• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • 'বিজেপি ক্ষমতায় এলে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী বাংলারই ভূমিপুত্র', কার কথা বললেন শাহ‌?

'বিজেপি ক্ষমতায় এলে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী বাংলারই ভূমিপুত্র', কার কথা বললেন শাহ‌?

দুদিনের সফর শেষে বোমা ফাটালেন অমিত শাহ। ছবি ট্যুইটার থেকে নেওয়া।

দুদিনের সফর শেষে বোমা ফাটালেন অমিত শাহ। ছবি ট্যুইটার থেকে নেওয়া।

বাংলা বিজেপির কোনও পুরনো সদস্য নাকি নতুন যোগ দেওয়া শুভেন্দু অধিকারী, অমিত উবাচ নিয়ে রাজনৈতিক জল্পনা তুঙ্গে।

  • Share this:

    #কলকাতা: দু'দিনের গেরুয়া ঝড়ের শেষ ক্লাইম্যাক্স সাংবাদিক বৈঠক। অমিত শাহ বলে দিলেন, বাংলার মুখ্যমন্ত্রী হবেন বাংলারই ভূমিপুত্র। তাঁর চ্যালেঞ্জ, বাংলায় ২০০ সিট পাবে বিজেপি। ভূমিপুত্র বলতে কার কথা বলছেন অমিত শাহ? বাংলা বিজেপির কোনও পুরনো সদস্য নাকি নতুন যোগ দেওয়া শুভেন্দু অধিকারী, অমিত উবাচ নিয়ে রাজনৈতিক জল্পনা তুঙ্গে। অনেকেই মনে করিয়ে দিচ্ছেন, শুভেন্দুকে প্রথম থেকেই কতটা গুরুত্ব দিচ্ছে দল, উঠছে তাঁর দিল্লি যাওয়ার জল্পনাও। কেউ আবার এগিয়ে রাখছেন পুরনো ঘোড়াদেরই।

    দুদিনের সফরের শেষে বিমান ধরার আগে সাংবাদিক বৈঠকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের কড়া সমালোচনা করেন অমিত শাহ। অমিত শাহের দাবি, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কৃষি, শিল্প সর্বত্রই তলানিতে বাংলা। অমিত শাহ মনে করছেন, তৃণমূলে পরিবারতন্ত্র চলছে। তাঁর উবাচ, বাংলায় মা মাটি মানুষ স্লোগান ব্য়র্থ। অমিতের পাল্টা প্রত্যাশা, এবার বাংলার জনতাকে সুশাসন দিতে আসছে বিজেপি।

    রাজধানীতে এখনও আন্দোলনে অনড় কৃষকরা। তৃণমূল সুপ্রিমো বার্তা দিয়েছেন, কৃষক আন্দোলনের পক্ষে আছে, এই প্রসঙ্গ উঠতেই তাঁর দাবি, কৃষকদের কেন্দ্রের টাকা পৌঁছে দিচ্ছে না তৃণমূল সরকার।

    এদিন বৈঠকের শুরুতে অমিত শাহের প্রশ্ন ছিল, বাংলার জুটমিলগুলি বন্ধ, কে দায়ী? বাংলার আর্থিক দুর্নীতির জন্য দায়ী কে? এই প্রসঙ্গে অমিত শাহের যুক্তি, "রাজ্যের শিল্প তলানিতে এসে ঠেকেছে। ৫০ হাজার টাকা ঋণ মাথায় নিয়ে শিশু জন্মাচ্ছে। শাহের প্রশ্ন, কেন এই ঋণ, কেন উন্নয়ন নেই?" কথায় কথায় তৃণমূলকে তোলাবাজ পার্টি বলেও দাগিয়ে দিলেন শাহ।

    অমিত শাহের এদিন একটি তালিকা তুলে ধরে দেখান," শিক্ষার নিক্তিতে ৩২ এর মধ্যে ২৮ নম্বরে পৌঁছেছে বাংলা।" আজও নাম না করে অমিত শাহ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রসঙ্গ তুলে আনেন। 'ভাইপো' টিপ্পনী ছিল তাঁর মুখেও। বলেন, "বাংলায় পরিবাদবাদ চলছে।" তাঁর মতে, প্রায় রোজ বিজেপির কার্যকর্তাদের হত্যা করা হচ্ছ এই রাজ্যে, সব মিলিয়ে রাজনৈতিক হিংসা চরমে পৌঁছেছে।

    জে পি নাড্ডার কনভয়ে হামলা কাণ্ডে আইপিএস ডেপুটেশনকে ঘিরে রাজ্য-কেন্দ্র সংঘাত তুঙ্গে। নিজ সিদ্ধান্তে অনড় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পাশে পেয়েছেন বেশ কয়েকটি অ-বিজেপি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের। অমিত শাহ কিন্তু মনে করছেন এই সিদ্ধান্ত কেন্দ্র নিয়েছে সংবিধান মেনেই।

    বিজেপিকে ভোটের আগে বারবার বাইরে থেকে লোক আনছে। তৃণমূল প্রচার করছে বহিরাগত তত্ত্ব। এই নিয়ে অমিত শাহ মনে করেন, বিভ্রান্তি ছড়াতে এই তত্ত্ব ছড়াচ্ছে তৃণমূল। বৈঠকে আসে সিএএ প্রসঙ্গও। অমিত শাহ কবে সিএএ ঘোষণা করবে? উত্তরে অমিত শাহ বলেন,সিএএ-এর কার্যকরী করা শুরু হবে করোনা টিকাকরণ হয়ে গেলেই।

    Published by:Arka Deb
    First published: