বাংলা দখলের জিয়নকাঠি মতুয়া ভোট, আসছেন শাহ, আজই কি নাগরিকত্ব বার্তা?

বাংলা দখলের জিয়নকাঠি মতুয়া ভোট, আসছেন শাহ, আজই কি নাগরিকত্ব বার্তা?
আজ রাজ্যে অমিত শাহ। ফাইল চিত্র

আজই কি তবে নাগরিকত্ব নিয়ে বার্তা দিচ্ছেন শাহ, সেদিকেই নজর গোটা বাংলার।

  • Share this:

    #কলকাতা: ম্যারাপ খুলতে না করেছিলেন, প্রতিশ্রুতি দিয়েও আসতে পারেননি দিল্লি বিস্ফোরণের কারণে। অনেক টালবাহানার পর আজ মতুয়াগড়-ঠাকুরনগরে আসছেন অমিত শাহ। আজই কি তবে নাগরিকত্ব নিয়ে বার্তা দিচ্ছেন শাহ, সেদিকেই নজর গোটা বাংলার।

    বুধবার রাতে অমিত শাহ বাংলাতেই একটি ট্যুইট করেন। তাতে লেখেন",আমি উৎসুক,আগামীকাল বাংলায় উপস্থিত হওয়ার জন্য। কোচবিহার থেকে পরিবর্তন যাত্রার চতুর্থ পর্যায় সূচিত হবে এবং ঠাকুরনগরে জনসভা অনুষ্ঠিত হবে।পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় আমি আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ার স্বেচ্ছাসেবীদের সাথেও আলাপচারিতায় অংশগ্রহণ করব।"

    বাংলায় পা রাখার আগে শাহ দেখা করবেন অসমের চিরং জেলার স্বঘোষিত ধর্মগুরু অনন্ত মহারাজের সঙ্গে। সেখানেই প্রাতরাশ থেকে মধ্যাহ্নভোজ। বাংলার পাশাপাশি অসমের বিধানসভা ভোট নিয়েও মাথাব্যথা রয়েছে অমিত শাহর। বাংলা সীমান্ত লাগোয়া চিরাং রাজবংশী ধর্মগুরু অনন্ত মহারাজের প্রভাব রয়েছে অন্তত দশ লক্ষ কোচ-রাজবংশীদের মধ্যে। সেই প্রভাব থেকে ডিভি়ডেন্ট চায় বিজেপি। সেই কারণেই বৈঠক। অনন্ত মহারাজের বাসভবনেই  মধ্যাহ্নভোজ সেরে মদনমোহন মন্দির দর্শনে যাবেন শাহ। রাসমেলার মাঠে পরিবর্তন যাত্রারও সূচনা করবেন তিনি। বেলা ১ টা ১৫মিনিট নাগাদ বাগডোগরা থেকে উড়ান। দুপুর ৩ টে ১০ মিনিটে ঠাকুর নগর হেলিপ্যাডে নামবেন শাহ। দুপুর ৩টে ২০ মিনিট নাগাদ হরিচাঁদ মন্দির দর্শন করে ৩.৪৫ নাগাদ ঠাকুরনগর মাঠে জনসভা শুরু করবেন শাহ। এই জনসভা ঘিরেই আসায় বুক বাঁধছেন মতুয়ারা। ইতিমধ্যেই দূরদূরান্ত থেকে তাঁরা আসাও শুরু করেছেন।


    মতুয়ারা শাহর দিকে তাকিয়ে আছেন, বিষয়টা এমন একরৈখিক নয়। রাজ্যের ৮৩টি আসনে নির্ণয়ক ফ্যাক্টর মতুয়া ভোট, ফলে বিজেপিরও মসনদ দখলে চাই মতুয়া ভোট। বনগাঁ লোকসভার সাতটি বিধানসভার ৬টিতে ৪০ শতাংশের বেশি মতুয়া ভোট রয়েছে, এ কথাও কোনও রাজনৈতিক দলের অজানা নয়। তাই মতুয়া মন রাখতে তুষ্ট রাখতে কোমর বেঁধে নেমেছে সব পক্ষই। অতীতে নাগরিকত্ব প্রদান নিয়ে গড়িমসিতে ক্ষুব্ধই ছিলেন শান্তনু ঠাকুর। ভোটব্যাঙ্ক ঠিক রাখতে তুষ্ট রাখতে হবে তাকেও, তাই তৎপরতা সব মিলিয়েই।

    ২০০৮ সালের আগে মতুয়া ভোটের একটা বড় অংশই ছিল বামেদের। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্রমেই মতুয়ামন জয় করতে শুরু করেন। বড়মার সঙ্গে তাঁর আন্তরিক সম্পর্ক তৈরি হয়। ২০১৪ সালে সেই ভোটব্যাঙ্কে হাত বসায় বিজেপি। ২০১৯ লোকসভা ভোটে বনগাঁয় জয়লাভ করে বিজেপি। কিন্তু ২০২১ নির্বাচনের বৈতরণী পার করতে হলে শুধু বনগাঁ দিয়ে হবে না জানেন শাহ। চাই গোটা রাজ্যের মোটুয়া ভোটকে একজায়গায় করা। সেই কাজে নেমে মরিয়া শাহ আজ কী বার্তা দেন সেই বার্তাই দেওয়ার।

    Published by:Arka Deb
    First published:

    লেটেস্ট খবর