corona virus btn
corona virus btn
Loading

ভক্তদের জন্য সুখবর, আগামী সপ্তাহ থেকেই খুলতে চলেছে কালীঘাটের মায়ের মন্দির

ভক্তদের জন্য সুখবর, আগামী সপ্তাহ থেকেই খুলতে চলেছে কালীঘাটের মায়ের মন্দির

আপাতত একসঙ্গে ১০ জনের বেশি ভক্তকে মন্দিরে প্রবেশাধিকার দেওয়া হবে না। মানতে হবে আরও অনেক নির্দেশিকা ।

  • Share this:

PARADIP GHOSH #কলকাতা :দক্ষিণেশ্বরের পর এ বার কালীঘাট। আগামী সপ্তাহেই ভক্তদের জন্য খুলে দেওয়া হচ্ছে কালীঘাট মন্দির। দিনক্ষণ এখনও চূড়ান্ত না হলেও আগামী সপ্তাহেই যে কালীঘাটে মায়ের দর্শন পাবেন ভক্তরা সেটা নিশ্চিত।

কোভিড সতর্কতার কারণে মন্দিরের মোট ছয়টি প্রবেশদ্বারের মধ্যে আপাতত তিনটি প্রবেশদ্বার দিয়ে ভক্তরা মন্দিরে প্রবেশাধিকার পাবেন। কালীঘাট টেম্পল রোডের ওপর মন্দিরের ২ নম্বর ( কালীঘাট থানা লাগোয়া), ৩ নম্বর (পুণ্য পুকুর লাগোয়া), ৪ নম্বর (পুণ‍্য পুকুর লাগোয়া) গেট দিয়েই আপাতত মন্দিরে যেতে আসতে পারবেন মায়ের ভক্তকূল। কোভিড পরবর্তী পর্যায়ে নিয়ন্ত্রণ করা হবে মন্দিরের ভক্ত সংখ্যাও। আপাতত একসঙ্গে ১০ জনের বেশি ভক্তকে মন্দিরে প্রবেশাধিকার দেওয়া হবে না। মন্দিরের মূল গেটে থার্মাল স্ক্রিনিং-র পর স্যানিটাইজিং টানেলের মধ্য দিয়ে মন্দিরে প্রবেশ করতে পারবেন ভক্তরা। স্যানিটাইজিং টানেল তৈরি হওয়ার কাজ শেষ না হওয়ায় কারণেই আগামী সপ্তাহে মন্দির খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মন্দির কর্তৃপক্ষ।

দক্ষিণেশ্বরের মতো করেই কালীঘাট মন্দিরেও মায়ের চরণামৃত বিলির সিদ্ধান্ত এই মুহূর্তে স্থগিত থাকছে। প্রসাদ হিসেবে ভক্তরা শুধুমাত্র মায়ের প্রসাদী ফুল ও মিষ্টি হাতে পাবেন। ভক্তদের মায়ের দর্শনের ক্ষেত্রেও যতটা সম্ভব সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার চেষ্টা করা হবে। মায়ের গর্ভগৃহ দর্শন নিয়ে এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি বলেই মন্দির সূত্রে খবর।

কোভিড পরবর্তী পর্যায়ে কাটছাঁট হচ্ছে ভক্তদের মন্দির দর্শনের সময়সীমায়। আগে সকাল ছ’টায় মন্দিরের দরজা খুলে যেত ভক্তদের জন্য। মন্দির খোলা থাকতো দুপুর দেড়টা পর্যন্ত। আবার বিকেলে চারটে থেকে রাত সাড়ে দশটা পর্যন্ত মন্দির খোলা থাকত। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে মন্দির দুপুরে বন্ধ হবে ঘন্টা খানেক আগেই। রাতেও ৯টার আগে মন্দিরের দরজা বন্ধ হবে বলেই মন্দির সূত্রে খবর।

বছরের অন্য সময় দিনে হাজার পনেরো ভক্ত ভিড় করতেন কালীঘাট মন্দিরে। বর্তমান অবস্থায় কোভিড আতঙ্ক সত্ত্বেও মায়ের মন্দিরে ভক্তকূলের ঢল অটুট থাকবে বলেই বিশ্বাস সেবাইত ও পূজারীদের।

Published by: Simli Raha
First published: June 12, 2020, 2:53 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर