ক্রিসমাসের বাজারে দেদার বিক্রি হচ্ছে জাতীয় পতাকা, কারণ...

ক্রিসমাসের বাজারে দেদার বিক্রি হচ্ছে জাতীয় পতাকা, কারণ...
Representative Image

রোজই চললে এনআরসি-সিএএ কর্মসূচি। কেউ সমর্থনে, আবার কেউ প্রতি প্রতিবাদে। মিছিলে দলীয় পতাকা বাদে জাতীয় পতাকা। প্রতিবছর ২৬ শে জানুয়ারি ?

  • Share this:

Susobhan Bhattacharya

#কলকাতা: ডিসেম্বরে ওল্ড চায়না বাজারে বিক্রি হয় ক্রিসমাসের সরঞ্জাম। তবে ক্রিসমাসের পর বেড়ে যায় জাতীয় পতাকার বিক্রি৷ তবে এবছর চিত্রটা উল্টো৷ ক্রিসমাসের আগেই বিক্রি হচ্ছে জাতীয় পতাকা। তাহলে কি সবাই আগাম মজুত করে রাখছেন? এমনটাই আশঙ্কা করছিল বিক্রেতারা। তবে যে সাইজের পতাকার চাহিদা তা কোনদিনই ২৬ শে জানুয়ারি বিক্রি হয়না। আসলে সবই কিনছে মিছিলে অংশ নেবার জন্য।

বিভিন্ন দলের সমর্থকরা এলেই বিক্রেতারা অনায়াসে বুঝে যান তিনি কোন দলের, কী কী লাগবে তা শুধু শোনার অপেক্ষা। এই ইস্যু যেন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলকে মিলিয়ে দিলো জাতীয় পতাকা দিয়ে। জানুয়ারিতে বিক্রি হয় ছোট, বড়,মাঝারি মাপের পতাকা৷ সব মিলিয়ে প্রায় ৬০০ পতাকা বিক্রি হয়। এবছর এখনই বিক্রি হয়েছে তার দ্বিগুণ। চাহিদা বাড়ায় বাড়তি মুনাফার দিশা দেখছেন বিক্রেতা রাহুল গুপ্তা। সব কিছুর মধ্যে দাম কম হয় আড়াই ফুট লম্বা ও দুই ফুট চওড়া পতাকার।

গত বছর বিক্রি হয়েছিল ৫ হাজারের মতো পতাকা। এত আগে ৫০০-র বেশি সম্ভব নয়, সব রেকর্ড ভেঙে এখনই আড়াই হাজার। বিক্রেতা দেবাশীষ পালধি জানালেন ২৬ শে জানুয়ারি অথবা ১৫ই আগষ্টে যা বিক্রি হয়, তার থেকে এবার বছর শেষেই বেশি বিক্রি হতে পারে জাতীয় পতাকা বিক্রি৷ এতে রেকর্ড গড়তে পারে৷ একে মন্দা, বিভিন্ন জিনিসের বাজার খারাপ তখনই এনআরসি- সিএএ-র জেরে জাতীয় পতাকার চাহিদা অনেক।

First published: 04:15:56 PM Dec 30, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर