corona virus btn
corona virus btn
Loading

টেটে পাস না করেও শিক্ষকের চাকরি!

টেটে পাস না করেও শিক্ষকের চাকরি!
কলকাতা হাইকোর্টে টেট মামলা

টেটে পাস না করেও শিক্ষকের চাকরি!

  • Share this:

 #কলকাতা: এবার টেট নিয়ে কেঁচো খুঁড়তে কেউটে। টেটে পাস না করেও চাকরি পাওয়ার চাঞ্চল্যকর অভিযোগ ৷ পরীক্ষায় ফেল করেও বেমালুম চাকরি করছিলেন এক প্রার্থী। তথ্যের অধিকার আইনে তা প্রকাশ্যে আসার পরই হাইকোর্টে মামলা করে নতুন করে প্যানেল তৈরির দাবি করলেন এক পরীক্ষার্থী। শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে একের পর এক অভিযোগে পুরো নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়েও উঠছে প্রশ্ন ৷

চলতি সপ্তাহেই প্রাথমিক শিক্ষা হাল হাইকোর্টের তোপের মুখে পড়ে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। এক ফোনে চাকরি খেয়ে নেওয়ার অভিযোগের সঙ্গে এবার জুড়ল ফেল করা প্রার্থীকে চাকরি দেওয়ার অভিযোগ ৷ ফের নতুন করে মামলার জটে প্রাথমিকের টেট ৷

প্রাথমিকের টেটে কেঁচো খুঁড়তে কেউটে। পরীক্ষায় ফেল করেও প্রার্থীকেও নিয়োগপত্র দেওয়ার অভিযোগ। এই অভিযোগেই মামলা দায়ের হল হাইকোর্টে। অভিযোগের মুখে চরম অস্বস্তিতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ।

পর্ষদ বলছে, তিনি টেটে উত্তীর্ণ। অথচ আরটিআই রিপোর্ট জানাচ্ছে, টেটে পাস করতে পারেননি ওই পরীক্ষার্থী। তারপরও তাঁকে নিয়োগপত্র দেওয়া হল কীভাবে? এই অভিযোগেই হাইকোর্টে মামলা এক পরীক্ষার্থীর। আরটিআই রিপোর্টে নির্দিষ্ট প্রার্থী ও স্কুলের নামও উল্লেখ করা হয়েছে ৷

পরীক্ষার্থীর নাম পল্লবী মান্না ৷ রোল নম্বর ১৩০০৮২২৬৫ ৷ টেটে সফলদের তালিকায় ৯ নম্বরে নাম ছিল পল্লবীর ৷ বেড়াবেড়ি পোস্ট অফিসের মধুসূদনপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসাবে নিয়োগপত্র পান তিনি ৷ পল্লবীর টেটের উত্তরপত্র পরীক্ষায় আরটিআই অন্য এক পরীক্ষার্থীর ৷ সেই আরটিআই রিপোর্টেই পল্লবীকে অকৃতকার্য জানানো হয় ৷

প্রাথমিকের টেট নিয়ে একের পর এক ধাক্কা। ১১ টি প্রশ্নে ভুল উত্তর দেওয়ার অভিযোগ ওঠে পর্ষদের বিরুদ্ধে। সেই মামলায় ক্ষুদ্ধ বিচারপতি শিক্ষা দফতরের কর্তাদের যোগ্যতা নিয়েই প্রশ্ন তোলেন। তাঁর প্রতিক্রিয়া ছিল, প্রাথমিক শিক্ষায় হচ্ছেটা কী? তারপরই ফোন করে টেট উত্তীর্ণ প্রার্থীর চাকরিতে না যাওয়ার নির্দেশ। বৃহস্পতিবারের পর প্রাথমিকের টেটে দুর্নীতির অভিযোগ নিয়েও চাপ বাড়ল পর্ষদের।

পল্লবীর মতো আরও অনেক গাফিলতিই কি রয়ে গিয়েছে পর্ষদের নিয়োগ তালিকা? এদিনের পর সেই প্রশ্ন ওঠাও শুরু হল। টেট নিয়োগ নিয়ে কি তাহলে সত্যিই দুর্নীতি হয়েছে? আরটিআইয়ের রিপোর্টে বিস্ফোরক তথ্য বাইরে আসাতে আবার নতুন করে উঠছে এই প্রশ্ন ৷

First published: December 21, 2017, 6:37 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर