কলকাতা

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

ক্লাসই হল না প্র্যাকটিক্যালের! কিভাবে পরীক্ষা হবে? কি হবে সিলেবাসের? চিন্তায় সংসদ

ক্লাসই হল না প্র্যাকটিক্যালের! কিভাবে পরীক্ষা হবে? কি হবে সিলেবাসের? চিন্তায় সংসদ

সিলেবাসে কাটছাঁট করার কথা বলা হলেও প্র্যাকটিক্যাল পরীক্ষার কি ভবিষ্যৎ সেই বিষয়ে অবশ্য স্পষ্ট করে জানানো হয়নি।

  • Share this:

#কলকাতা: উচ্চ মাধ্যমিকের সিলেবাস কাটছাঁটের প্রস্তাব ইতিমধ্যেই জমা পড়েছে রাজ্য স্কুল শিক্ষা দপ্তরে।  ২০২১ এর উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় করোনার প্রকোপ এর কথা মাথায় রেখে ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ সিলেবাস কাটছাঁট করার কথা প্রস্তাবে বলা হয়েছে। তবে সিলেবাসে কাটছাঁট করার কথা বলা হলেও প্র্যাকটিক্যাল পরীক্ষার কি ভবিষ্যৎ সেই বিষয়ে অবশ্য স্পষ্ট করে জানানো হয়নি। অন্তত উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ক্ষেত্রে এমনটাই খবর রাজ্য স্কুল শিক্ষা দপ্তর সূত্রে।

বিজ্ঞান বিষয়ের এবং কলা বিভাগের বেশ কিছু বিষয়ে প্র্যাকটিক্যাল বা হাতে কলমে শেখার জায়গা থাকে ছাত্র-ছাত্রীদের। মোট ১০০ নম্বরের পরীক্ষার মধ্যে ৩০ নম্বর থাকে এই প্র্যাকটিক্যালের ওপরে। বিশেষত ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, বায়োলজির মতো বিষয়গুলি ক্ষেত্রে প্র্যাকটিক্যাল পরীক্ষার নম্বর ছাত্র-ছাত্রীদের কিভাবে দেওয়া হবে বা ক্লাসরুমে যদি কাজ না হয় সে ক্ষেত্রে প্র্যাকটিক্যাল কিভাবে শেখানো যাবে এবছরের উচ্চমাধ্যমিকের ছাত্র-ছাত্রীদের তা নিয়ে রীতিমতো চিন্তিত উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের আধিকারিকরা। যদিও এই বিষয় নিয়ে সংসদের কোনও আধিকারিক কিছু মন্তব্য করতে চাননি।

এখনও পর্যন্ত ২০২১ এর উচ্চমাধ্যমিকের পরীক্ষা সূচি ঘোষিত হয়নি। যদিও সংসদের তরফে স্কুল শিক্ষা সচিবের সঙ্গে শেষ হবে বৈঠকে জুন মাসের পরে পরীক্ষা নেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। তবে সেক্ষেত্রে অন্যান্য রাজ্যগুলির দশম ও দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষা নিয়ে কি সিদ্ধান্ত নিচ্ছে সেদিকে অবশ্য এখন স্কুল শিক্ষা দপ্তর তাকিয়ে। সেক্ষেত্রে মার্চ মাসে ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা নেওয়ার রাস্তা কার্যত খুলে রাখতেই একপ্রকার বলা হয়েছে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদকে।

পরীক্ষা সূচি ঘোষিত না হলেও ছাত্রছাত্রীদের হাতে কলমে শিক্ষার জায়গা কি করে তৈরি করা সম্ভব তা নিয়ে এখনো উদ্বিগ্ন সংসদের আধিকারিকরা। উচ্চমাধ্যমিকে প্রত্যেকটি বিষয় এখন প্রজেক্ট ওয়ার্ক হয় অন্তত যে বিষয়গুলি ল্যাবরেটরি নির্ভর নয়। প্রজেক্ট ওয়ার্ক নির্ভর বিষয়গুলিতে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রজেক্ট এর নম্বর দিতে খুব একটা অসুবিধা হবে না বলেই মত শিক্ষকদের একাংশের। কারণ সে ক্ষেত্রে ছাত্র-ছাত্রীদের নির্দিষ্টভাবে জানিয়ে দেওয়া সম্ভব কোন কোন বিষয়ের উপর প্রজেক্ট করতে হবে এবং এই প্রজেক্ট ওয়ার্ক বাড়িতে বসে ও ছাত্র-ছাত্রীরা করে দিতে পারে বলেই শিক্ষকদের একাংশ মনে করছে। যদিও এই প্রজেক্ট ওয়ার্ক এর উপর ২০ নম্বর থাকে। বাংলা,ইংরেজি,ইতিহাসের মত বিষয়গুলি ক্ষেত্রে এই প্রজেক্ট ওয়ার্ক নেওয়া হয়।

উচ্চ মাধ্যমিকের ফলাফল প্রকাশ করার পর এখনো পর্যন্ত এ বছরের উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের ছাত্র-ছাত্রীদের কোন স্কুলে ক্লাস নেওয়া সম্ভব হয়নি। যদিও দশম ও দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস করার পক্ষে ইতিমধ্যেই স্কুল শিক্ষা সচিবের কাছে সওয়াল করেছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। তবে সেক্ষেত্রে কবে থেকে ক্লাস চালু করা সম্ভব সেই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে স্কুল শিক্ষা দপ্তরের  দুই বোর্ডকেই। কিন্তু ক্লাস চালু না হওয়ার ছেড়ে উচ্চমাধ্যমিকের বিশেষত বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র ছাত্রীরা প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসের জেরে অনেকটাই সমস্যার মুখে পড়তে চলেছে সে বিষয়ে নিশ্চিত শিক্ষকদের একাংশ। কারণ শিক্ষকদের একাংশ মনে করছে উচ্চমাধ্যমিকের বিশেষত ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, বায়োলজির মত বিষয়গুলির ক্ষেত্রে ল্যাবরেটরি ছাত্রছাত্রীরা ক্লাস না করলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ জিনিস শেখার থেকে বঞ্চিত হবেন। সেক্ষেত্রে ছাত্রছাত্রীদের কাছে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে এটা একটা প্রধান সমস্যা হতে পারে। তাই ক্লাস না করিয়ে কিভাবে প্র্যাক্টিকাল পরীক্ষা দিতে ছাত্র-ছাত্রীদের পক্ষে নামা সম্ভব তা বুঝে পারছে না শিক্ষকেরা ৷

সূত্রের খবর, প্র্যাকটিক্যাল পরীক্ষা নেওয়ার জন্য সিলেবাস কি করা হতে পারে সে বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কোন নিশ্চিত রূপরেখা তৈরি করতে পারিনি উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ ও সিলেবাস কমিটি ।

 সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by: Elina Datta
First published: October 16, 2020, 7:42 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर