুন। আগুনে ঝলসে ৯ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু। প্রাথমিকভাবে পাঁচ ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও, কুলিং-এর কাজ এখনও শেষ হয়নি। আগুন লাগার খবর পেয়েই প্রথমে ঘটনাস্থলে পৌঁছন দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু। খানিকক্ষণের মধ্যেই পৌঁছে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাত বারো'টা পর্যন্ত ঘটনাস্থলে ছিলেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী মৃতদের পরিবারকে ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের কথা ঘোষণা করেন। পাশাপাশি, মৃতদের পরিবারের একজন সদস্যকে চাকরির  দেওয়ার ঘোষণা করেছেন।

    ঘটনাস্থল খতিয়ে দেখার পরে এ দিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, "কয়লাকাটা রেলের অনেক পুরনো ভবন। সেখানে ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটেছে। দমকল, পুলিশ এবং এক আরপিএফ কর্মী-সহ ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যু শোক কখনও টাকা দিয়ে পূরণ করা যায় না। তাও মৃতদের পরিবারের স্বার্থে তাদের হাতে ১০ লক্ষ টাকা করে তুলে দেওয়া হবে। রেলের জায়গা। তাই তাদের উপরেও দায়িত্ব বর্তায়, কিন্তু কেউ আগুন নেভাতে আসেনি। রেলের কাছে ম্যাপ চাওয়া হয়েছিল দমকল কর্মীদের তরফ থেকে, কিন্তু সেই ম্যাপ দেওয়া হয়নি।"

    এ দিকে, যে বহুতলে আগুন লেগেছে তার ১৩ তলায় পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্ব রেলের মূল কার্যালয়। অগ্নিকাণ্ডের জেরে রেলের অনলাইন টিকিট বুকিং সম্পূর্ণভাবে বন্ধ। পাশাপাশি উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের অনলাইন টিকিট বুকিংও বন্ধ। উল্লেখ্য, রেলের তরফ থেকে উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে তদন্তের জন্য।

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: