টুম্পাসোনা নয়, ব্রিগেডের আগে তরুণের মন জয়ে বামেদের ব‌াজি 'নাচ'

টুম্পাসোনা নয়, ব্রিগেডের আগে তরুণের মন জয়ে বামেদের ব‌াজি 'নাচ'

প্রতীকী চিত্র

ব্রিগেডের ঠিক আগে এই শহরের ২২টি জায়াগয় হয়ে গেল এই ফ্ল্যাশমব।

  • Share this:

    #কলকাতা: রাত পোহালেই ব্রিগেড। মাঠ ভরাতে দশ লক্ষ লোক চাই। প্রতি বুথ থেকে যেন অন্তত দশজন কর্মী আনার বার্তা দিয়েছে সিপিএম। কার্পণ্য করেনি প্রচারেও। এবার দেওয়াল লিখনকে পিছনে ফেলে সামনে উঠে আসছিল টুম্পাসোনা-র প্যারডি। তবে তাঁর সত্ত্বাধিকার কখনও নিতে চায়নি আলিমুদ্দিন। বরং তর‌ুণের মনজয়ে শেষবেলায় উঠে আসছে নাচ, যার পোশাকি নাম ফ্ল্যাশমব। ব্রিগেডের ঠিক আগে এই শহরের ২২টি জায়াগয় হয়ে গেল এই ফ্ল্যাশমব।

    "শস্যে ফসলে মিশেছে আমাদের ঝরা ঘাম, আমরা ফসল ফলাই আমাদের পথ বাম।...আমরা লড়েছি কাকদ্বীপে, লড়েছি তেলেঙ্গানায় আমাদেরই নাম লেখা আছে ব্রিটিশের জেলখানায়, " ফ্ল্যাশমবের গানটি অনেকটা এমনই। গানটির স্রষ্টা নাট্য নির্দেশক জয়রাজ ভট্টাচার্য। গেয়েছেন অর্ক মুখোপাধ্যায়। এই গানের তালেই শহরের বিভিন্ন প্রান্তে পারফর্ম করছেন শিল্পীরা। উদ্দেশ্য একটাই, তরুণ প্রজন্মকে ব্রিগেডমুখী করে তোলা। এসপ্ল্যানেড চত্বরে, তালতলা বইমেলার মাঠে, যাদবপুর ৮বি বাস স্ট্যান্ড, সাউথ সিটি মলে এই হঠাৎ ফ্ল্যাশ মবে মানুষের উৎসাহও ছিল চোখে পড়ার মতো।

    জয়রাজ ভট্টাচার্য আমাদের বললেন, এখনও পর্যন্ত মোট ২২ টা ফ্ল্যাশ মব হয়েছে। আমি নিজে প্রতিটিতেই উপস্থিত থেকেছি, অর্কও ছিল। আমরা ভিক্টোরিয়ার সামনে ফ্ল্যাশমব করতে চাইছিলাম, সেটাও করা সম্ভব হয়েছে। এখানেই কিছুদিন আগে প্রধানমন্ত্রী নেতাজি স্মরণ অনুষ্ঠানে এসেছিলেন। তিনি আসতেই পারেন, কিন্তু সেখানে কলকাতার নামকরা দলগুলি পারফর্ম করে। আমরা তাদের পাল্টা বার্তা দিতে চেয়ে সেখানে জড়ো হয়েছিলাম। উল্লেখ্য ফ্ল্যাশমবের এই কনসেপ্টটি ছড়িয়েছে জেলাতেও। বিভিন্ন জেলায় গানটি বাজিয়ে সিপিএম-এর তরুণরা তাতে নিজেদের কোরিওগ্রাফি ব্যাবহার করেছে। এই তরুণরা আগামীকাল ব্রিগেডে যাবেন, তাদের নাচ কত নতুন মুখকে মাঠে টানতে পারে সেটাই দেখার।

    Published by:Arka Deb
    First published:

    লেটেস্ট খবর