Home /News /kolkata /
Kolkata News|| বিদ্যুৎ ভবনে ৩ দিনের অবস্থান, পুলিশের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ

Kolkata News|| বিদ্যুৎ ভবনে ৩ দিনের অবস্থান, পুলিশের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ

বিদ্যুৎ ভবন। ফাইল ছবি।

বিদ্যুৎ ভবন। ফাইল ছবি।

3 days sitting protest at Vidyut Bhavan: গ্রাহক ও কর্মীদের বিভিন্ন দাবিদাওয়া নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিদ্যুৎ ওয়ার্কমেন্স ইউনিয়নের উদ্যোগে ১৮-২০ মে বিদ্যুৎ ভবনে লাগাতার ৩ দিন অবস্থান বিক্ষোভ করা হয়েছে।

  • Share this:

#কলকাতা: গ্রাহক ও কর্মীদের বিভিন্ন দাবিদাওয়া নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিদ্যুৎ ওয়ার্কমেন্স ইউনিয়নের উদ্যোগে ১৮-২০ মে বিদ্যুৎ ভবনে লাগাতার ৩ দিন অবস্থান বিক্ষোভ করা হয়েছে। এই তিনদিনের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছিলেন, তপন সেন, সুজন চক্রবর্তী, বিকাশ ভট্টাচার্য, হিমগ্নরাজ ভট্টাচার্য, কনীনিকা বোস ঘোষ, ময়ুখ বিশ্বাস, বিপ্লব মজুমদারের মতো নেতারা। কিন্তু সেই কর্মসূচিতে পুলিশ অসহযোগিতা করেছে বলে অভিযোগ সংগঠনের নেতৃত্বের। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অরিন্দম রায় বলেন, "আমাদের ৩ দিনের কর্মসূচিতে পুলিশ প্রচন্ডভাবে অসহযোগিতা করেছে। আমাদের মঞ্চ বাধতে দেয়নি, মাইক লাগাতে দেয়নি। আমাদের কর্মী স্বার্থে বিভিন্ন দাবিদাওয়া আছে। সাধারণ গ্রাহকের জন্য দাবি-দাওয়া আছে। মাসুল কমানোর দাবি আছে। আমাদের জেলা ভিত্তিক টার্গেট ছিল। একদিনে সাড়ে তিন'শ থেকে চার'শ জমায়েত ছিল। আমাদের বাইরে বসতে দেওয়া হয়নি। তাই বিদ্যুৎভবনের ভিতরেই কর্মসূচি করতে হল আমাদের।"

আরও পড়ুন: 'এই' বাড়িতেই মাসের পর মাস চলছিল জাল নোট ছাপা! অবাক খাগড়াগড়ের বাসিন্দারা

কেনও এই অবস্থান কর্মসূচি? সংগঠনের তরফে জানানো হয়েছে, 'কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের জনস্বার্থ ও কর্মী স্বার্থ বিরোধী নীতি প্রণয়নের ফলে বিদ্যুৎক্ষেত্রে যেমন জনগণের বিদ্যুৎ অধিকার হরণ করার উদ্যোগ নিচ্ছে। তেমনই শ্রমিক কর্মচারীদের এমনকী পেনশন ভুক্ত অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের অর্জিত অধিকার হরণ করেছে। পিডিসিএল নিজস্ব কয়লাখনি থেকে কয়লা উত্তোলন করে বিদ্যুৎ উৎপাদনে জ্বালানি হিসাবে ব্যবহার করার ফলে উৎপাদন খরচ ইউনিট প্রতি ৫১ পয়সা কম হওয়ার কারণে ইউনিটের দাম কমানো উচিত। অথচ করা হচ্ছে তার উলটো।

আরও পড়ুন: রাজ্যের শিক্ষা সচিবকে নোটিশ সিবিআইয়ের, কোন পথে এগোচ্ছে তদন্ত?

রাজ্যে নতুন করে কোনও শিল্প না হওয়া সত্ত্বেও এই প্রচন্ড তাপপ্রবাহের পরিস্থিতিতে পিডিসিএল-এর নিজস্ব কয়লা খনি থাকা সত্ত্বেও ঘন্টার পর ঘন্টা কেন লোডশেডিং করতে হচ্ছে। অবিলম্বে এটা বন্ধ করার দাবি জানানো হয়েছে সংগঠনের তরফে। জনগণের বিদ্যুৎ ব্যবহার করার অধিকার হরণের উদ্দেশ্যে কেন্দ্রের সরকার বিদ্যুৎক্ষেত্রকে পরিষেবা ক্ষেত্রের পরিবর্তে বানিজ্যিক ক্ষেত্রে রূপান্তরিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে। এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানায় সংগঠন। বর্তমানে নুন্যতম মজুরি ২৬,০০০ টাকা হলেও তা প্রদান করার ক্ষেত্রে যেমন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। তেমনই সমকাজে সমবেতন সুপ্রিম কোর্টের এই রায়কেও মান্যতা দেওয়া হচ্ছে না। পূর্বে ঠিকা প্রথায় নিযুক্ত অস্থায়ী কর্মীদের আদেশনামা মোতাবেক স্থায়ীকরণ করা হয়েছে। তাই এই সমস্ত অস্থায়ী ঠিকা কর্মীদের স্থায়ীকরন করে শূন্য পদগুলি পূরণের দাবি জানানো হয়েছে।

প্রতিটি ক্ষেত্রে কর্মী সংখ্যা খুবই কম। তাই অতিরিক্ত কাজ করতে হচ্ছে কর্মীদের। অতিরিক্ত কাজের জন্য অতিরিক্ত সুবিধার দাবি জানানো হয়েছে সংগঠনের তরফে।' এই সব দাবিতে কতৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনার পাশাপাশি লাগাতার আন্দোলন চালানো হবে বলে জানানো হয়েছে সংগঠনের তরফে।

UJJAL ROY

Published by:Shubhagata Dey
First published:

Tags: Kolkata

পরবর্তী খবর