corona virus btn
corona virus btn
Loading

রেশনের ডাল নিয়ে এবার শোরগোল 

রেশনের ডাল নিয়ে এবার শোরগোল 

রাজ্য অবশ্য অভিযোগ উড়িয়ে বলছে যে কেন্দ্রীয় সংস্থা মারফত ডাল এসে পৌছনোর কথা তা রাজ্য হাতে পায়নি।

  • Share this:

#কলকাতা: ডাল নিয়ে শোরগোল খাদ্য দফতরে। রাজ্যপাল সহ বিরোধীদের অভিযোগ কেন্দ্র ডাল দিলেও রেশন ব্যবস্থায় এখনও গ্রাহকদের ডাল দেওয়া হয়নি। রাজ্য অবশ্য অভিযোগ উড়িয়ে বলছে যে কেন্দ্রীয় সংস্থা মারফত ডাল এসে পৌছনোর কথা তা রাজ্য হাতে পায়নি। ফলে জাতীয় খাদ্য সুরক্ষা প্রকল্পে যাদের ডাল পাওয়ার কথা তারা কবে ডাল পাবেন তা নিয়ে সংশয় দানা বেঁধেছে।

একই সাথে রাজ্য সরকারের দাবি, কেন্দ্র মুসুর বা মুগের বদলে ছোলা বা অড়হর বাছাই করতে বলেছে রাজ্যকে। যদিও এই দুই ডাল নিতে নিমরাজি খাদ্য দফতর।চলতি মাসের ৪ তারিখ রাজ্য খাদ্য দফতর একটি চিঠি পায়। কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থা নাফেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সঞ্জীব চাড্ডা একটি চিঠিতে গণ বন্টন ব্যবস্থায় থাকা ডাল নিয়ে বিশদে জানানো হয়েছে। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, মুসুর ডালের যথাযথ জোগান নেই। মুসুরের সাথে সামঞ্জস্য রেখে মুগ ডাল সরবরাহ করা যায়। কিন্তু মুগ ডাল পেতেও অসুবিধা তৈরি হয়েছে। কারণ হিসেবে জানানো হয়েছে চিঠিতে একাধিক মিল বন্ধ থাকার কারণে সেই ডাল ভাঙানো যায়নি। ফলে এই রাজ্যে বিকল্প হিসাবে ছোলা বা অড়হর ডাল নিতে হবে। নাফেডের এই চিঠির জবাব অবশ্য রাজ্য সরকার দেবে। তবে খাদ্য মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক জানিয়েছেন, "সাধারণ ভাবে আমাদের গ্রামাঞ্চলে এই ডালের ব্যবহার প্রতিদিনের রান্নার কাজে ব্যবহার হয় না। ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে এই ডাল নেওয়া নিয়ে একটা সংশয় আছে।"

রাজ্যের প্রায় ৬ কোটি ১ লক্ষ মানুষ যারা জাতীয় খাদ্য সুরক্ষা প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত তাদের এই ডাল পাওয়ার কথা। রেশন ব্যবস্থায় প্রায় ১ কোটি ৪৩ লক্ষ মানুষ এই ডাল পেতে পারেন। এর জন্যে রাজ্যে প্রতি মাসে ১৪৫৩০ মেট্রিক টন ডাল প্রয়োজন। যদিও খাদ্যমন্ত্রীর অভিযোগ নাফেড কোনও ডাল এখনও রাজ্যকে দেয়নি। নাফেডের গোডাউনে সেই ডাল পড়ে আছে। ফলে কেন্দ্র ও রাজ্যের মধ্যে এবার রেশনের ডাল নিয়ে শুরু হল নয়া দ্বন্দ্ব। কিছুদিন আগে রাজ্যপাল ট্যুইট করে ডাল সম্পর্কে জানিয়েছিলেন। সেখানেও ডাল দেওয়ার উল্লেখ ছিল। রাজ্য অবশ্য সেই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছিল তখনও। খাদ্যমন্ত্রীর অভিযোগ রাজ্যপাল রেশন নিয়ে মিথ্যা কথা বলছেন।

Published by: Dolon Chattopadhyay
First published: May 10, 2020, 11:26 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर