• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • 'দিদি ও দিদি...', মোদির লব্জে মহিলাদের প্রতি তীব্র অসম্মান দেখছে তৃণমূল

'দিদি ও দিদি...', মোদির লব্জে মহিলাদের প্রতি তীব্র অসম্মান দেখছে তৃণমূল

তৃণমূলের সাংবাদিক বৈঠকে শশী পাঁজা, জুন মালিয়া ও অনন্যা চক্রবর্তী।

তৃণমূলের সাংবাদিক বৈঠকে শশী পাঁজা, জুন মালিয়া ও অনন্যা চক্রবর্তী।

তাদের মতে, বিজেপি বুঝতে পেরেছে হার নিশ্চিত সেই কারণেই এই ধরনের 'অপমানসূচক' বক্তব্য রাখা।

  • Share this:

    #কলকাতা: দিদি ও দিদি... চেনা লব্জ। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় প্রচারে এসে এখন বারংবার এই শব্দবন্ধ ব্যবহার করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর দলের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানাতে। আর এই সম্বোধনেই মহিলাদের প্রতি তাচ্ছিল্য ও হেনস্থার মনোভাব খুঁজে পাচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূল ভবনে সাংবাদিক বৈঠকে এমনটাই জানালেন দলের মহিলা মুখ শশী পাঁজা, জুন মালিয়া, অনন্যা চক্রবর্তী। তৃণমূলের বক্তব্য, প্রধানমন্ত্রীর আসনের প্রতি শ্রদ্ধা থাকলেও এই ধরণের শব্দবন্ধ বা টিপ্পনী তাদের চোখে গর্হিত। তাদের মতে, বিজেপি বুঝতে পেরেছে হার নিশ্চিত সেই কারণেই এই ধরনের 'অপমানসূচক' বক্তব্য রাখা।

    এই বৈঠক থেকেই গুজরাটের নারীসুরক্ষার বিষয়ে কয়েকটি তথ্য তুলে ধরলেন অনন্যা চক্রবর্তী। সমাজকর্মী তথা চলচ্চিত্র নির্মাতা অনন্যা চক্রবর্তী এদিনের বৈঠকে দেখান, গুজরাট বিধানসভায় পেশ করা পরিসংখ্যান বলছে, গুজরাটে প্রতিদিন চারটি করে ধর্ষণ হয়েছে। দৈনিক গড়ে ছটি করে অপহরণ হয়েছে। গত দুবছরে ৩ হাজারের বেশি ধর্ষণ রয়েছে। রাজধানী আমেদাবাদে ধর্ষণ সবচেয়ে বেশি।

    বৈঠকে জুন মালিয়া যা বললেন

    আমি কখনও দুঃস্বপ্নেও ভাবতে পারিনি এমন একটা দিন আসবে। ভাবতেও খারাপ লাগছে এভাবে শুধুমাত্র মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নয়, বাংলার প্রতিটি মা বোনকে অপমানৱ করা হচ্ছে। দিদির হাত ধরে বাংলার নারীজাতিকে অপমান করা হয়েছে। সাতবার সাংসদ হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ১০ বছর ধরে তিনি আমাদের মুখ্যমন্ত্রী। যে ভাবে ওঁকে প্রধানমন্ত্রী কটাক্ষ করছেন, তা খুবই দুর্ভাগ্যজনক। পণ্ডিত জওহরলাল নেহেরু, নরসীমা রাও, অটলবিহারী বাজপেয়ী, মনমোহন সিং-মনে পড়ছে না এভাবে কখনও কথা বলেছেন। ওঁকে ভরসা করে আমরা আমাদের দেশের প্রতিনিধির আসনের বলেছি। আমরা বলছি খেলা হবে। খেলা হবে উন্নয়নের, খেলা হবে সবাইকে ভালো রাখার। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমাদের বিরোধী বিজেপি মুখ্যমন্ত্রীকে অপমান করার খেলায় মেতে উঠেছেন। তবে আমার দৃঢ় বিশ্বাস পশ্চিমবঙ্গবাসী এর জবাব দেবেন।

    অনন্যা চক্রবর্তী যা বললেন

    প্রধানমন্ত্রীর মহিলাদের প্রতি কোনও সম্মান নেই। একটি রাজ্যে এসে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর বিষয়ে যে ভাবে টিপ্পনী কাটছেন তা দুর্ভাগ্যজনক। এখান থেকেই বিদ্যাসাগর , রামমোহন , রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর-রা নারীমুক্তির কথা বলেছেন। ধর্ম মানে আমি যা ধারণ করি মানে মূল্যবোধ। এখানে এসে মেয়েদের এভাবে টিপ্পনী কাটাটা পুরুষতান্ত্রিকতা। বাংলায় মেয়েদের সঙ্গে এভাবে কথা বলা হয় না।

    Published by:Arka Deb
    First published: