মমতা-শাহ দ্বৈরথ একই দিনে, শাহ বিরোধী পোস্টারে ছয়লাপ নামখানা, সুর চড়াচ্ছে বিজেপিও

মমতা-শাহ দ্বৈরথ একই দিনে, শাহ বিরোধী পোস্টারে ছয়লাপ নামখানা, সুর চড়াচ্ছে বিজেপিও
অমিত শাহ-মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দ্বৈরথ আজ।

শাহের সভাস্থলের পাশে চোখে পড়ছে এসএফআইয়ের পোস্টার। শাহ বিরোধী পোস্টার ব্যানারে ছয়লাপ গোটা এলাকা।

  • Share this:

    #নামখানা: আজ অমিত শাহের সভাদক্ষিণ ২৪পরগনার কাকদ্বীপে । একই সময়ে এই দক্ষিণ ২৪ পরগনার পৈলানে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তৃণমূলের যুবনেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা ডাকা হয়েছে। বিজেপির তরফে মমতা-অভিষেকের এই সভা ডাকার সমালাোচনা করে বলা হচ্ছে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল পায়ে পা লাগিয়ে সংঘাত বাধাবার জন্য এভাবে একই দিনে একই জেলায় সভা ডেকেছে। মমতার এই সভাকে অশান্তি করার চেষ্টা বলে অভিযোগ করছে তাঁরা। আজ দ্বৈরথ শুরুর আগেই তাই সব মিলিয়ে দক্ষিণ চব্বিশ পরগণায় উত্তপ্ত পরিবেশ।  আজ নামখানায় অমিত শাহের জনসভা। শাহের সভাস্থলের পাশে চোখে পড়ছে এসএফআইয়ের পোস্টার।শাহ বিরোধী পোস্টার ব্যানারে ছয়লাপ গোটা এলাকা।

    মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পৈলানের এই সভার কথা আগে জানা ছিল না, এমনটাই অভিযোগ বিজেপির। এই প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদারকে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পৈলানে সভা করার কথা দুদিন আগেও কারও জানা ছিল না।হঠাৎ সবাই জানলেন যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ১৮ ফেব্রুয়ারি পৈলানে সভা করবেন । সাধারণভাবে আমরা জানি আগে কারও বড় সভা থাকলে সেই একই জেলায় বা অঞ্চলে পুলিশ অন্য সভার অনুমতি দেয় না। আমাদের ক্ষেত্রে এরকম ঘটনা অনেক হয়েছে। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশাসন তো মমতার মতোই চলে।"

     মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পৈলানের সভা প্রসঙ্গে জয়প্রকাশ মজুমদার আরও বলেন, “দক্ষিণ ২৪ পরগনার ম্যাপটা যারা জানেন তাঁরা জানেন ডায়মন্ড হারবার রোড হচ্ছে এই এলাকার আর্টারিয়াল রোড। তাই অমিত শহর কাকদ্বীপের সভায় কলকাতা, সোনারপুর থেকে বিজেপি সমর্থকরা নামখানার অভিমুখে যাবেন ডায়মন্ড হারবার রোড ধরে। তাদের গন্তব্য থাকবে দক্ষিণ মুখী। আবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা পৈলানে। সেই সভায় নামখানা, কাকদ্বীপ থেকে তৃণমূল সমর্থকারেরা আসবেন উত্তরমুখী, ওই একই ডায়মন্ড হারবার রোড ধরে। এই দুটো সভায় লোক যাওয়ার জন্য ডায়মন্ড হারবার রোড অপ্রতুল, পর্যাপ্ত রাস্তা সেটা নয় । তাই আজ হঠাৎ এভাবে সভা ডেকে দেওয়ার মানে অশান্তির চেষ্টা করা।"


     প্রসঙ্গত মমতা-অভিষেকের পৈলানের সভায় যে ভিড় হবেই সে বিষয়ে জেলা তৃণমূল প্রায় নিশ্চিত। গত রাতেই জখম হয়েছেন স্নেহভাজন মন্ত্রী। এই অবস্থায় মমতা কী বার্তা দেন সেদিকে নজরও থাকবে রাজনৈতিক মহলের।

    দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৩১টি বিধানসভার মধ্যে ২৬টি বিধানসভা থেকে তৃণমূল কর্মীদের এই সভায় আসার জন্য বলা হয়েছে। এদিকে বিজেপির তরফেও দাবি করা হয়েছে যেহেতু অমিত শাহের সভা হবে নামখানায় তাই সেখানেও দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৩১টি বিধানসভা থেকেই বিজেপি সমর্থকরা যোগ দেবেন।

    প্রসঙ্গত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ডিসেম্বর মাসে তাঁর কালীঘাটের বাড়িতে দলের সাংসদ ও বিধায়কদের সঙ্গে বৈঠকে নির্দেশ দিয়েছিলেন, বিজেপি যেখানে যখন সভা করবে হয় সেদিন বা তার পরের দিন সেখানে তৃণমূলের পালট সভা করতে হবে। ফলে পৈলানের সভা হঠাৎ করে ডাকা হয়নি বলে তৃণমূলের দাবি।

    Published by:Arka Deb
    First published: