কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘এরপর একসঙ্গে কাজ করা অসম্ভব, আমাকে মাফ করবেন’, সৌগতকে বার্তা পাঠালেন শুভেন্দু

‘এরপর একসঙ্গে কাজ করা অসম্ভব, আমাকে মাফ করবেন’, সৌগতকে বার্তা পাঠালেন শুভেন্দু
ফাইল চিত্র।

সাংসদ সৌগত রায় দাবি করেছিলেন, তৃণমূলেই থাকছেন শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু বুধবার দুপুরেই শুভেন্দু বার্তায় বদলে গেল পুরো পরিস্থিতি ৷

  • Share this:

#কলকাতা: একরাতের মধ্যে ফের পুরো পরিস্থিতি ৩৬০ ডিগ্রি ৷ মঙ্গলবার রাতে শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্ত কিশোরের বৈঠকের পর তৃণমূলের তরফে দাবি করা হয় সমস্যা মিটে গিয়েছে, বরফ গলেছে ৷ সাংসদ সৌগত রায় দাবি করেছিলেন, তৃণমূলেই থাকছেন শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু বুধবার দুপুরেই শুভেন্দু বার্তায় বদলে গেল পুরো পরিস্থিতি ৷ হোয়াটস অ্যাপ বার্তা সৌগত রায়কে ক্ষুব্ধ শুভেন্দুর মেসেজ ‘একসঙ্গে কাজ করা অসম্ভব, আমাকে মাফ করবেন ৷’

সাংসদ সৌগত রায়কে পাঠানো শুভেন্দু অধিকারীর বার্তাতেই স্পষ্ট সমস্যা তিমিরেই ৷ এখনও ছাড়েনি কোনও জটই ৷ নিজের অবস্থানেই অনড় প্রাক্তন পরিবহনমন্ত্রী ৷ উল্টে মঙ্গলবার রাতের বৈঠক ও তার হয়ে সংবাদ মাধ্যমের সামনে দলের বার্তায় তীব্র অসন্তুষ্ট নন্দীগ্রামের বিধায়ক ৷ এদিন সকাল ১১:৪৫ নাগাদ সৌগত রায়কে মেসেজে শুভেন্দু জানিয়েছেন, ‘দলের সামনে রাখা আমার বক্তব্যগুলির এখনও সমাধান করা হয়নি। সমাধান না করেই আমার ওপর সব চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে। ৬ ডিসেম্বর আমার সাংবাদিক সম্মেলনের কথা ছিল। সাংবাদিক সম্মেলন করে সব জানানোর কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই আপনারা প্রেসকে সব জানিয়ে দিলেন। এভাবে একসঙ্গে কাজ করা অসম্ভব। আমাকে মাফ করবেন।’

নন্দীগ্রামের সাংসদের এই মেসেজের পর আরও গুরুতর সমস্যার জট ৷ গতকাল বৈঠকের পর সৌগত রায়ের দাবি ছিল, সব সমস্যার মিটে গিয়েছে ৷ শুভেন্দুর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর, গতকালের বৈঠক নিয়েই মূলত অসন্তুষ্ট প্রাক্তন পরিবহণমন্ত্রী৷ ঘনিষ্ঠ মহলের দাবি বৈঠকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্ত কিশোরের উপস্থিতির কথা আগে থেকে অবগত ছিলেন না ৷ সৌজন্যতার খাতিরেই বৈঠক চালিয়ে গিয়েছেন তিনি ৷ এদিন সৌগত রায়কে পাঠানো মেসেজে এটা স্পষ্ট যে তিনি কোনও কথা বলার আগেই সংবাদ মাধ্যমের সামনে বৈঠকের খুঁটিনাটি ফাঁস করে দেওয়া নিয়ে তিনি সাংঘাতিক ক্ষুব্ধ হন এবং তিনি নিজে কোনও মন্তব্য করার আগেই সমস্যা না মেটার আগেই দলের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয় সব সমস্যা মিটে গিয়েছে ৷ এমনকী সাংবাদিক সম্মেলন করে সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগেই বলা হয় তিনি তৃণমূলেই থাকছেন ৷

কাজ করা অসম্ভব এই মন্তব্যেই কি শুভেন্দু জটের কফিনে শেষ পেরেকটা পড়ে গেল? তবে শুভেন্দু অধিকারী কি দল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেললেন? সাংসদ সৌগত রায় বলছেন, ‘এরপর যা হবে শুভেন্দুই জানাবে ৷ মত পরিবর্তন করলেও ওই আপনাদের জানাবে ৷’ এমনকী তীব্র হতাশার সুরে সৌগত রায় এও বলেন ‘নতুন করে শুভেন্দুর সঙ্গে আর কোনও বৈঠকের সম্ভাবনা নেই ৷ যদি কেউ মত পরিবর্তন করে তাহলে বৈঠকের আর কোনও প্রয়োজনীতা নেই ৷’ উল্লেখ্য, তৃণমূল ও শুভেন্দু অধিকারীর মধ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে এতদিন মধ্যস্থতার কাজ করছিলেন সাংসদ সৌগত রায় ৷ তবে কী তৃণমূলের তরফে সব আশাই শেষ ৷ এতদিনের সম্পর্ক ছেদ করে নিজের রাজনৈতিক রাস্তা আলাদা করে মুকুল রায় ও শোভন চট্টোপাধ্যায়ের পথেই পা বাড়াবেন শুভেন্দু ? প্রশ্নগুলোর উত্তর দেবে ভবিষ্যত ৷

Published by: Elina Datta
First published: December 2, 2020, 7:00 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर