• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • A CCTV FOOTAGE SHOWS THAT A GOLD BUSINESSMAN IS ATTACKED BY GOONS AT GARFA IN KOLKATA SWD

সোনার ব্যবসায়ীকে খোলা রাস্তায় বেধড়ক মার! সিসিটিভি ফুটেজে ধরা পড়ল মারধরের দৃশ্য

আক্রান্ত স্বর্ণব্যবসায়ীর দাবি, সিন্ডিকেটের রাজত্বে, তাদের বিরুদ্ধে কথা বললেই রীতিমত লাঞ্ছিত হতে হয় নিরীহ মানুষদের।

আক্রান্ত স্বর্ণব্যবসায়ীর দাবি, সিন্ডিকেটের রাজত্বে, তাদের বিরুদ্ধে কথা বললেই রীতিমত লাঞ্ছিত হতে হয় নিরীহ মানুষদের।

  • Share this:

#কলকাতা: সিন্ডিকেট মাতব্বরদের হাতে আক্রান্ত ব্যবসায়ী। ঘটনা গড়ফা এলাকার। ৩০ অগাস্ট দুপুর ২টো নাগাদ সোনার ব্যবসায়ী অমিত দাস কয়েকজন ব্যক্তির হাতে আক্রান্ত হন। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, ওই সোনার ব্যবসায়ীকে মারধর করছে কয়েকজন ব্যক্তি। তার মধ্যে হলুদ গেঞ্জি পরা একজন ব্যক্তিকে বেধড়ক মারধর করতে দেখা যায়। ওই ব্যক্তির নাম প্রদীপ ঘোষ বলে জানা গিয়েছে। আহত অমিত দাসকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করাতে হয়।

ঘটনার পরে ওই হামলাকারীরা এলাকায় হুমকি দিয়ে চলে যায়। ওদের পরিচয় যা জানা গিয়েছে, ওরা প্রত্যেকেই এলাকায় সিন্ডিকেট ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত। ওই স্বর্ণ ব্যবসায়ী অমিত দাসের বক্তব্য, হালতু স্কুল রোডে তাঁর একটি দীর্ঘদিনের সোনার দোকান রয়েছে। সোনার দোকান যেখানে রয়েছে সেই বিল্ডিংটি তিনি প্রোমোটিং করেছিলেন। সেই সময়ে ভিডিওতে হলুদ গেঞ্জি পরা ব্যক্তি ওনার একটি ফ্ল্যাটের দালালি করে। সেই দালাল যার কাছে ফ্ল্যাটটি বিক্রি করিয়ে দিয়েছিল, তার থেকে এখনও ৮-৯ লক্ষ টাকা পাওয়ার কথা সোনার ব্যবসায়ী অমিত দাসের।

কিন্তু পুরো টাকা দেওয়ার আগেই সেই ব্যক্তিকে ফ্ল্যাটে জোরজার করে ঢোকার ব্যবস্থা করে দেয় প্রদীপ ঘোষ নামের এই দালাল। সেই বিষয়েই প্রদীপ ঘোষের সঙ্গে কাল কথা বলতে যান অমিত দাস। তখন সেই দালাল আরও কয়েকজনকে ডেকে নিয়ে সোনার ব্যবসায়ী এর উপর চড়াও হয়। অমিতের অভিযোগ, যারা এসেছিল তাদের মধ্যে একজনের কাছে আগ্নেয়াস্ত্র ছিল। তারা সোনার দোকানে লুটপাট করার উদ্যোগ নিয়েছিল বলে জানান।

অমিত এলাকায় বিজেপি কর্মী হিসেবে পরিচিত। তাঁর বক্তব্য, যেহেতু তিনি বিজেপি করেন, তাই তাঁর উপর দিনের পর দিন অত্যাচার বাড়ছে। অমিত সিসিটিভি ফুটেজ থেকে আরম্ভ করে সমস্ত কিছু গড়ফা থানায় দেখানোর পরেও কোনওভাবে তাঁর অভিযোগ গ্রহণ করা হয়নি বলে তাঁর অভিযোগ। তিনি এও অভিযোগ করেন, থানার বাইরে দাঁড় করিয়ে ডিউটি অফিসার তাঁর সঙ্গে অমানবিক আচরণ করেছেন। এই ঘটনায় গড়ফা থানা একটি জেনারেল ডায়েরি নিয়েছে। এখনও পর্যন্ত কোন মামলা শুরু করেনি থানা। যার ফলে অমিত তাঁর সোনার দোকানে যেতে রীতিমতো ভয় পাচ্ছে। পুলিশি সহায়তা তিনি পাচ্ছেন না।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: