আজই রাজ্যে আসছে ৪ লক্ষ কোভিশিল্ড

আজই রাজ্যে আসছে ৪ লক্ষ কোভিশিল্ড

আজ সন্ধে বা রাতের মধ্যেই ঢুকবে এই চার লক্ষ ভ্যাকসিন

আজ সন্ধে বা রাতের মধ্যেই ঢুকবে এই চার লক্ষ ভ্যাকসিন

  • Share this:

#কলকাতা: আজই রাজ্যে আসছে ৪ লক্ষ কোভিশিল্ড-এর ডোজ। তবে এই ভ্যাকসিন আসছে ৪৫ বছর বয়সের ঊর্ধ্বদের জন্য। কেন্দ্রের তরফে ৪৫ ঊর্ধ্বদের জন্য এই চার লক্ষ ভ্যাকসিনের ডোজ পাঠানো হচ্ছে। আজ সন্ধে বা রাতের মধ্যেই ঢুকবে এই চার লক্ষ ভ্যাকসিন। কিন্তু ১৮ থেকে ৪৫ বছর বয়সীদের কবে থেকে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে, সে ব্যাপারে এখনও পর্যন্ত নিশ্চিত নয় রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর। যদিও স্বাস্থ্য দফতরের তরফের ক্রমাগত যোগাযোগ রাখা হচ্ছে কেন্দ্রের সঙ্গে।

অন্যদিকে, কলকাতায় ১ মে থেকেই চালু হয়েছে অক্সিজেন পার্লার। কোভিড পরিস্থিতিতে ক্রমাগত বাড়ছে অক্সিজেনের চাহিদা। এই পরিস্থিতিতে অক্সিজেন পেতে যাতে অসুবিধা না হয় সেদিকে নজর রয়েছে রাজ্য সরকারের। আলিপুরের উত্তীর্ণ সভাঘরে শুরু হওয়া এই অক্সিজেন পার্লার থেকে সুবিধা মতো অক্সিজেন গ্রহণ করার সুবিধা থাকবে।

তবে করোনা হাহাকারের মধ্যেই মিলল আশার আলো! টানা পাঁচ সপ্তাহ পর এ বার নিম্নমুখী করোনা সংক্রমণের হার। ক্রমবর্ধমান করোনার বাড়বাড়ন্তে হাহাকার উঠেছিল গোটা দেশে । মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে পের মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছিল করোনা সংক্রমণ (Coronavirus Infection)। সর্বকালের সমস্ত রেকর্ড ছাপিয়ে করোনার কড়াল থাবা পড়েছিল ঘরে ঘরে । অবশেষে একটু আশার আলো উঁকি দিচ্ছে দেশবাসীর মনে, ধীরে ধীরে নিম্নমূখী হচ্ছে করোনা সংক্রমণের গ্রাফ । গত ৩০ এপ্রিল দেশে দৈনিক করোনা আক্রান্তর সংখ্যা ৪ লক্ষ পার করেছিল। এরপর দৈনিক আক্রান্তর সংখ্যা ১ মে কমে হয় ৩,৯২,৪৮৮। ২ মে সেই সংখ্যা আরও কমে হয় ৩,৬৮,১৪৭। আর আজ, ৩ মে সংখ্যাটা নেমে দাঁড়িয়েছে ৩ লক্ষ ৫৭ হাজার ২২৯ জনে। প্রায় ১০ হাজার কমেছে আক্রান্তের সংখ্যা। তবে সোমবারের তুলনায় দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে কিছুটা । সোমবার করোনায় মারা গিয়েছিলেন ৩ হাজার ৪১৭ জন, সেখানে মঙ্গলবার ৩ হাজার ৪৪৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এখনও পর্যন্ত দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ কোটি ছাড়িয়ে গিয়েছে। করোনায় সবচেয়ে বিধ্বস্ত হয়েছিল যে রাজ্যগুলি তার মধ্যে রয়েছে মহারাষ্ট্র, গুজরাত, দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ, পঞ্জাব, মধ্যপ্রদেশ, তেলঙ্গানা, উত্তরাখণ্ডে সংক্রমণের নিম্ন অভিমুখ লক্ষ্য করা গিয়েছে।

SOMRAJ BANDOPADHYAY

Published by:Rukmini Mazumder
First published:

লেটেস্ট খবর