Home /News /kolkata /
Central Park: হাঁটতে গেলে দিতে হবে টাকা, সকালে হাঁটতে আসা লাফিং ক্লাবের সদস্যদের মুখ শুকনো

Central Park: হাঁটতে গেলে দিতে হবে টাকা, সকালে হাঁটতে আসা লাফিং ক্লাবের সদস্যদের মুখ শুকনো

সকালে হাঁটতে গেলে টিকিট কাটতে হবে, প্রথম কলকাতায় শুরু হল। বয়স্ক নাগরিকেরা বিক্ষোভ দেখালেও সরকারি সিদ্ধান্তের কাছে মাথা নত করে ফিরতে হল সবাইকে।

  • Share this:

#কলকাতা: বয়স্ক নাগরিকদের ঢুকতে দেওয়া হল না প্রাতঃভ্রমণে।রীতিমত ক্ষোভে ফেটে পড়েন তাঁরা। পার্কের গেটের সামনে ধর্নায় বসে পড়েন সবাই। বেশ কিছু ক্ষণ পার্কের কর্মী, বন-আধিকারিকদের সঙ্গে তাঁদের বচসা হচলে। কিন্তু তাতেও চিঁড়ে ভেজেনি। ফিরিয়ে দেওয়া হয় ওখানে আসা প্রত্যেক নাগরিককে।

ঘটনাটি ঘটেছে সল্টলেক সেন্ট্রাল পার্কে। বেশ কিছু দিন আগে থেকে পার্ক কর্তৃপক্ষ নোটিস দিয়েছিল। সেই নোটিসে জানানো হয়েছিল, ১ অগস্ট থেকে প্রাতঃভ্রমণ করতে ঢুকলে ১০ টাকা করে টিকিট লাগবে। তারপরই তাঁরা স্থানীয় বিধায়ক সুজিত বসুর সঙ্গে দেখা করেন। সুজিত বসু ভেবে দেখার কথা জানিয়েছিলেন বলে তাঁদের দাবি। বন-মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক একই কথা জানিয়েছিলেন। সেই আশাতেই ছিলেন সবাই।

আরও পড়ুন: "ওরা চান জট থাক, চাকরি আটকে থাক", অভিষেকের বৈঠক নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় আক্রমণাত্মক কুণাল

সেন্ট্রাল পার্কে ৯০ শতাংশের বেশি বয়স্ক নাগরিকেরা হাঁটতে আসেন।তাঁদের দাবি, তাঁরা শুদ্ধ অক্সিজেনের জন্য আসেন সেন্ট্রাল পার্কে। দূর-দূরান্ত থেকে জড়ো হন সবাই। কেউ হাঁটতে আসেন। কেউ ব্যায়াম করতে। সত্তরোর্ধ এক বৃদ্ধা জানালেন, তাঁদের একটি লাফিং ক্লাব আছে। তাঁরা চাইছেন পার্ক আগের মতই করমুক্ত করতে হবে।

প্রাতঃভ্রমণকারীরা প্রত্যেকেই সোমবার সকাল থেকে সেন্ট্রাল পার্কের গেটের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। কিন্তু দশ টাকা টিকিট না কাটলে কোনও ভাবে ঢুকতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়ে দেয় বন দফতর বিভাগ।

আরও পড়ুন: টাকা কার, কে ষড়যন্ত্র করল? ইডি-র পরের পর প্রশ্নের মুখেও অনড় পার্থ

তবে সূত্রের খবর,পার্কে সকালে সবাই ঢুকে পরার ফলে পার্ক নোংরা হত।এছাড়া পার্কের উন্নয়নের জন্য এই টাকা নেওয়া হচ্ছে। তবে বেলা দশটার পর যারা ঢোকেন এই পার্কে, তাঁদের কাছ থেকে ৫০/১০০ টাকা টিকিট নেওয়া হয় বরাবর। সকাল বেলা প্রাতঃভ্রমণকারীদের প্রতিবাদ এমন জায়গায় পৌঁছেছিল যে বিধান নগর পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় সামাল দিতে। দীর্ঘ সময় প্রতিবাদ চললেও কোনও লাভ হয়নি। দেখা গেল বেশ কিছু বয়স্ক নাগরিক রাস্তার উপর বসে রয়েছেন। তাঁদের দাবি, সুস্থ হতে এসেছিলেন, হতাশ হয়ে বাড়ি ফিরছেন। লাফিং ক্লাবের সদস্যরা মুখ শুকনো করে বাড়ি ফিরলেন। পার্কের গেটের সামনে বসে থাকা, দোকানিদের মুখও শুকনো। সকালের বিক্রি তাঁদের বন্ধ হয়ে গেল।  তবে সবাই বলে গেলেন, নৈতিক দিক থেকে তাঁরা টাকা দেবেন না।

SHANKU SANTRA

Published by:Teesta Barman
First published:

Tags: Morning Walk

পরবর্তী খবর