অধিবেশন হচ্ছে, ওঁরা আসছেন না আর, বিধানসভার কড়ি-বরগায় দীর্ঘশ্বাস

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় অন্দরে, নৈশব্দ্যের মধ্যেই লেখা বহু উত্থান পতনের গল্প।

অধিবেশন শুরু হতেই এই শূন্য অঙ্ক নিয়েই চর্চা নানামহলে। আর যারা এই সেদিনও ঝড় তুলতেন বিধানসভায়, কী বলছেন তাঁরা?

  • Share this:

#কলকাতা: ৪৬ বছরের প্রথম বার। ঝুলি শূন্য তাই বিধানসভায় ঠাঁই হয়নি। আমরা ২৩৫ ওরা ৩৫-বলে দাপট দেখানোর সে সব দিন আজ স্রেফ স্মৃতি। অধিবেশন চলবে অধিবেশনের মত, স্রেফ থাকছেন না তারা। স্বাধীন ভারতে এত বছর শক্ত জমিন নিয়ে লড়াই করা দুই দল সিপিএম কংগ্রেস রাতারাতি বিধানসভা মানচিত্র থেকে এভাবে গায়েব হয়ে যাওয়ায় স্বভাবতই মন খারাপ সমর্থকদের। আর অধিবেশন শুরু হতেই এই শূন্য অঙ্ক নিয়েই চর্চা নানামহলে।  আর যারা এই সেদিনও ঝড় তুলতেন বিধানসভায়, কী বলছেন তাঁরা?

২০১৬ থেকে ২০২১ এই পাঁচ বছর বিধানসভায় ৬৫ নম্বর আসন বরাদ্দ ছিল বাম পরিষদীয় দল নেতা সুজন চক্রবর্তীর জন্য। আজ সেই আসনের দাবিদার অন্য কেউ। মন খারাপ লাগছে না? প্রশ্ন করতেই সুজনের উত্তর, মন খারাপের ব্যাপার নেই। আমরা বাইরে লড়াই আন্দোলনে আছি। তবে খারাপ তো  লাগেই। এবারের বিধানসভা নিয়ে সুজনের মত, যাতে সামঞ্জস্য বজায় থাকে, যাতে রাজ্যপালের সম্মান বজায় থাকে ও মুখ্যমন্ত্রীকেও অপ্রস্তুতিতে না পড়তে না হয়, এই নিয়ে আগেই আলোচনা হয়ে গিয়েছিল।

২০১৬ বিধানসভা কংগ্রেস বিজেপির থেকে বেশি আসন পেয়েছিল। স্বাভাবিক ভাবেই বিরোধী দলনেতা নির্বাচিত হন আবদুল মান্নান। আবেগবর্জিত গলায় তিনি বললেন, মন খারাপের বিষয় নেই। গণতন্ত্রে মানুষ যা চাইবে তাই হয়। তবে একটা বিষয় দু'পক্ষই এক কেন্দ্রে। বিজেপি চায় কংগ্রেস মুক্ত ভারত।

নেতারা যাই বলুন, মন ভালো নেই বাম-কংগ্রেস সমর্থকদের। এমন দিনের মানসিক প্রস্তুতি ছিল না কোনও পক্ষেরই। তবে পরিসংখ্যানবিদরা বলছেন, এই ধ্বস রাতারাতি নামেনি। মানুষের মন বদলাচ্ছে এই সংকেত ছিলই। ২০১১ থেকেই ধাপে ধাপে ধ্বস নামতে শুরু করে বামেদের আসনে। ২০১১ বিধানসভায় বামফ্রন্ট পেয়েছিল ৬৬টি আসন। তার মধ্যে ৭টি ছিল সিপিএমের দখলে। এই আসনই ৩২-এ নেমে আসে ২০১৬-তে। কিন্তু এমন ফল হবে যে বিধানসভায় ঢোকাই বন্ধ হয়ে যাবে এমনটা অতি সিপিএম বিরোধীও কল্পনা করেননি। এমনকি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গলায়ও আক্ষেপের সুর শোনা যায়। মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, ওরা থাকলে ভাল হত। রাজনৈতিক মহলের মত মুখ্যমন্ত্রী বলতে চাইছিলেন, গণতন্ত্রে বহুস্বরের ধারণাটির কথা। বিধানসভায় বামেদের উপস্থিতি মমতা বিরোধিতার ঢেউ তুললেও তা তাঁর কাছেও জরুরি ছিল। কিন্তু সময়ের খেল যেন কবিতা, সোনাঝড়া সেই অতীত "আছি, নেই মাত্র এই " হয়ে গেল। রইল পড়ে দীর্ঘশ্বাস।

Published by:Arka Deb
First published: