Abhishek Banerjee: রাজনীতিতে পরিবারতন্ত্র বন্ধে আইন আনুক কেন্দ্র, বিজেপি-র কটাক্ষে পাল্টা চ্যালেঞ্জ অভিষেকের

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷

পরিবারতন্ত্র নিয়ে বিজেপি নেতাদের রীতিমতো চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন অভিষেক (Abhishek Banerjee)৷ তিনি বলেন, কোনও পরিবার থেকেই একজনের বেশি রাজনীতিতে আসতে পারবেন না বা সরকারি পদে থাকতে পারবেন না, এমন শর্ত দিয়ে আইন প্রণয়ণ করুক কেন্দ্র৷

  • Share this:

    #কলকাতা: নির্বাচনী প্রচার পর্বে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁকেই আক্রমণের নিশানা করেছিলেন নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহ থেকে শুরু করে ছোট বড় বিজেপি নেতারা৷ আঙুল তোলা হয়েছিল পরিবারতন্ত্রের দিকে৷ ভোটে বিপুল সাফল্যের পর দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কিন্তু তার পরেও বিজেপি শিবির থেকে ফের অভিষেকের উত্তোরণের পিছনে পরিবারতন্ত্রের তত্ত্ব খাঁড়া করা হচ্ছে৷ অভিষেককের নতুন দায়িত্বকে কটাক্ষ করে ট্যুইট করেন বিজেপি নেতা অমিত মালব্যও৷ এ দিন পরিবারতন্ত্র নিয়ে এই অভিযোগের জবাব দিয়েছেন অভিষেক৷ বিজেপি-র মধ্যে পরিবারতন্ত্রের উদাহরণ তুলে ধরে তাঁর জবাব, 'নোংরামি করার চেয়ে পরিবারতন্ত্র ভাল৷'

    পরিবারতন্ত্র নিয়ে বিজেপি নেতাদের রীতিমতো চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন অভিষেক৷ তিনি বলেন, কোনও পরিবার থেকেই একজনের বেশি রাজনীতিতে আসতে পারবেন না বা সরকারি পদে থাকতে পারবেন না, এমন শর্ত দিয়ে আইন প্রণয়ণ করুক কেন্দ্র৷ সেক্ষেত্রে সবার আগে তিনিই পদত্যাগ করবেন৷ অভিষেক বলেন, 'পরিবারতন্ত্র নিয়ে আপনারা কথা বলছেন? কারও ছেলে বিধায়ক, কারও ছেলে সাংসদ, কারও ছেলে মন্ত্রী৷ আপনারা এতো বিভ্রান্ত, চিন্তিত কেন? তাহলে যাঁদের অন্য দল ভেঙে নিয়েছেন তাঁদের মধ্যে কতজন পরিবারতন্ত্রের সুবিধা পেয়েছেন? আগে তাঁদের সরিয়ে দিন৷ দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং বিসিসিআই-এর যুগ্ম সচিব একই পরিবারের৷ আমি একজন সাংসদ, কিন্তু আমি আগামী ২০ বছরে মন্ত্রী হতে চাই না৷ জয় শাহ কি প্রকাশ্যে বলতে পারবেন যে তিনি আগামী ২০ বছরে বিসিসিআই সভাপতি হতে চান না৷ আমি বিনয়ের সঙ্গেই চ্যালেঞ্জ করছি৷'

    কটাক্ষ করে অভিষেক আরও বলেন, 'একদিকে বলছে তৃণমূল এমন একটা দল যাদের বাংলার বাইরে অস্তিত্ব নেই৷ আবার আমার নতুন দায়িত্ব নিয়ে তাদের চিন্তার শেষ নেই৷ তৃণমূল দেশের একমাত্র রাজনৈতিক দল যারা এক ব্যক্তি, এক পদ নীতি চালু করেছে৷ আর কোন রাজনৈতিক দল এমন সাহসী সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছে? আমরা সঠিক পথে যাওয়ার চেষ্টা করছি৷ আপনাদের গোটা প্রচার পর্ব জুড়ে পরিবারতন্ত্র নিয়ে অভিযোগ ছিল৷ মানুষই তার জবাব দিয়ে দিয়েছে৷ আমি শুধু একটা কথাই বলব, এক এক সময় নোংরামি করার থেকে পরিবারতন্ত্র বজায় রাখা ভাল৷'

    রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, বাংলার নির্বাচনে বিজেপি-কে পর্যুদস্ত করার পর সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গ্রহণযোগ্যতা আরও অনেকটাই বৃদ্ধি পেয়েছে৷ এমন কি, ইউপিএ চেয়ারপার্সন হিসেবেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামও শোনা যাচ্ছে৷ ২০২৪-এর ভোটের আগে এই সুযোগকে কাজে লাগিয়েই অন্য রাজ্যেও দলের বিস্তারের জন্য এর থেকে ভাল সময় হতে পারে না৷ আর সেক্ষেত্রে তরুণ মুখ অভিষেকও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন৷ যেভাবে মোদি-শাহদের আক্রমণের ঝড় সামলেও রাজনৈতিক পরিণতি বোধ দেখিয়ে অভিষেক এ রাজ্যের নির্বাচনে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন, তাতে তাঁকে এখন এই গুরুদায়িত্ব তুলে দেওয়াই যায়৷ পাশাপাশি দলের পরবর্তী প্রজন্ম তৈরির কথা ভেবেও অভিষেকের সঙ্গে আরও নতুন মুখ তৈরি করতে চাইছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন সরকার, প্রশাসন সামলানোয় ব্যস্ত থাকবেন, তখন অভিষেক সংগঠনকে মজবুত করার দিকে নজর দিতে পারবেন৷ ফলে দল এবং প্রশাসনের মধ্যে ভারসাম্য রাখাও সহজ হবে৷ ফলে বিরোধীরা যাই বলুন না কেন, তৃণমূলের অন্দরের মত হল যোগ্য লোকের হাতেই যোগ্য সময়ে দায়িত্ব তুলে দিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: