'কুছ ভি হো সাকতা হ্যায়', ব্রিগেডে হাজির হলেন 'বাঙালিবাবু' মিঠুন

'কুছ ভি হো সাকতা হ্যায়', ব্রিগেডে হাজির হলেন 'বাঙালিবাবু' মিঠুন

ধুতি-পাঞ্জাবি আর শাল, একেবারে বাঙালি পোশাকে ব্রিগেডে হাজির হচ্ছেন মিঠুন।

ধুতি-পাঞ্জাবি আর শাল, একেবারে বাঙালি পোশাকে ব্রিগেডে হাজির হচ্ছেন মিঠুন।

  • Share this:

    #কলকাতা: তিনি মানেই আবেগ, তিনি মানেই সেই 'ডিস্কো ডান্সার', তিনি মানেই লড়াই করা উপরে ওঠার এক গল্প। বাঙালির অতি প্রিয় 'ঘরের ছেলে' মিঠুন চক্রবর্তী এবার কি বিজেপিতে? জল্পনা অমূলক নয়, কারণ বাংলা জয়ের লক্ষ্যে নরেন্দ্র মোদির ব্রিগেড সমাবেশের অন্যতম 'শো স্টপার' মিঠুনই। আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবতের সঙ্গে সরস্বতী পুজোর দিন দেখা করার পর থেকে যে জল্পনার শুরু হয়েছিল তা আজ ব্রিগেডের মাঠে যেন সেই বৃত্ত সম্পূর্ণ হতে চলেছে। শনিবারই কলকাতায় পা রেখেছিলেন মিঠুন। আর প্রধানমন্ত্রী আসার অনেক আগেই ব্রিগেডের মাঠে পৌঁছে যাচ্ছেন তিনি। ইতিমধ্যেই বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়েছেন তিনি। আপনি কি বিজেপিতে এবার? প্রশ্নের উত্তরে মিঠুনের জবাব, 'কুছ ভি হো সাকতা হ্যায়।' ধুতি-পাঞ্জাবি আর শাল, একেবারে বাঙালি পোশাকে ব্রিগেডে হাজির হচ্ছেন মিঠুন।

    শনিবার শহরে পৌঁছেই চমক দিয়েছেন মিঠুন। তাঁর বেলগাছিয়ার বাড়িতে রাতেই হাজির হয়েছিলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা তথা এ রাজ্যের পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়। দু'জনের মধ্যে দীর্ঘক্ষণ বৈঠকও হয়। এরপরই কৈলাস ট্যুইট সেই ছবি দিয়ে লেখেন, 'এই গভীর রাতে কলকাতার বেলগাছিয়ায় চলচ্চিত্র জগতের বিখ্যাত অভিনেতা মিঠুন দা-র সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে। তাঁর দেশপ্রেম এবং দরিদ্রদের প্রতি ভালবাসার গল্প শুনে আপ্লুত হয়ে গিয়েছি।'

    রবিবার সকালে সাড়ে এগারোটা নাগাদ ব্রিগেডের উদ্দেশে রওনা দেন মিঠুন। বউবাজারের কাছে তাঁর গাড়ি আটকে উচ্ছ্বাস দেখান বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। সেলফি তোলার আবদার আসতে থাকে। তবে, সকলকেই শুভেচ্ছা জানিয়ে গাড়ি ঘুরিয়ে ফের ব্রিগেডের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে 'মহাগুরু'র গাড়ি। পরিস্থিতি দেখে রাজনৈতিক মহলের একাংশের জল্পনা, তাহলে কি মিঠুনকেই মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করবে বিজেপি? যদিও সেই জল্পনা নিয়ে এখনও মুখ খোলেননি মিঠুন স্বয়ং।

    ব্রিগেডের মাঠে নরেন্দ্র মোদির হাত থেকেই বিজেপির হাতে তুলে নিতে পারেন মিঠুন, সেই জল্পনাও জারি রয়েছে। আর তা অনেকটা বাড়িয়ে দিয়েছেন কৈলাসও। তিনি জানান, ' ব্রিগেড সভার আসল সেলিব্রিটি প্রধানমন্ত্রী এবং উপস্থিত জনতা। আমরা সকলকেই এই সভার জন্য আমন্ত্রণ জানাচ্ছি, সঙ্গে মিঠুন চক্রবর্তীকেও।' তাঁর এই বক্তব্যের পর আরও বেড়েছে জল্পনা। তারপর গতকাল রাতের বৈঠক।

    Published by:Suman Biswas
    First published:

    লেটেস্ট খবর