• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • AIR INDIA EXPRESS IX 1134 FLIGHT AIR CREW MANAGER ABHIK BISWAS SAVED OTHERS IN THE PLANE IN KOZHIKODE SS

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাত্রীদের প্রাণ বাঁচিয়েছেন বাঙালি এয়ার ক্রু ! অভীকের জন্য গর্বিত বাংলা

অভীক বিশ্বাস

লকডাউনের কারণে কোন্নগর থেকে কলকাতায় ল‍্যান্সডাউনে মাসির বাড়িতে এসে আটকে পড়েন অভীকের দিদি অস্মিতা। বার বার চেষ্টার পর শুক্রবার রাত ১১ টার কাছাকাছি সময় ফোনে পাওয়া যায় অভীককে।

  • Share this:

#কলকাতা: শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত সময়টা যেন থমকে ছিল। কলকাতার ল্যান্সডাউন থেকে কোন্নগরের ছোট কালিতলা। বিশ্বাস পরিবারের সদস্যরা আতঙ্কে উৎকণ্ঠায় ভয়ে কাঁটা হয়ে ছিলেন।

কোজিকোড়ের বিমান দুর্ঘটনার খবর ততক্ষণে ছড়িয়ে পড়েছে দেশ জুড়ে। ল্যান্সডাউন থেকে ছোট কালিতলা। পাল্লা দিয়ে বেড়েছে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা। দুর্ঘটনার কবলে পড়া IX-1134-এর এয়ার ক্রু ম্যানেজার অভীক বিশ্বাসের সঙ্গে কিছুতেই যোগাযোগ করে উঠতে পারছিলেন না বৃদ্ধ বাবা-মা ও দিদি অস্মিতা।

লকডাউনের কারণে কোন্নগর থেকে কলকাতায় ল‍্যান্সডাউনে মাসির বাড়িতে এসে আটকে পড়েন অভীকের দিদি অস্মিতা। বার বার চেষ্টার পর শুক্রবার রাত ১১ টার কাছাকাছি সময় ফোনে পাওয়া যায় অভীককে। দুর্ঘটনাগ্রস্ত বিমান থেকে যাত্রীদের উদ্ধার করে অভীক তখনও কোঝিকোড় বিমানবন্দরে। ফোন লাগতে দিদি অস্মিতার সঙ্গে দু-চার কথা।"বেঁচে আছি। সুস্থ আছি। এখনও বিমানবন্দরে আটকে। যাত্রীদের বের করে এনেছি। চিন্তা করিস না। কথা বলার মত পরিস্থিতি নেই। পরে আবার ফোন করব।" ফোন কেটে দেয় IX-1134-এর এয়ার ক্রু ম্যানেজার অভীক। অস্মিতার থেকে ছেলের খবর জানতে পেরে অবশেষে স্বস্তি নামে কোন্নগরের ছোট কালিতলার বিশ্বাস পরিবারে।

অভীক বিশ্বাস। কোঝিকোড়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়া এয়ার ইন্ডিয়া বিমানের একমাত্র বাঙালি। জন্ম, বেড়ে ওঠা হুগলির চন্দননগরে। তারপর উঠে আসা কোন্নগরের নতুন বাড়িতে। সেন্ট জেভিয়ার্স থেকে স্নাতক ভাইয়ের কথা বলতে গিয়ে শনিবার আবেগে গলা বুজে যায় দিদি অস্মিতার,"ভাইয়ের জন্য গর্ব হচ্ছে। এত বিপদের মধ্যে মাথা ঠান্ডা রেখে, নিজের প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে, সব যাত্রীকে বার করে এনে তবেই বিমান থেকে নেমেছে ভাই।"

বিপদসংকুল পেশা। আকাশপথে প্রতি পদে জীবনের ঝুঁকি। শুক্রবারের ঘটনার পরেও চাইবেন ভাই এই পেশায় থাকুক? দিদি অস্মিতা আবেগ বিহ্বল গলায় বলে ওঠেন,"ভাই যে ভাবে খুশি থাকবে, সেই ভাবেই থাকুক না!"

PARADIP GHOSH 

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: