৬ মাস কোমায় থাকা পুলিশ অফিসার সুস্থ, কলকাতার ইনস্টিটিউট অফ নিউরোসায়েন্সের চিকিৎসকদের মিরাকল

৬ মাস কোমায় থাকা পুলিশ অফিসার সুস্থ, কলকাতার ইনস্টিটিউট অফ নিউরোসায়েন্সের চিকিৎসকদের মিরাকল

চিকিৎসকরা বলছেন এটা 'মিরাকল'।

  • Share this:

ABHIJIT CHANDA #কলকাতা: ৬ মাস ধরে ঘুমের মধ্যে লড়াই চালিয়েছিলেন অমিতাভ সেন। আর তাঁকে সঙ্গ দিয়েছিলেন একদল অকুতোভয় চিকিৎসক, নার্স এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা। আর অবশ্যই তার পরিবার। আর এসবের মেলবন্ধনে ৬ মাস ধরে কোমায় থাকার পর আবারো সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়ার অপেক্ষায় হার না মানা অমিতাভ সেন। চিকিৎসকরা বলছেন এটা 'মিরাকল'। দুর্গাপুর এ জোনের সার্কেল ইন্সপেক্টর অমিতাভ সেন (৫১)। বাড়ি দমদম। আগে ভদ্রেশ্বর থানার ওসি ছিলেন অকুতোভয় এই পুলিশ অফিসার। লোকসভা ভোটের পরবর্তীকালে ১৭ই জুন রাতে ডিউটি করার সময় তৃণমূল এবং বিজেপির সংঘর্ষের খবর পান। সেখানে গিয়ে পৌঁছতে তাঁর মাথায় পরে লোহার রডের আঘাত। গুরুতর আহত হন অমিতাভ সেন। দুর্গাপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। মস্তিষ্কে অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণ বা ইন্টারনাল হেমারেজ এতটাই হয়ে যায় যে তাঁর কথা বলা, হাঁটা চলা,খাওয়া-দাওয়া, এমনকি চোখের পলক পড়াও বন্ধ হয়ে যায়। চিকিৎসক পরিভাষায় যাকে কোমা স্টেজ বলা হয়। এরপরই শুরু হয় এক সংগ্রামের কাহিনী। দক্ষিণ ভারতের নামিদামি হাসপাতাল, এমনকি কলকাতার বিভিন্ন বেসরকারি- সরকারি হাসপাতাল প্রত্যেকে অমিতাভ সেনের শারীরিক অবস্থা দেখে এক প্রকার জবাব দিয়েছিলেন। কিন্তু এই শহরেরই একদল অকুতোভয় চিকিৎসক চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলেন।

মল্লিক বাজার এর ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেসে ১১ই জুলাই তাঁকে ভর্তি করা হয়। প্রথমে অস্ত্রোপচার আর তারপরে নিউরো রিহ্যাবিলিটেশন বা স্নায়ু পুনর্বাসন। চিকিৎসক সুপর্ণ গঙ্গোপাধ্যায় এবং তাঁর টিম অমিতাভ বাবুর বিভিন্ন ইন্দ্রিয়গুলোকে সক্রিয় করার জন্য নিরন্তর চেষ্ট চালালেন। ধীরে ধীরে অমিতাভ বাবু কথা বলতে শুরু করলেন, খেতে শুরু করলেন, এমনকি ওয়াকার নিয়ে হাঁটতেও শুরু করলেন। চিকিৎসকদের এই অদম্য লড়াইয়ের পাশে ছিলেন অমিতাভ সেনের পরিবার। এক মেয়ে দন্ত চিকিৎসা পাঠরত, ছোট ছেলে পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ছে। স্ত্রী লাবন্য সেন আপ্লুত শুধু নয়, বলছেন এসমস্তটাই এই ভগবান চিকিৎসকদের দয়া। এরাই আমার স্বামীকে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরিয়ে আনলেন। চিকিৎসক সুপর্ণ গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, আমরা সমস্ত রকম ভাবে চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছিলাম।আর তাতে সমানভাবে সাহায্য করেছেন অমিতাভ সেন। ৬ মাস কোমায় থাকার পর এই ভাবে ফিরে আসা সত্যিই এক অসম্ভব কাহিনী। বাড়ি ফিরে যাওয়ার অপেক্ষায় পুলিশ অফিসার অমিতাভ সেন। আগামী তিন মাসের মধ্যে তিনি আবারো কাজে যোগদান করতে পারবেন বলেও জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা। সত্যি!অমিতাভ সেনের এই কাহিনী এক হার না মানা হারেরই গল্প।

First published: January 3, 2020, 11:03 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर