‘চিকিৎসা যেন ব্যবসা না হয়’,নন্দীগ্রাম দিবসের অনুষ্ঠানে ফের বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর– News18 Bengali

‘চিকিৎসা যেন ব্যবসা না হয়’,নন্দীগ্রাম দিবসের অনুষ্ঠানে ফের বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর

নজরুল মঞ্চে নন্দীগ্রাম দিবসের দশ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে শোনা গেল হুঁশিয়ারি ৷

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Mar 14, 2017 03:43 PM IST
‘চিকিৎসা যেন ব্যবসা না হয়’,নন্দীগ্রাম দিবসের অনুষ্ঠানে ফের বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Mar 14, 2017 03:43 PM IST

#কলকাতা: নজরুল মঞ্চে নন্দীগ্রাম দিবসের দশ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে শোনা গেল হুঁশিয়ারি ৷ টাউন হলে বৈঠক ডেকে বেসরকারি হাসপাতালগুলির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা ও সাবধানবাণীর পরও মিটছে না হাসপাতালগুলির বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অব্যবস্থার অভিযোগ ৷ অ্যাপোলোয় সঞ্জয় রায় থেকে মেডিকায় সুনীল পাণ্ডে ৷ প্রতি ঘটনাতেই উঠেছে হাসপাতালের দিকে অভিযোগের আঙুল ৷ এদিন আরও একবার কলকাতার বেসরকারি নার্সিংহোম ও হাসপাতালগুলিকে ফের সতর্ক করলেন মুখ্যমন্ত্রী ৷

১০ বছর আগে নন্দীগ্রামে পুলিশের গুলিতে মৃত ১৪ জন গ্রামবাসীকে স্মরণ করে ১৪ মার্চ দিনটিকে কৃষক দিবস হিসাবে ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ নজরুল মঞ্চে বিশেষ অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার ৭৫ জনের হাতে কৃষকরত্ন পুরস্কার তুলে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ তাঁর বক্তব্যে ১০ বছর আগের ঘটনা ছাড়াও উঠে আসে নোট বাতিল থেকে জমি আন্দোলন, শস্য বীমা থেকে হাসপাতালের প্রতি সাবধান বাণী ৷

এদিনের সভা মঞ্চ থেকে রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান বলেন, ‘কৃষকদের সাহায্যে সরকার বদ্ধপরিকর ৷ সিঙ্গুরের কৃষকদের জমি ফিরিয়ে দিয়েছি ৷ খাবার না থাকলে জীবন চলে না ৷ তাই কৃষক না থাকলে দেশ চলে না ৷’ সেই কৃষকদের জন্য ভোটের আগে শাসক দল তৃণমূলের দেওয়া প্রতিশ্রুতি আরও একবার মনে করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা যা বলি, তাই করি ৷ ভোটের জন্য মিথ্যে প্রতিশ্রুতি দিই না ৷ ৯০ শতাংশ কৃষককে কিষাণ ক্রেডিট কার্ড দেওয়া সম্পূর্ণ ৷ ৫ বছরে ৭০ লক্ষ মানুষ কিষাণ ক্রেডিট কার্ড পেয়েছেন ৷ এই সরকারের আমলে কৃষকদের পারিবারিক আয় বেড়েছে ৷’

এরপরই ফের মোদির নীতি ও নোটবাতিলের সমালোচনায় মুখর হন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ তিনি বলেন, ‘নোটবন্দির প্রভাব পড়েছে কৃষিতে ৷ নোটবন্দিতে মৃত কৃষকদের পরিবারকে সম্মান দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে রাজ্য সরকার ৷ কৃষকদের সুবিধার্থে বাংলা ফসল বিমা চালু করা হয়েছে ৷ ক্ষতিগ্রস্ত হলে সঙ্গে সঙ্গেই ক্ষতিপূরণ কৃষকদের ৷ কর্প ইনসিওরেন্সের টাকাও দিচ্ছে রাজ্য সরকার ৷ শস্য বিমায় আর টাকা দিতে হচ্ছে না চাষিদের ৷ ধান চাষে সব বিধিনিষেধ তুলে দেওয়া হয়েছে ৷ মাটি পরীক্ষা চালু করেছে রাজ্য সরকার ৷ মাটির চরিত্র পরীক্ষা করে চাষের পরামর্শ ৷ চাষিদের ধান বিক্রি যাতে সহজ হয় তার জন্য এই ব্যবস্থা ৷’

শুধু কৃষিই নয়, একইসঙ্গে মাছ চাষেও সমান নজর রাজ্যের ৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মাছ চাষে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে রাজ্য ৷ ইলিশ মাছের গবেষণাগার তৈরি করা হয়েছে ৷ পেঁয়াজ চাষেও বিশেষ উদ্যোগ ৷

মাটি, পুকুর, সবুজ না থাকলে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা হয় না ৷ তাই সবুজকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে ৷ খরাপ্রবণ এলাকায় সেচের বিশেষ ব্যবস্থা ৷’

Loading...

এদিনের মঞ্চ থেকে সিপিএমের সমালোচনায় সরব মুখ্যমন্ত্রী ৷ বলেন, সিপিএমের ঋণ মেটাতে হচ্ছে আমাদের ৷ ৪০ হাজার কোটি টাকা ঋণ শোধ করতে হচ্ছে কেন্দ্রকে ৷ ২৮ হাজার মেট্রিক টন আলু সরকারি চাষিদের থেকে কিনবে ৷ চাষিদের থেকে মাত্র ৪.৬০ টাকায় আলু কেনা হবে ৷ আলু রফতানিতেও চাষিদের বিশেষ সুবিধা ৷ সবাইকে আধার কার্ড দিতে পারেনি কেন্দ্র ৷’

এরপরই বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের উদ্দেশ্যে আরও একবার উড়ে আসে সাবধানবাণী ৷ একইসঙ্গে রাজ্য সরকার প্রদত্ত বিনামূল্যে চিকিৎসা ব্যবস্থার কথাও জানান মুখ্যমন্ত্রী ৷ এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘চিকিৎসা যেন ব্যবসা না হয় ৷ চিকিৎসা সেবার জায়গা ৷ সাধারণের জন্য সব চিকিৎসা পরিষেবা বিনামূল্যে ৷ ইতিমধ্যেই ৩৬টি মাল্টি স্পেশালিটি সুপার হাসপাতাল তৈরি ৷ হাসপাতাল ভাঙচুর করবেন না ৷ অভিযোগ পেলে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেব ৷ আইন নিজেদের হাতে তুলে নেবেন না ৷ হাসপাতাল বন্ধ করতে তো বলিনি কিন্তু গায়ের জোরে টাকা আদায় চলবে না ৷ যার ক্ষমতা আছে তার থেকে নিন ৷ গায়ের জোরে জীবনের ন্যূনতম পুঁজি কাড়বেন না ৷ বাড়ির দলিল জমা রেখে, জোরজুলুম করবেন না ৷ টাকার জন্য চিকিৎসায় অবহেলা করবেন না ৷ আগে টাকা, পরে চিকিৎসা, এটা চলবে না ৷ জীবন মানে দুর্বলকে শেষ করা হয় ৷ জীবন মানে মানুষের পাশে দাঁড়ানো ৷ হার-জিৎ শেষ কথা নয় ৷ সকলে মর্যাদার সঙ্গে লড়াই করব ৷’

First published: 03:39:26 PM Mar 14, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर