প্রাথমিকের পর প্রশ্ন বিতর্ক নবম-দশম, একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায়

প্রাথমিকের পর প্রশ্ন বিতর্ক নবম-দশম, একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায়
শিক্ষক নিয়োগে ৮ প্রশ্ন "ভুল"

ইংরেজি বিষয়ের প্রশ্নের ক্রমিক নম্বর ২, ৯, ৫৫ এর মধ্যে ৫৫ নম্বর ভুল বলে দাবি মামলায়

  • Share this:

ARNAB HAZRA

#কলকাতা: নবম -দশম, একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া প্রায় সম্পূর্ণ। ইতিমধ্যেই রাজ্যের বিদ্যালয় গুলিতে নিযুক্ত হয়ে গেছেন প্রায় ১৫০০০ শিক্ষক। তবু মামলার জট পিছু ছাড়ছে না।

উদ্বেগ বাড়িয়ে এবার হাইকোর্টে মামলা হলো ৮ প্রশ্নের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে।

স্টেট লেভেল সিলেকশন টেস্ট বা SLST মাধ্যমে এবারই প্রথমবরের জন্য নিয়োগ প্রক্রিয়া হয়। নবম-দশম শ্রেণির শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা নেওয়া হয় ২৭ নভেম্বর ২০১৬, আর একাদশ-দ্বাদশের জন্য পরীক্ষা হয় ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। দুই স্তরের পরীক্ষায় বসে প্রায় ৪ লক্ষ পরীক্ষার্থী।

নবম-দশম শ্রেণির শিক্ষক নিয়োগের ৩টি প্রশ্ন চ্যালেঞ্জ হয়েছে হাইকোর্টে। ইংরেজি বিষয়ের প্রশ্নের ক্রমিক নম্বর ২, ৯, ৫৫ এর মধ্যে ৫৫ নম্বর ভুল বলে দাবি মামলায়। স্কুল সার্ভিস কমিশন জানাই, ২ নম্বর প্রশ্নের সঠিক উত্তর এর অপশন "ডি"।

তথ্যের অধিকার আইনে নিজের খাতা পাওয়ার পর মামলাকারী নাসিমউদ্দিন মন্ডল জানাচ্ছেন, সঠিক উত্তরের অপশনটি হল "এ"।

তাঁর আরও দাবি, কমিশন হয় উত্তরের অপশন ভুল দিয়েছে অথবা প্রশ্নটি ভুল। একইরকমভাবে মামলাকারীরা জানাচ্ছেন, ৯ নম্বর প্রশ্নের সঠিক উত্তর অপশন "বি"।

নিয়োগ প্রার্থীর আইনজীবী সুদীপ্ত দাশগুপ্ত জানাচ্ছেন,"তথ্যের অধিকার আইনে বেশকিছু নথি চাই আমরা কমিশনের কাছে। কমিশন নথি দিতে দেরি করায় পরীক্ষার প্রায় তিন বছর পর মামলা হয়েছে হাইকোর্টে। এক নম্বর মেধাতালিকায় অনেক হেরফের ঘটিয়ে দেয়। আদালতের কাছে তাই সঠিক অপশনের উত্তরে নাম্বার দিয়ে মক্কেলকে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অন্তর্ভুক্ত করার আবেদন রেখেছি। "

পরীক্ষার্থী টুম্পা পাল এডুকেশন বিষয়ে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বসে। আরটিআই তথ্য পাওয়ার পর হাইকোর্টের কাছে তাঁর আবেদন, এডুকেশন বিষয়ের ৮,১৪,২৭,৪৪,৫৪ ক্রমিক নম্বরের প্রশ্নগুলির উত্তর হয় ভুল দেওয়া হয়েছে অথবা প্রশ্নটিই ভুল।

কমিশন উত্তরপত্রে জানিয়েছে, প্রশ্নগুলির অপশনগুলি ক্রমান্বয়ে হয় এরকম, "এ", " সি", "সি", " ডি" এবং "এ"।

মামলাকারীর দাবি, ৮ এর অপশন "সি", ২৭ এর " এ", ৪৪ এর "সি" এবং ৫৪ এর "ডি"। ১৪ প্রশ্নের সব অপশনগুলি ভুল।

১৪ নম্বর প্রশ্নে উত্তর চাওয়া হয়েছে, রামমূর্তি কমিটি কবে হয়? মামলাকারীর উত্তর বলছেন ১৯৯০ সালে। প্রশ্নের কোনও উত্তর-এ এই অপশন নেই।

মামলাকারীর আইনজীবী বিক্রম বন্দোপাধ্যায়ের যুক্তি," ৪৪ নম্বর প্রশ্নটি দু'রকম অর্থ। ইংরেজী প্রশ্নের অর্থ করলে দাঁড়ায় এমনটা,দেশের শিক্ষার অধিকার আইন চালু হয়েছে জনগণ কবে এটা জানতে পেরেছে । আবার বাংলাতে প্রশ্নটির অর্থ হচ্ছে শিক্ষার অধিকার আইন কবে থেকে দেশে কার্যকর হয়েছে। কমিশনের এমন প্রশ্নে বিভ্রান্তি বাড়িয়েছে।"

এর আগে প্রাথমিক টেটে ৬ প্রশ্ন ভুল বলে রায় দেয় হাইকোর্ট। প্রতিভা মন্ডল সহ ৬০০ বেশী মামলাকারীকে ভুল প্রশ্নে নম্বর দিয়ে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অন্তর্ভুক্ত করতেও বলে।

প্রাথমিকের পর এসএলএসটি নিয়ে প্রশ্ন ভুলের বিতর্ক।

এসএসসি চেয়ারম্যান সৌমিত্র সরকার জানিয়েছেন, "প্রশ্ন ভুলের বিষয় জানা নেই। তবে অভিযোগ এলে তা খতিয়ে দেখা হবে।"

First published: 09:27:50 PM Dec 14, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर