corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিভিন্ন পুর এলাকায় বর্জ্যের চাপ কমছে না, রাস্তায় পড়ে থাকা বর্জ্যে চিন্তায় বাড়ছে 

বিভিন্ন পুর এলাকায় বর্জ্যের চাপ কমছে না, রাস্তায় পড়ে থাকা বর্জ্যে চিন্তায় বাড়ছে 

এবার রাজ্যের পুর এলাকায় এই বর্জ্যের চাপ কমাতে চারটি এলাকায় ইউনিট তৈরি করছে রাজ্য সরকার।

  • Share this:

#কলকাতা: রাজ্যের একাধিক পুরসভায়, বাড়ি বাড়ি থেকে জঞ্জাল নেওয়ার প্রক্রিয়া চালু হয়েছে। যদিও রাজ্যের বিভিন্ন পুর এলাকায় বর্জ্যের চাপ কমছে না। বহু ক্ষেত্রেই রাস্তায় পড়ে থাকছে। কখনও কখনও তা নিয়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের ক্ষোভ বাড়ছে। এবার রাজ্যের পুর এলাকায় এই বর্জ্যের চাপ কমাতে চারটি এলাকায় ইউনিট তৈরি করছে রাজ্য সরকার। হুগলির বৈদ্যবাটি, উত্তর ২৪ পরগণার অশোকনগর, নিউটাউনের পাথরঘাটা ও রাজীবনগরের কাছে প্রমোদনগরে হবে এই ইউনিট বা প্রকল্প। যার জন্যে খরচ হবে ২২০০ কোটি টাকা।

গত বছর জাতীয় পরিবেশ আদালত দেশের ১ লক্ষ বা তার অধিক জনসংখ্যা যেখানে আছে সেখানকার পুরসভাগুলিকে সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট রুলস চালু করতে বলে। যেখানে বাড়ি থেকে জঞ্জাল সংগ্রহ, সেই জঞ্জাল আলাদা করা, ডাস্টবিন বসানো, রাস্তার আবর্জনা সাফাই, প্লাস্টিক বন্ধ করতে হবে সেই নিয়মে। যদিও সেই কাজ সম্পূর্ণ ভাবে পালন হয়নি বলে অভিযোগ। তার জেরে রাজ্য সরকারকে এক কোটি টাকা অন্তর্বর্তী ক্ষতিপূরণ জমা দিতে বলা হয়েছে। তাই রাজ্যের পুর এলাকায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় ব্যবস্থা নিতে চলেছে রাজ্য সরকার।

যে নয়া চারটি ইউনিট খোলা হচ্ছে তাতে হুগলির বৈদ্যবাটি প্রকল্পে খরচ ৬০০ কোটি টাকা। হুগলির ৮ পুরসভা এটি ব্যবহার করবে। উত্তর ২৪ পরগণার অশোকনগরের প্রকল্পের খরচ ১৫০ কোটি টাকা৷ এখানে মোট ৩টি পুরসভা ব্যবহার করবে। নিউটাউনের পাথরঘাটায় প্রকল্প খরচ ৪০০ কোটি টাকা। যেখানে বিধাননগর, নবদিগন্ত ও কলকাতা পুরসভার ২১ ওয়ার্ড ব্যবহার করবে। প্রমোদনগর সবচেয়ে বড় প্রকল্প। খরচ হবে প্রায় ১১০০ কোটি টাকা। মোট ৮ টি পুরসভা এটি ব্যবহার করবে। পুর দফতরের এই কাজে খুশি রাজ্যের পরিবেশ মন্ত্রক। তারাও এই বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরে প্রচার চালাচ্ছিল। তবে এখন করোনা আবহে এই ইউনিটের গুরুত্ব অনেকটা বাড়বে বলেই মত তাদের। এছাড়া গোটা রাজ্যে ৮০ লক্ষ ডাস্টবিন বিলি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার।

Published by: Pooja Basu
First published: July 31, 2020, 2:48 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर